corona virus btn
corona virus btn
Loading

খুন করে জেলে গিয়ে ধর্ষিত-আত্মঘাতী বোনের ধর্ষককে খুন করে প্রতিশোধ নিল দাদা!

খুন করে জেলে গিয়ে ধর্ষিত-আত্মঘাতী বোনের ধর্ষককে খুন করে প্রতিশোধ নিল দাদা!

দাদার মন থেকে প্রতিশোধের আগুন নিভল না । তার নিজেরই বন্ধু ধর্ষণ করেছিল ফুলের মতো বোনটিকে । আত্মহত্যা করেছিল সে । বোনের অসম্মানের প্রতিশোধ নিল দাদা ।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: প্রতিশোধের আগুনে দ্বগ্ধ হচ্ছিলেন দাদা । ছোট্ট বোনটাকে অনেক কষ্ট নিয়ে চলে যেতে হয়েছিল । তার নিজেরই বন্ধু ধর্ষণ করেছিল ফুলের মতো বোনটিকে । সেই কষ্ট, যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে আত্মঘাতী হয় বোন । ধর্ষক ধরা পড়ে । শাস্তি হয় । কিন্তু দাদার মনে প্রতিশোধের আগুন নেভে না । শেষ পর্যন্ত ইচ্ছাকৃত খুন করে জেলে গিয়ে, তিহার জেলের মধ্যেই নিজের ধর্ষিতা বোনের ধর্ষককে কুপিয়ে খুন করল দাদা! এই ঘটনায় তাজ্জব জেলের রক্ষী থেকে সমস্ত কর্মীরা । খুনের পর ২১ বছরের জাকিরকে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই খুনের নেপথ্যের আসল অভিসন্ধি বেরিয়ে আসে । জানা গিয়েছে, ৬ বছর আগে এক কিশোরীকে ধর্ষণ করার ঘটনায় জেল হয় মহম্মদ মেহতাব নামের এক তরুণের। মেহতাবের বাড়ি ছিল দিল্লির নিজামুদ্দিন এলাকায়। জাকিরের বাড়ি দক্ষিণপুরীতে। দুই পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিনের পরিচয় ছিল, যাতায়াতও ছিল । কিন্তু ২০১৪ সালে জাকিরের কিশোরী বোনকে ধর্ষণ করে মোহতাব । রাগে, কষ্টে, অপমানে আত্মঘাতী হয় জাকিরের বোন ।

এই ঘটনার পর মেহতাবের ঠিকানা হয় তিহাড় জেল । অন্যদিকে, জাকির মনে মনে প্রতিশোধ নিতে প্রস্তুত । ২০১৮ সালে এক ব্যক্তিকে খুন করে জেলে যায় জাকিরও । কিন্তু প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়ায় তাকে তিহাড় জেলের অন্য বিভাগে রাখা হয় । ২১ বছর হওয়ার পর তাকে রাখা হয় ৫ নং বিভাগে । মেহতাব থাকে ৮ নং ওয়ার্ডে । ইচ্ছা করে ৫ নং ওয়ার্ডের বন্দিদের সঙ্গে ঝামেলা বাঁধিয়ে, জেল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করে ৮নং সেলে চলে আসে জাকির ।

সোমবার সকালে মেহতাবকে একা পেয়ে জেলের কুঠুরির মধ্যেই একটি ধাতব পাত দিয়ে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে দেয় মেহতাবের দেহ । চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে মেহতাবকে মৃত ঘোষণা করেন । জাকিরকে এরপর জিজ্ঞাসাবাদ করায় আসল ঘটনা জানা যায় ।

Published by: Simli Raha
First published: July 2, 2020, 5:46 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर