• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • অ্যাভিয়ান আতঙ্কে দেরাদুন ও ঋষিকেশ! উদ্ধার করা হল ২০০টি পাখির মৃতদেহ

অ্যাভিয়ান আতঙ্কে দেরাদুন ও ঋষিকেশ! উদ্ধার করা হল ২০০টি পাখির মৃতদেহ

উত্তরাখন্ডের দেরাদুন এবং ঋষিকেশে প্রায় ২০০টি পাখির মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। তার মধ্যে বেশিরভাগ হল কাক।

উত্তরাখন্ডের দেরাদুন এবং ঋষিকেশে প্রায় ২০০টি পাখির মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। তার মধ্যে বেশিরভাগ হল কাক।

উত্তরাখন্ডের দেরাদুন এবং ঋষিকেশে প্রায় ২০০টি পাখির মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। তার মধ্যে বেশিরভাগ হল কাক।

  • Share this:

    #দেরাদুন: করোনা আবহে আবার নতুন করে চিন্তা বাড়াচ্ছে বার্ড ফ্লু। ইতিমধ্যে নয় রাজ্যে বার্ড ফ্লু থাবা বসিয়েছে। উত্তরাখন্ডের দেরাদুন এবং ঋষিকেশে প্রায় ২০০টি পাখির মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। তার মধ্যে বেশিরভাগ হল কাক। আজ সোমবার সরকারি সূত্রে জানানো হয়, গতকাল দেরাদুনের বিভিন্ন অঞ্চলে ১৬৫টি পাখির মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে, তার মধ্যে শুধু ভান্ডারীবাগ এলাকাতেই  ১২১টি মৃত কাকের দেহ মিলেছে। বন দফতরের কর্মকর্তা রাজীব ধীমান জানিয়েছেন, দেরাদুনে মৃত পাখির মধ্যে ১২১টি কাক, দু’টি পায়রা এবং একটি চিলের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। চিফ ওয়াল্ডলাইফ ওয়ারডেন-এর জেএস সুহাগ বলেছেন, মৃত পাখিদের নমুনাগুলি তাঁদের মৃত্যুর কারণ পরীক্ষা করার জন্য বরেলির ইন্ডিয়ান ভেটেনারি রিসার্চ ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয়েছে। ঋষিকেশে ও তার আশেপাশে বিভিন্ন স্থানে ৩০টির বেশি পাখি মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। সরকারি ভেটেনারি অফিসার রাজেশ রাতুরী জানিয়েছেন, এইমস চত্বরে ২৮টি কাক ও একটি পায়রা, বিস বিঘা এলাকায় একটি পায়রা এবং রায়ওয়ালা স্টেশনে দু’টি পাখির মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে। মৃত পাখিদের নমুনা সংগ্রহ করে পরবর্তী কাজের জন্য বন দফতরে পাঠানো হয়েছে। বার্ড ফ্লু-এর বিষয়টিকে নজরে রেখে ঋষিকেশ পৌর কমিশনার নরেন্দ্র সিং কুইরিয়াল জানিয়েছেন, জনগণের স্বার্থে পোলট্রি এবং পোলট্রি জাতীয় জিনিষ কিছুদিন আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা যেতে পারে। তবে এখনই ওই রাজ্যে পোলট্রি পণ্য নিষিদ্ধ করা হয়নি। তবে সূত্রের খবর, বার্ড ফ্লু নিয়ে জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য সোমবারই বৈঠকে বসতে চলেছে কেন্দ্রের কৃষি বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটি। কীভাবে বার্ড ফ্লু থেকে মুক্তি পাওয়া যায় জলদি সেই বিষয় আলোচনার জন্য পশুপালন মন্ত্রকের কর্মকর্তাদের ডেকেছে ওই কমিটি।

    Published by:Somosree Das
    First published: