• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • আড়াই বছরের দুধের শিশুর মৃত্যু, ছেলের সব অঙ্গ দিয়ে ৭ শিশুকে বাঁচালেন বাবা-মা

আড়াই বছরের দুধের শিশুর মৃত্যু, ছেলের সব অঙ্গ দিয়ে ৭ শিশুকে বাঁচালেন বাবা-মা

প্রতীকী চিত্র ।

প্রতীকী চিত্র ।

নিজের বাচ্চা নাই বা থাকল, তার অঙ্গগুলো অন্তত সচল থাকুক অন্য কারও দেহে । তবু তো অন্যদের দেহে, অন্য রূপে বেঁচে থাকবে তাঁদের সন্তান ।

  • Share this:

    #সুরাত: আড়াই বছরের বাচ্চাটির ব্রেন ডেথ হয়ে গিয়েছিল । মারাত্মক একটি দুর্ঘটনার পর হাসপাতালের চিকিৎসকরা বাবা-মা’কে এমনটাই জানিয়েছিলেন । এরপরেই কঠিন সেই সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা । নিজের বাচ্চা নাই বা থাকল, তার অঙ্গগুলো অন্তত সচল থাকুক অন্য কারও দেহে । তবু তো অন্যদের দেহে, অন্য রূপে বেঁচে থাকবে তাঁদের সন্তান ।

    ঘটনাটি ঘটেছে সুরাতের ভাতার এলাকায় । গত ৯ ডিসেম্বর খেলতে খেলতে হঠাৎই প্রতিবেশীর ফ্ল্যাটের দো’তলা থেকে নীচে পড়ে যায় যশ সঞ্জীব ওজা নামের আড়াই বছরের ওই শিশু। সঙ্গে সঙ্গে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় আমরুতা হাসপাতালে । সেখানে শুরু হয় তার চিকিৎসা । কিন্তু চিকিৎসকদের হাজার চেষ্টা সত্ত্বেও গত ১৪ ডিসেম্বর তাঁর ব্রেথ ডেথ ঘোষণা করা হয় ।

    এরপরেই সুরাতের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সভাপতি নীলেশ মান্ডেওয়ালা যোগাযোগ করেন যশের বাবা-মায়ের সঙ্গে । অঙ্গদানে তাঁদের রাজি করান তিনি । যশের বাবা সঞ্জীব ওজা পেশায় একজন সাংবাদিক । বিষয়টির গুরুত্ব বুঝে তিনিও অমত করেননি ।

    এরপরেই যশের হৃদপিণ্ড আর ফুসফুস এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে চড়ে চলে যায় চেন্নাইয়ে । ১,৬১৫ কিলোমিটার যেতে সময় নেয় মাত্র ১৬০ মিনিট । সেখানেই যশের হার্ট প্রতিস্থাপন করা হয় ৪ বছরের এক রাশিয়ান শিশুর শরীরে । আর ফুসফুসটি পায় ইউক্রেনের এক ৪ বছরের শিশু । গত বছর থেকে এই দুই শিশুর চিকিৎসা চলছিল চেন্নাইয়ে হাসপাতালে । অবশেষে নতুন জীবন পেল তারা ।

    যশের একটি কিডনি দেওয়া হয় সুরেন্দ্র নগরের বালিন্দা ১৩ বছরের এক কিশোরীকে এবং আর একটি পায় সুরাতেরই ১৭ বছরের এক কিশোরী । যশের লিভার বা যকৃৎ দেওযা হয় একটি ২ বছরের শিশু এবং তার কর্নিয়া রাখা হয়েছে সুরাতের লোক দৃষ্টি চক্ষু ব্যাঙ্কে ।

    Published by:Simli Raha
    First published: