দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনার মধ্যেই রহস্যজনক অসুখে অন্ধ্রে মৃত ১, আক্রান্ত ৫০০, অসুখের কারণ জেনে বাড়ল উদ্বেগ

করোনার মধ্যেই রহস্যজনক অসুখে অন্ধ্রে মৃত ১, আক্রান্ত ৫০০, অসুখের কারণ জেনে বাড়ল উদ্বেগ

গত শনিবার থেকে অন্ধ্রপ্রদেশের এলুরু শহরে দেখা গিয়েছে এই রোগের প্রভাব। এই রোগে আক্রান্ত সকলের ক্ষেত্রে উপসর্গ ছিল একই, হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে যাওয়া এবং বমি বমি ভাব।

  • Share this:

#হায়দরাবাদ: অন্ধ্রপ্রদেশে হঠাৎই দেখা দিয়েছে এক রহস্যজনক রোগ, যার প্রভাবে ১ জন মৃত এবং ৫০০ জন অসুস্থ হয়েছেন। প্রাথমিক ভাবে বোঝা গিয়েছে, পানীয় জ্ল এবং দুধে সীসা এবং নিকেলের উপস্থিতিই এর কারণ। প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর, এইমস-এর বিশেষজ্ঞদের দল এবং রাজ্য ও কেন্দ্রের অন্যান্য ইন্সটিটিউশনের তরফ থেকে মঙ্গলবার মুখ্যমন্ত্রী ওয়াই এস জগন মোহন রেড্ডি’র কাছে একটি রিপোর্ট পেশ করা হয়।

সরকারি তরফে একটি প্রেস রিলিজ বের করে বলা হয়েছে যে, বিজ্ঞানীদের মতে, পানীয় জলে সীসা এবং নিকেলের মতো ধাতুর উপস্থিতিই এই রহস্যজনক অসুস্থতার কারণ। গত শনিবার থেকে অন্ধ্রপ্রদেশের এলুরু শহরে দেখা গিয়েছে এই রোগের প্রভাব। এই রোগে আক্রান্ত সকলের ক্ষেত্রে উপসর্গ ছিল একই, হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে যাওয়া এবং বমি বমি ভাব। সরকারি হাসপাতালের ডাক্তারদের মতে, এই রোগের মিল রয়েছে মৃগী রোগের সঙ্গে। মৃগী রোগের উপসর্গগুলি হল, অল্প সময়ের জন্য স্মৃতি ভ্রংশ, বমি, মানসিক উদ্বেগ, মাথা ব্যাথা এবং কোমরে ব্যাথা।

প্রেস রিলিজে আরও বলা হয়েছে যে, “ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ কেমিক্যাল টেকনোলজি এবং অন্যান্য ইন্সটিটিউশনগুলি এবিষয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাচ্ছেন, যার রিপোর্ট মিলবে খুব তাড়াতাড়ি। অসুস্থদের শরীরে ধাতুর উপস্থিতি সম্পর্কে ভালো করে তদন্ত করতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী এবং পাশাপাশি তাঁদের চিকিৎসার দিকেও নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।”

স্বাস্থ্য দফতরের মতে, এখন পর্যন্ত রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০৫, যার মধ্যে ৩৭০ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। অন্য ১২০ জনের চিকিৎসা চলছে। এছাড়াও ১৯ জনকে আরও ভাল চিকিৎসা পরিষেবার জন্য পাঠানো হয়েছে বিজয়ওয়ারা ও গুন্টুরে। অন্যদিকে ওয়ার্ল্ড হেলথ অরগ্যানাইজেশনের একটি বিশেষজ্ঞের দলও বিষয়টি নিয়ে খতিয়ে দেখছেন। শুধু তাই নয়, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য দফতর থেকে একটি টিমও নমুনা সংগ্রহ করতে মঙ্গলবার পৌঁছে গিয়েছে এলুরুতে।

Antara Dey

Published by: Elina Datta
First published: December 8, 2020, 9:22 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर