কানপুর ট্রেন দুর্ঘটনায় প্রেশার কুকার বোমা দিয়ে নাশকতা, জানালেন IS সন্দেহভাজনরা– News18 Bengali

কানপুর ট্রেন দুর্ঘটনায় প্রেশার কুকার বোমা দিয়ে নাশকতা, জানালেন IS সন্দেহভাজনরা

প্রেশার কুকারে বিস্ফোরক ভরে উড়িয়ে দেওয়া হয় ট্রেনের ট্র্যাক ৷ এর ফলেই গত ২০ নভেম্বর কানপুরের পুখরায়নে দুর্ঘটনায় পড়ে ইন্দোর–পাটনা এক্সপ্রেস ৷

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jan 20, 2017 12:48 PM IST
কানপুর ট্রেন দুর্ঘটনায় প্রেশার কুকার বোমা দিয়ে নাশকতা, জানালেন IS সন্দেহভাজনরা
আহতদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা ৷
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jan 20, 2017 12:48 PM IST

#লখনউ: প্রেশার কুকারে বিস্ফোরক ভরে উড়িয়ে দেওয়া হয় ট্রেনের ট্র্যাক ৷ এর ফলেই গত ২০ নভেম্বর কানপুরের পুখরায়নে দুর্ঘটনায় পড়ে ইন্দোর–পাটনা এক্সপ্রেস ৷ মৃত্যু হয় ১৫০ জন নিরীহ মানুষের ৷ সম্প্রতি বিহার পুলিশের হাতে ধৃত তিন আইএস সন্দেহভাজনকে জেরা করে এমনই তথ্য জানা গিয়েছে ৷

ISI চর সন্দেহে মোতিলাল পাশওয়ান, উমাশংকর পটেল ও মুকেশ যাদব নামের তিনজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ ৷ তখনই সামনে আসে কানপুর রেল দুর্ঘটনায় আইএস যোগ ৷

উত্তরপ্রদেশ ATS সূত্রে খবর, জেরায় ধৃতরা জানিয়েছে আইএস-এর নির্দেশেই ভারতীয় রেলকে টার্গেট করেছিল তারা ৷ রেলওয়ে ট্র্যাকে নাশকতা ঘটিয়ে কিভাবে চ্রেন দুর্গটনা ঘটানো যাবে তাঁর পুরো প্রশিক্ষণ দেওয়ার পর মোতিলালদের নির্দিষ্ট দিনে কানপুর স্টেশনে পাঠানো হয় ৷

পূর্ব নির্দেশ ও জায়গা মতোই তারা প্রেশার কুকারে বিস্ফোরক ভরে কানপুর থেকে ১০০ কিমি দূরে নির্দিষ্ট জায়গায় ট্রেন ট্র্যাকে রেখে দেয় ৷ বিস্ফোরণে উড়ে যায় রেলওয়ে লাইন ৷ ফলে ওই ট্র্যাক ধরে ইন্দোর–পাটনা এক্সপ্রেস আসায় প্রবল দুর্ঘটনা ঘটে ৷ লাইনচ্যুত হয় ওই ট্রেনের ১৪টি বগি ৷ এই পুরো অপরাশেনের জন্য দুবাই থেকে তাদের ২৫ লক্ষ টাকা পাঠিয়েছিল ISI এজেন্ট শামসুল হুডি নামে এক ব্যক্তি। শামসুলের খোঁজে নেমেছে তদন্তকারীরা ৷

ধৃতদের সমস্ত দাবি খতিয়ে দেখতে আবারও দুর্ঘটনাস্থলে যাবে ATS এর ফরেন্সিক টিম ৷ ধৃত তিন আইএস সন্দেহভাজন পুলিশি জেরার মুখে জানিয়েছে, শুধু নভেম্বরেই নয়, ডিসেম্বর ২৮ তারিখেও কানপুরের দেহাতে তারা নাকি আরেকটি ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটায় ৷ এই অপারেশনের নির্দেশ দিয়েছিল ব্রিজ কিশোর গিরি নামে আরেক আইএস এজেন্ট ৷ এই মুহূর্তে সে নেপাল পুলিশের হেফাজতে ৷ স্বাস্থ্যের অবনতি হওয়ায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৷

এই স্বীকারোক্তি পাক গুপ্তচর সংস্থার ভারত বিরোধী পদক্ষেপের প্রমাণ দিচ্ছে। তাই এই তদন্তের উপর নজর রাখছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা NIA। প্রয়োজনে NIA তদন্তভার গ্রহণ করতে পারে বলেও জানা গিয়েছে।

First published: 12:48:50 PM Jan 20, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर