মারা যাওয়ার কয়েক মুহূর্ত আগে হাসপাতালের কর্মীদের কী বলেছিলেন ‘আম্মা’ ?

এখনও পর্যন্ত আম্মার মৃত্যু সংবাদ শুনে তামিলনাড়ুতে মৃত্যু হয়েছে ৭৭জনের ৷ পাশাপাশি বেশ কয়েকজন আত্মহত্যারও চেষ্টা করেছেন ৷

এখনও পর্যন্ত আম্মার মৃত্যু সংবাদ শুনে তামিলনাড়ুতে মৃত্যু হয়েছে ৭৭জনের ৷ পাশাপাশি বেশ কয়েকজন আত্মহত্যারও চেষ্টা করেছেন ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #চেন্নাই: আড়াই মাসের লড়াই শেষ হল সোমবার রাতে।  প্রয়াত তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতা। বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর। ২২ সেপ্টেম্বর চেন্নাইয়ের হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। এতোদিন ধরে যে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই চলছিল তাঁর, তাতে হার মানলেন জয় আম্মা। সোমবার রাত সাড়ে এগোরটা নাগাদ প্রয়াত হলেন জয়ললিতা। সোয়া বারোটায় তার মৃত্যু সংবাদ জানানো হয়।

    এখনও পর্যন্ত আম্মার মৃত্যু সংবাদ শুনে তামিলনাড়ুতে মৃত্যু হয়েছে ৭৭জনের ৷ পাশাপাশি বেশ কয়েকজন আত্মহত্যারও চেষ্টা করেছেন ৷ তাঁর মৃত্যুর খবরে ভেঙে পড়ে গোটা তামিলনাড়ু ৷ আম্মাকে হারিয়ে স্তব্ধ চেন্নাই ৷ জয়ললিতার প্রয়াণে শোকস্তব্ধ সমগ্র রাজনৈতিক মহলও ।

    যে সময় জয়ললিতা চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন  সেই সময় হাসপাতালের মেডিকেল টিমের কাছে অনেক কথাই বলেছেন আম্মা ৷

    টাইমস অফ ইন্ডিয়া অনুযায়ী, জয়ললিতার নার্স জানিয়েছেন,‘আম্মা সব সময় বলতেন, আপনি যা বলবেন আমি তাই করবো ৷ যখনই আমরা ওনার কাছে যেতাম উনি আমাদের দেখে খুশি হতেন ৷ উনি আমাদের সঙ্গে নিজের পরিবারের সদস্যদের মতো ব্যবহার করতেন ৷ যখন ওনাকে খাওয়ার দেওয়া হত, তখন উনি দু’টি চামচ চাইতেন ৷ একটা নিজে খাওয়ার জন্য অন্যটি আমাদের জন্য ৷

    আম্মার পছন্দের খাবার ছিল পোহা, উপমা, দই চাওয়াল ও আলুর কাড়ি ৷ ১৬ জন নার্সের টিম তিনটি সিফটে ওনার খেয়াল রাখতেন ৷

    চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, আম্মা যখন সুস্থ থাকতেন তখন উনি মেডিকেল স্টাফদের সঙ্গে অনেকক্ষণ গল্প করতেন ৷ স্কিন কেয়ার ও হেয়ার স্টাইল নিয়ে তাদের অনেকরকম টিপস দিতেন তিনি ৷

    জয়ললিতা নিজের ডাক্তারকে তাদের বাড়িতে নিমন্ত্রণও করেছিলেন কোডিনাড়ুর বিখ্যাত চা খাওয়ানোর জন্য ৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা আর হয়নি ৷ জীবনের লড়াইয়ে হার মানতে হয় আম্মাকে ৷

    First published: