corona virus btn
corona virus btn
Loading

MP Political Crisis| 'কংগ্রেসে থেকে দেশসেবা করতে পারছিলাম না,' BJP-তে যোগ দিয়ে বললেন সিন্ধিয়া

MP Political Crisis| 'কংগ্রেসে থেকে দেশসেবা করতে পারছিলাম না,' BJP-তে যোগ দিয়ে বললেন সিন্ধিয়া
বিজেপি তে জ্যোতিরাদিত্য
  • Share this:

#নয়াদিল্লি: মঙ্গলবারই কংগ্রেসে ইস্তফা দেন৷ বুধবার দুপুরে আনুষ্ঠানিক ভাবে বিজেপি-তে যোগ দিলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া৷ সোমবার রাত থেকেই জ্যোতিরাদিত্যর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেনি কংগ্রেস৷ হোলির দিনই জ্যোতিরাদিত্যকে সঙ্গে নিয়ে সকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাসভবনে যান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ বৈঠক শেষ করেই কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধিকে ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দেন সিন্ধিয়া৷ জ্যোতিরাদিত্যের দল ছাড়ার সঙ্গেই টালমাটাল অবস্থা মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকারের৷

দিল্লিতে বিজেপির কার্যালয়ে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার হাত থেকে বিজেপির সদস্যপদ গ্রহণ করলেন গোয়ালিওরের রাজপরিবারের সন্তান জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া৷ কংগ্রেস ছাড়ার কারণ হিসেবে জ্যোতিরাদিত্য ইস্তফাপত্রে লিখেছিলেন, কংগ্রেসে থেকে তিনি দেশের সেবা করতে পারছেন না৷ বিজেপি-তে যোগ দিয়ে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া বললেন, 'প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ৷ কংগ্রেসে থেকে মানুষের জন্য কাজ করতে পারছিলাম না৷ কংগ্রেস বাস্তব মানতে পারছে না৷ আগের কংগ্রেস আর নেই৷ কংগ্রেসে নতুন প্রজন্মের গুরুত্ব নেই৷ মধ্যপ্রদেশ সরকারও কৃষকদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি পালন করতে পারছে না৷ প্রধানমন্ত্রী মোদির হাতে দেশের ভবিষ্যত্‍ সুরক্ষিত৷'  নাড্ডা বলেন, 'সিন্ধিয়া দলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেবেন৷ বিজেপি গণতান্ত্রিক দল৷'

মধ্যপ্রদেশে জ্যোতিরাদিত্যের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথের বিবাদ নতুন নয়৷ সিন্ধিয়া শিবিরের বিধায়কদের অভিযোগ, মধ্যপ্রদেশে তাঁদের কোণঠাসা করে রেখেছে কমল নাথ শিবির৷ সূত্রের খবর, মধ্যপ্রদেশে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি না করা ও কংগ্রেসের রাজ্যসভার টিকিট না-পাওয়ায় ক্ষুব্ধ হন সিন্ধিয়া৷ কংগ্রেসের যুব ব্রিগেডের অন্যতম মুখ ছিলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া৷

ও দিকে মধ্যপ্রদেশে সরকার টলমল হতেই শুরু হয়ে গিয়েছে রিসর্ট রাজনীতি৷ যদিও এখনও সরকারের মেয়াদ শেষের বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী কংগ্রেস৷ মধ্যপ্রদেশ কংগ্রেসের বিধায়ক অর্জুন সিংয়ের বক্তব্য, কমল নাথ সরকার থাকছে৷ সব বিধায়কদের নিয়ে আগামী ১৬ মার্চ বিধানসভায় থাকবেন কমল নাথ৷ সে ক্ষেত্রে জল্পনা চলছে, আগামী ১৬ মার্চই কি তা হলে আস্থা ভোট?

২২ জন বিধায়ক ইতিমধ্যেই ইস্তফা দিয়ে দিয়েছেন৷ মধ্যপ্রদেশে সরকার বাঁচাতে মরিয়া কংগ্রেস৷ শেষ কামড় হিসেবে, ঘোড়া কেনাবেচা থেকে বাঁচাতে আজ অর্থাত্‍ বুধবার ৯২ জন কংগ্রেস বিধায়ককে জয়পুরে রিসর্টে পাঠাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ৷

এখনও সরকার টিকিয়ে রাখতে আত্মবিশ্বাসী কমলনাথ৷ তাঁর কথায়, 'মেয়াদ শেষ করবে কংগ্রেস সরকার৷ যোগাযোগ রাখছেন ২২ জন বিদ্রোহী বিধায়ক৷' ঘোড়া কেনা-বেচা ঠেকাতে গুরগাঁওয়ের আইটিসি গ্র্যান্ড ভারত রিসর্টে ১০৭ জন বিধায়ককে রেখেছে বিজেপি৷ জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া ঘনিষ্ঠ ২২ জন বিধায়কই এখন বেঙ্গালুরুর রিসর্টে৷

মধ্যপ্রদেশের মন্ত্রী ও কমলনাথের ঘনিষ্ঠ বিধায়ক সজ্জন সিং ভার্মা জানিয়েছেন, আজই বেঙ্গালুরু পাড়ি দিচ্ছেন কমলনাথ৷ বিদ্রোহী বিধায়কদের বোঝানোর চেষ্টা করবেন তিনি৷ কর্নাটকের কংগ্রেস নেতা ডি কে শিবকুমারের কথায়, 'বেশির ভাগ বিধায়কই ফিরে আসবেন৷ ২২ জনের সঙ্গেই যোগাযোগ রাখা হচ্ছে৷'

ভোপালে মঙ্গলবার কংগ্রেস পরিষদীয় দলের বৈঠকের পর মুখপাত্র শোভা ওঝা জানিয়েছেন, 'জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে রাজ্যসভায় প্রার্থী করার জন্যই বেশ কয়েকজন বিধায়ককে ভুল বুঝিয়ে বেঙ্গালুরুতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷ তাঁরা কেউই জানতেন না, জ্যোতিরাদিত্য দল ছাড়ছেন৷ ওঁরা সকলেই মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন৷ আমাদের সরকার অত্যন্ত শক্তিশালী৷ আমরা আস্থাভোটেই আমাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করে দেব৷'

Published by: Arindam Gupta
First published: March 11, 2020, 3:15 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर