সরকারি অর্থে মাদ্রাসা চললে, সরকারি স্কুলে গীতা পড়ান উচিত, মন্তব্য অসমের শিক্ষামন্ত্রীর

সরকারি অর্থে মাদ্রাসা চললে, সরকারি স্কুলে গীতা পড়ান উচিত, মন্তব্য অসমের শিক্ষামন্ত্রীর
File Photo of Assam finance minister Himanta Biswa Sarma.

সরকারি টাকায় যদি মাদ্রাসায় ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়া হয়, তাহলে টোলগুলিতেও গীতা পড়ান বাধ্যতামূলক করা উচিত৷ কারণ, সরকারের দায়িত্ব নয় সাধারণ মানুষের অর্থে আরবী ও ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়া৷

  • Share this:
#অসম: বিজেপি শাসিত অসম সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকারি মাদ্রাসা ও সংস্কৃত শিক্ষা ভাবনায় তৈরি টোল বন্ধ করার৷ তা নিয়ে বিতর্কও তৈরি হয়েছে৷ কিন্তু সরকারি সিদ্ধান্ত নিয়ে এদিন নতুন যুক্তি দাঁড় করালেন সে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা৷ বুধবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘সরকারি টাকায় যদি মাদ্রাসায় ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়া হয়, তাহলে টোলগুলিতেও গীতা পড়ান বাধ্যতামূলক করা উচিত৷ কারণ, সরকারের দায়িত্ব নয় সাধারণ মানুষের অর্থে আরবী ও ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়া৷ একটি ধর্ম নিরপেক্ষ দেশে সরকারি টাকায় ধর্মীয় শিক্ষা চলতে পারে না৷ আর যদি সরকারি প্রতিষ্ঠানে ধর্মীয় শিক্ষা দিতেই হয়, তাহলে তো স্কুলে গীতা বা বাইবেলও পড়ান উচিত?’ এই মত প্রকাশ করার পাশাপাশি তিনি জানিয়ে দেন, অসমের সংস্কৃত টোল ও মাদ্রাসাগুলিকে সরকারি স্কুলে পরিণত করা হবে৷ আর পাঁচটা সাধারণ স্কুলের সিলেবাস মেনেই এখানে পড়াশোনা চলবে৷ অসমের সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত মাদ্রাসাগুলি নিয়ে অসম সরকারের সিদ্ধান্তে একরকমের বিতর্ক তৈরি হয়েছে৷ কারণ, অসম সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকারি অনুদানে আর কোনও মাদ্রাসা চালানো হবে না৷ বরং সেই প্রতিষ্ঠানগুলিকে সাধারণ সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মতো করেই গড়ে তোলা হবে৷ সেখানে সাধারণ সিলেবাসে পড়াশোনা করবে পডুয়ারা৷
First published: February 13, 2020, 12:43 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर