৩৩ দিনে ১০৪ শিশুর মৃত্যু! মর্মান্তিক ঘটনার পর স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে সবুজ কার্পেট, অস্বস্তিতে সরকার

৩৩ দিনে ১০৪ শিশুর মৃত্যু! মর্মান্তিক ঘটনার পর স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে সবুজ কার্পেট, অস্বস্তিতে সরকার

মৃত শিশুদের পরিবারের আত্মীয়দের রীতিমত ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিচ্ছে পুলিশ। আর হাসপাতালের ভিতরে তখন চলছে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় সারাইয়ের কাজ। কারণ, মন্ত্রী আসবেন।

  • Share this:

#কোটা: আগেই নিশানা করা হয়েছিল কংগ্রেসের শীর্ষনেতাদের। এবার রাজস্থানের কোটায় শিশুমৃত্যুতে রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রঘু শর্মার পদত্যাগ দাবি করল বিজেপি। বিরোধীদের দাবি উড়িয়ে শিশু মৃত্যুর দায় পাল্টা বিজেপির কোর্টেই ঠেললেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলত। রাজনৈতিক এই কাজিয়ার মধ্যেই গত ৩৩ দিনে কোটার জেএন লোন হাসপাতালে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ১০৪।

হাসপাতালের বাইরে তখন তুমুল বিক্ষোভ। মৃত শিশুদের পরিবারের আত্মীয়দের রীতিমত ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিচ্ছে পুলিশ। আর হাসপাতালের ভিতরে তখন চলছে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় সারাইয়ের কাজ। কারণ, মন্ত্রী আসবেন। গত কয়েকদিন ধরে রাজস্থানের কোটার জেএন লোন হাসপাতালে মারা গিয়েছে একের পর এক শিশু। অভিযোগ উঠেছে হাসপাতালের পরিবেশ নিয়ে। তা খতিয়ে দেখতেই এদিন যান রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রঘু শর্মা। কিন্তু গেহলত সরকারের অস্বস্তি বাড়াল, তাঁকে সবুজ কার্পেট দিয়ে স্বাগত জানানোর ছবি। তড়িঘড়ি অবশ্য তা সরিয়েও দেওয়া হয়। এই বিতর্কের মধ্যেই রঘু শর্মার পদত্যাগ দাবি করল বিজেপি।

গত ডিসেম্বর থেকে নতুন বছরের শুক্রবার পর্যন্ত এই হাসপাতালে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে। ইতিমধ্যেই কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধি এবং কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

ট্যুইটারে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের খোঁচা, শতাধিক শিশুর মৃত্যু খুবই দুঃখজনক। এই ঘটনা সভ্য সমাজের উপর একটা দাগ। একইসঙ্গে দুঃখজনক মহিলা হয়েও কংগ্রেস সভাপতি সনিয়া গান্ধি এবং কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধি শিশু হারানো মায়েদের দুঃখ বুঝতে পারছেন না। উত্তরপ্রদেশ নয়, প্রিয়ঙ্কার উচিত রাজস্থানের ওই মায়েদের পাশে দাঁড়ানোর।

যোগীর সুর বিএসপি সুপ্রিমো মায়াবতীর গলাতেও ৷ রাজস্থানের কোটার ঘটনায় কংগ্রেসের শীর্ষ নেতাদের অবস্থান কী ? কেন চুপ প্রিয়াঙ্কা ? উত্তরপ্রদেশ নিয়ে তিনি সরব। কিন্তু কবে যাবেন রাজস্থানে ? এই সময় প্রিয়াঙ্কার উচিত ছিল উত্তরপ্রদেশে না থেকে রাজস্থানে ওই মায়েদের পাশে থাকা, যাঁরা শিশু হারিয়েছেন।

বিরোধীদের জবাব দিতে এদিন সনিয়া-প্রিয়াঙ্কার ঢাল হলেন খোদ রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলত। পরিসংখ্যান বলছে, কোটার জেএন লোন হাসপাতালে শিশু মৃত্যু নতুন নয়। হাসপাতালের হিসেব অনুযায়ী, গত বছর অগাস্ট মাসে এই হাসাপাতালে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা ৮৭। সেপ্টেম্বরে সংখ্যাটা ৯০। নভেম্বরে ৯১।

কোটায় শিশু মৃত্যু নতুন নয় বলে মেনে নিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকও। কিন্তু গত এক বছরে সংখ্যাটা অনেক বেশি বলেই দাবি হর্ষবর্ধণের মন্ত্রকের। ২০১৮-র ডিসেম্বরেই আগেই তো রাজস্থানের ক্ষমতা হাতে পেয়েছে কংগ্রেস।

First published: January 3, 2020, 4:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर