Citizenship Amendment Bill: ভারতবর্ষকে দয়া করে জুরাসিক দেশ বানাবেন না, CAB বিতর্কে তীব্র আক্রমণ সিব্বলের

Citizenship Amendment Bill: ভারতবর্ষকে দয়া করে জুরাসিক দেশ বানাবেন না, CAB বিতর্কে তীব্র আক্রমণ সিব্বলের

CAB নিয়ে বলতে উঠে কড়া ভাষায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও মোদি সরকারকে তীব্র আক্রমণ সিব্বলের ৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: রাজ্যসভায় নাগরিকত্ব-লড়াই ৷ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল এনে দেশের ভবিষ্যত দয়া করে নষ্ট করবেন না ৷ নাগরিকত্বের ভিত্তি কখনই ধর্ম হতে পারে না ৷ রাজ্যসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বিতর্কে বলতে উঠে কেন্দ্রকে কড়া ভাষায় আক্রমণ কংগ্রেস সাংসদ কপিল সিব্বলের ৷

লোকসভায় পাশের পর রাজ্যসভায় পেশ হয়েছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ৷ বিল নিয়ে আলোচনার জন্য সময় নির্ধারিত মাত্র ৬ ঘণ্টা ৷ CAB নিয়ে বলতে উঠে কড়া ভাষায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও মোদি সরকারকে তীব্র আক্রমণ সিব্বলের ৷ বলেন, ‘ইতিহাসের ভিতকে বদলে দেবেন না ৷ টু নেশনস থিয়োরি কংগ্রেসের নয়, বীর সাভারকরের ছিল ৷ আমি জানি না আমাদের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কোন ইতিহাস বই পড়তেন ৷’

নাগরিকত্ব বিল নিয়ে কপিল সিব্বলের মন্তব্য, ‘ কেউ নাগরিকত্ব পাবেন কিনা তার নির্ধারণের ভিত্তি কখনও ধর্ম হতে পারে না ৷ এই বিল আসলে টু নেশন থিয়োরিকে আইনি মান্যতা দিতে চলেছে ৷ এভাবে দেশের ভবিষ্যত নিয়ে খেলা করা উচিত নয় ৷ ’ তিনি আরও বলেন, ‘এই বিল আমাদের সাংস্কৃতিক সম্প্রীতিকে আঘাত করছে ৷ কেন্দ্রকে অনুরোধ দয়া করে ধর্মনিরপেক্ষ দেশকে জুরাসিক ওয়ার্ল্ড বানাবেন না ৷’

রাজ্যসভায় নাগরিকত্ব-লড়াই। বিরোধীদের দাবি, মোদি সরকাররের নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল অসাংবিধানিক। ধর্মের ভিত্তিতে এ ভাবে নাগরিকত্ব দেওয়া যায় না। তাদের দাবি, মোদি সরকারের আসলে মুসলিমদের টার্গেট করে মেরুকরণের তাস খেলছে। বুধবার রাজ্যসভায় বলতে উঠে বিরোধীদের এই সব অভিযোগকেই ভোঁতা করার চেষ্টা চেষ্টা করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তারই পাল্টা বলতে উঠে ডেরেক বলেন, ‘৮৪ বছর আগে নাৎসী জার্মানরা যা করেছিল আজ রাজ্যসভাতে দাঁড়িয়েও সেই অবস্থার কথা মনে করে একইরকম ভয় লাগছে ৷ এই বিল সংবিধান বিরোধী ৷ বাঙালি বিরোধী বিল এনেছে সরকার ৷ নাগরিকত্ব বিল ভারত বিরোধী ৷ বাঙালিকে দেশপ্রেম শেখাবেন না ৷ ব্রিটিশরা বাঙালিদের দমাতে পারেনি ৷ আপনারাও বাঙালিদের দমাতে পারবেন না ৷ হিটলারকে অনুসরণ করে এই বিল ৷ কনসেনট্রেশন ক্যাম্পের বদলে ডিটেনশন ক্যাম্প ৷ দেশ একনায়কতন্ত্রের দিকে এগোচ্ছে ৷’

মোদি সরকারের হয়ে আসরে অমিত শাহ। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলকে সংবিধান বিরোধী বলে বিরোধীদের যে অভিযোগ তার জবাব দিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। আশ্বস্ত করার চেষ্টা করলেন উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলিকে।  মোদি সরকারের দাবি, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে ধর্মীয় অত্যাচারের শিকার হওয়া সংখ্যালঘুদের এ দেশে নাগরিকত্ব দেওয়ার লক্ষ্যেই এই বিল। কোনও মামলা চললে প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। যবেই আসুন নাগরিকত্ব দেওয়া হবে ৷

অনেকেরই প্রশ্ন, পাকিস্তানে আহমদিয়া, শিয়া মুসলিমরাও তো সংখ্যালঘু। তাঁরাও ধর্মীয় অত্যাচারে শিকার বলে অভিযোগ। তা হলে তাঁদের কেন বঞ্চিত করা হচ্ছে। এই প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে অমিত সাহ বারবারই হিন্দু তাস খেলেছেন। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলকে হাতিয়ার করে টার্গেট করেছেন বাংলার উদ্বাস্তু ভোট।

নরেন্দ্র মোদি দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরে বার্তা দেন, সব কা সাথ, সব কা বিকাশ, সব কা বিশ্বাস। সেই সুরেই এ দিন বার বার মুসলিমদের পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দেন অমিত শাহ। বোঝানোর চেষ্টা করেন, এই বিল মোটেই মুসলিম বিরোধী নয়। এ দিন রাজ্যসভা থেকে উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলিকেও আস্বস্ত করার চেষ্টা করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

First published: 04:48:12 PM Dec 11, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर