corona virus btn
corona virus btn
Loading

করুণ অবস্থা, শেষ করা যাচ্ছে না শেষকৃত্য, লকার বুক করে অপেক্ষায় মানুষ

করুণ অবস্থা, শেষ করা যাচ্ছে না শেষকৃত্য, লকার বুক করে অপেক্ষায় মানুষ
Photo - Collected

এই অবস্থার কথা বোধ হয় দুঃস্বপ্নেও ভাবেননি কেউই

  • Share this:

#দেরাদুন : দেরাদুনের বাসিন্দা ৮৬ বছরের এসএল গুলাটি বার্ধক্যজনিত কারণে মারা গেছেন এপ্রিলের ২৭ তারিখ ৷ কিন্তু এখনও শেষ হয়নি এই কাহিনী৷ পরিবারের হাত পা বাঁধা ৷ পারিবারিক নিয়ম অনুসারে তাঁদের পরিবারে মৃত্যুর পরে শেষকৃত্য সম্পন্ন হলেই সব হয় না ৷ পুরো বিষয়টি সাঙ্গ হয় যখন মৃতের চিতা ভস্ম বা অস্থি হরিদ্বারের গঙ্গায় বিসর্জিত হলে ৷ লকডাউনে তাই মৃতের শেষ ক্রিয়া এখনও আটকে ৷ গুলাটি-র চিতাভস্ম এখন ১০০ টাকা ভাড়ার লকারে বন্দি ৷

পরিবারের পক্ষ থেকে আত্মীয় জানিয়েছেন . ‘লকডাউন যখন শেষ হবে তখন লকার থেকে ওই চিতা ভস্ম বার করে গঙ্গায় বিসর্জন দেব ৷ ’

এটা শুধু গুলাটির একার বিষয় নয়৷ যেখানে তাঁর চিতাভস্ম বন্দী হয়ে লকারে রয়েছে সেই লকারেই এরকমও আরও ২৬ জনের অস্থি রাখা রয়েছে ৷ শ্মশানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে , ‘আমাদের কাছে ১৮ টি লকার রয়েছে , যার সবগুলির মধ্যেই চিতাভস্ম রাখা আছে ৷ আর বাকি গুলি ব্যাগে করে রাখা হয়েছে ৷ পরিবারের আত্মীয়রা অপেক্ষা করছেন যাতে যাতে হরিদ্বারে সেই চিতাভস্ম ভাসাতে পারেন ৷ ’

কিছু মানুষ আবার চিতাভস্ম নিয়ে যাবেন হিমাচল প্রদেশের পাওনতা সাহিবে  ৷ শ্মশানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এর আগে এই লকারগুলি এনআরআই আত্মীয়দের আসার ঘটনা হলেই ব্যবহার হত ৷ আর এই লকডাউনের জেরে সাধারণ মানুষ নিজের পরিবারের মানুষটিক শেষকৃত্যের শেষটা করে উঠতে পারছেন না৷

শ্মশানের পন্ডিত জানিয়েছেন হরিদ্বারকে হিন্দু শাস্ত্র অনুযায়ি মুক্তির দ্বার বলা হয় ৷ এখন যেহেতু মানুষ সেখানে অস্থি বিসর্জন করতে পারছেন না তাই অপেক্ষা করা ছাড়া তাঁদের হাতে আর কোনও উপায় অবশিষ্ট নেই ৷

আর এখানেই শেষ নয় শ্মশানের আধিকারিক জানিয়েছেন রোজই প্রায় গোটা চল্লিশ করে ফোন পাচ্ছেন এই অনুরোধ নিয়ে যদি আত্মীয়ের অস্থি রাখার জন্য লকার ভাড়া পাওয়া যায়৷

   
Published by: Debalina Datta
First published: May 8, 2020, 10:58 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर