• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • হাইকমিশনের ভিসা বিভাগের আড়ালে চলছিল গুপ্তচরবৃত্তি, জানাল দিল্লি পুলিশ

হাইকমিশনের ভিসা বিভাগের আড়ালে চলছিল গুপ্তচরবৃত্তি, জানাল দিল্লি পুলিশ

পাক হাইকমিশনে আইএসআই গুপ্তচর। হাই কমিশনের ভিসা বিভাগে কাজের আড়ালে চরবৃত্তি চালাত ভিসা বিভাগের কর্মী মহম্মদ আখতার।

পাক হাইকমিশনে আইএসআই গুপ্তচর। হাই কমিশনের ভিসা বিভাগে কাজের আড়ালে চরবৃত্তি চালাত ভিসা বিভাগের কর্মী মহম্মদ আখতার।

পাক হাইকমিশনে আইএসআই গুপ্তচর। হাই কমিশনের ভিসা বিভাগে কাজের আড়ালে চরবৃত্তি চালাত ভিসা বিভাগের কর্মী মহম্মদ আখতার।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: পাক হাইকমিশনে আইএসআই গুপ্তচর। হাই কমিশনের ভিসা বিভাগে কাজের আড়ালে চরবৃত্তি চালাত ভিসা বিভাগের কর্মী মেহমুদ আখতার। গোপনে তৈরি করেছিল মডিউলও। ২৫ অক্টোবর দিল্লির চিড়িয়াখানায় তথ্য আদান প্রদানের কথা ছিল। খবর পেয়ে সেখানে ফাঁদ পাতেন গোয়েন্দারা। কূটনৈতিক রক্ষাকবচের জেরে মেহমুদ আখতার মুক্ত। তবে গ্রেফতার করা হয়েছে পাকিস্তানের হয়ে কাজ করা বাকি দুই চরকে।

     সীমান্তে ভারতীয় সেনা ও আধাসামরিক বাহিনীর গোপন তথ্য চলে যাচ্ছে পাকিস্তানের হাতে। পাঠানকোট বা উরির মতো একের পর এক হামলার তদন্তে নেমে সেই আশঙ্কার কথাই উঠে আসে বারবার। এবার গোয়েন্দাদের হাতে এল তার শিকড়ও। সরষের ভিতর ভূতের মতো, দিল্লির বুকে পাক হাই কমিশনেই লুকিয়ে ছিল আইএসআই গুপ্তচর।

    পাক হাই কমিশনের ভিসা বিভাগে কাজ করার সূত্রে দেশের নাগরিকদের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পেত মহম্মদ আখতার। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়েই সে তৈরি করেছিল গুপ্তচরদের মডিউল।

    পাক গুপ্তচরদের দলে ছিল যোধপুরের শোয়েব নামে এক ভিসা এজেন্ট। এছাড়াও কয়েকজন ব্যক্তি নিয়ে তৈরি এই দলে ছিল দিল্লির নাগাওয়াড়ার বাসিন্দা মওলানা রমজান খান ও সুভাষ জাহাঙ্গির।

    ২৫ অক্টোবর দিল্লির চিড়িয়াখানায় পর্যটকদের ভিড়ের মাঝে পাক হাই কমিশনের কর্মী মেহমুদ আখতারের হাতে তথ্য তুলে দেওয়ার কথা ছিল। খবর পেয়ে ফাঁদ পাতেন গোয়েন্দারা। তাতেই জালে দুই পাক গুপ্তচর।

    কূটনৈতিক রক্ষাকবচের জেরে গ্রেফতার করা যায়নি মেহমুদ আখতারকে। তাকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ভারত ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। লাগাতার জেরা চলছে ধৃতদের। চরবৃত্তির শিকড় কতটা ছড়িয়েছে তা জানতে চাইছেন গোয়েন্দারা।

    First published: