টিকিটের জন্য হুড়োহুড়ি নেতাদের! বিজেপির প্রার্থী হতে চাইলেন না এমবিএ পাশ যুবক

পিছিয়ে থাকা সম্প্রদায়ের যুবক মনিকুট্টনকে প্রার্থী করে জনগণের ভরসা আদায় করতে চেয়েছিল গেরুয়া শিবির।

পিছিয়ে থাকা সম্প্রদায়ের যুবক মনিকুট্টনকে প্রার্থী করে জনগণের ভরসা আদায় করতে চেয়েছিল গেরুয়া শিবির।

  • Share this:
    #ওয়াইনাড়: টিকিট পাওয়ার জন্য চারপাশে হুড়োহুড়ি নেতাদের। দল প্রার্থী করছে না বলে কেউ হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ছেন। কেউ আবার পোস্টার হাতে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। মানুষের সেবা করা গৌণ হয়ে দাঁড়িয়েছে যেন! আসল উদ্দেশ্য ক্ষমতা দখল। দল প্রার্থী না করায় বিজেপি নেতা প্রকাশ্যে প্রতিবাদ জানিয়েছেন, এমনও দেখা গিয়েছে। এমনকি কেউ কেউ দল ছাড়ার হুমকিও দিয়ে ফেলেছেন তবে সবাই তো আর ঝাঁকের কই নয়। কেরলের এমবিএ পাশ যুবককে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছিল বিজেপি। কিন্তু ৩১ বছর বয়সী সেই যুবক জানিয়ে দিলেন, তিনি বিজেপির প্রার্থী হতে চান না। চারপাশে যখন প্রার্থী হওয়ার জন্য ঠেলাঠেলি, তখন যেন দেশের রাজনৈতিক মহলে উদাহরণ সেই যুবক। জেলার বাড়িমানত সিটে তাঁকে প্রার্থী করেছিল বিজেপি। কেরলের তফশিলি জাতির প্রতিনিধি হিসেবে তাঁকে তুলে ধরতে চেয়েছিল ভারতীয় জনতা পার্টি। কেরালায় বিজেপির অস্তিত্ব প্রায় নেই বললেই চলে। তাই পিছিয়ে থাকা সম্প্রদায়ের যুবক মনিকুট্টনকে প্রার্থী করে জনগণের ভরসা আদায় করতে চেয়েছিল গেরুয়া শিবির। গত রবিবার প্রার্থী ঘোষণা করেছিল বিজেপি। সেই সময় মণিকুট্টনের নামও ঘোষণা করা হয় পার্টির তরফে। টিভিতে বিজেপি প্রার্থী হিসেবে নিজের নাম দেখে অবাক হয়ে যান তিনি। তারপরই সংবাদমাধ্যমের সামনে বলেন, বিজেপি আমাকে প্রার্থী হিসেবে বেছে নিয়েছে বলে আমি তাদের ধন্যবাদ জানাই। কিন্তু আমি ফোনে শীর্ষ নেতৃত্বকে জানিয়েছি, প্রার্থী হওয়ার বিন্দুমাত্র ইচ্ছা আমার নেই। কেন প্রার্থী হতে চান না তিনি! যুবকের দাবি, তিনি রাজনীতি ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এমবিএ পাশ করার পর আর পাঁচজন সাধারণ নাগরিকের মতোই দেশসেবা করতে চান তিনি। চাকরি করতে চান। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে চান। তাই প্রার্থী হতে চান না। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে কেরলে বিধানসভা নির্বাচনে জিতেছিলেন তিনি। কিন্তু এবার রাজনীতি থেকে মুখ ফেরাতে চান।
    Published by:Suman Majumder
    First published: