'সংসদে পাস হয়েছে, CAA রুখে দেওয়ার ক্ষমতা নেই কোনও রাজ্যের,' হুঁশিয়ারি কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রীর

'সংসদে পাস হয়েছে, CAA রুখে দেওয়ার ক্ষমতা নেই কোনও রাজ্যের,' হুঁশিয়ারি কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রীর
আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ

কেরল বিধানসভায় একটি রেজোলিউশন পাস হয়েছে, তাতে বলা হয়েছে, সংশোধিত নাগরকিত্ব আইন বাতিল করতে হবে কেন্দ্রীয় সরকারকে৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বছরের প্রথম দিনেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিরোধীদের কড়া হুঁশিয়ারি দিলেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ৷ বিরোধী দল শাসিত রাজ্য সরকারগুলিতে আইনমন্ত্রীর চ্যালেঞ্জ, কোনও রাজ্য সিএএ রুখতে পারে না৷ একই তাঁর দাবি, নতুন নাগরিকত্ব আইন কোনও ভারতীয় নাগরিকের নাগরিকত্ব কাড়বে না৷

তাঁর কথায়, 'আমি সিএএ-কে সমর্থন করি৷ কেউ কেউ না বুঝেই বিরোধিতা করছে৷ সবচেয়ে আশ্চর্যজনক হল, কংগ্রেস বুঝতেই চাইছে না৷ সিপিআই, সিপিআইএম-ও বুঝতে চাইছে না৷ সিএএ কোনও ভারতীয় নাগরিকের উপর লাগু হবে না৷ কাউকে নাগরিকত্ব দেবে না, কারও থেকে নাগরিকত্ব ছিনিয়েও নেবে না৷ উগান্ডা থেকে আগত হিন্দুদের নাগরিকত্ব দিয়েছিলেন ইন্দিরা গান্ধি৷ শ্রীলঙ্কা থেকে আসা তামিলদেরও নাগরিকত্ব দিয়েছিলেন রাজীব গান্ধি৷ ওই একই কাজ প্রধানমন্ত্রী মোদিও করছেন, তা কেন খারাপ, বুঝতে পারছি না৷'

এরপরই সংসদের প্রসঙ্গ তুলে আইনমন্ত্রী বলেন, 'নাগরিকত্ব সংক্রান্ত আইন পাস হয়েছে সংসদে৷ কোনও রাজ্যের বিধানসভায় নয়৷ কোনও রাজ্য এই আইন রুখতে পারে না৷'

প্রসঙ্গত,  কেরল বিধানসভায় একটি রেজোলিউশন পাস হয়েছে, তাতে বলা হয়েছে, সংশোধিত নাগরকিত্ব আইন বাতিল করতে হবে কেন্দ্রীয় সরকারকে৷

দেশজুড়েই এই আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ চলছে৷ ৬০টিরও বেশি মামলা দায়ের করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে৷

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ২০১৯-এ বলা হয়েছে, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে ধর্মীয় নিপীড়নের জেরে শরণার্থী হিন্দু, পার্সি, শিখ, খ্রিস্টান ও বৌদ্ধদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া হবে৷ ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর বা তার আগে ভারতে আসা শরণার্থীদেরই ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া হবে৷

First published: 04:56:00 PM Jan 01, 2020
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर