• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • ৪ বছর ধরে 'ঠিক হ্যায়' আশ্বাস, বিশ্বাসভঙ্গের অভিযোগে বিদেশমন্ত্রকের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ নিহতদের পরিবার

৪ বছর ধরে 'ঠিক হ্যায়' আশ্বাস, বিশ্বাসভঙ্গের অভিযোগে বিদেশমন্ত্রকের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ নিহতদের পরিবার

Family members of one of the 39 Indian workers feared killed in Iraq, grieve at their home on the outskirts of Amritsar on Tuesday.

Family members of one of the 39 Indian workers feared killed in Iraq, grieve at their home on the outskirts of Amritsar on Tuesday.

চার বছর ধরে ভাঙা রেকর্ডের মতো তাঁরা শুনে আসছেন সব ঠিক হ্যায়। ইরাকের মসুলে বন্দি ৩৯ জন ভারতীয় ভালই আছেন।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: চার বছর ধরে ভাঙা রেকর্ডের মতো তাঁরা শুনে আসছেন সব ঠিক হ্যায়। ইরাকের মসুলে বন্দি ৩৯ জন ভারতীয় ভালই আছেন। বিদেশমন্ত্রকের এমন আশ্বাসে ভরসা রেখেছিলেন। মসুলের বদুসে গণকবরে সব আশা শেষ। মঙ্গলবার এল সেই খবর। চরম পরিণতিই হয়েছে কাছের মানুষদের। দুঃখ বদলে গেছে ক্ষোভে। বিশ্বাসভঙ্গের অভিযোগ উঠেছে বিদেশমন্ত্রকের বিরুদ্ধে।

    সুষমা স্বরাজের আমলে বিদেশমন্ত্রক এতদিন জটিল সব সমস্যার চটজলদি সমাধান করেছে। অথচ ইরাকে ভারতীয়দের গণহত্যায় এখন কাঠগড়ায় সেই বিদেশমন্ত্রক। ইরাকের মসুলে আইএসের হাতে খুন হওয়া ৩৯ জনের পরিবার গোটা ঘটনায় ক্ষুব্ধ। গত চার বছর ধরে দুশ্চিন্তা থাকলেও, মিরাকলের আশায় বুক বেঁধেছিলেন। কেন্দ্রের টানা আশ্বাস তাতে ভরসা যুগিয়েছিল। বিশ্বাসটা টলল মঙ্গলবারের সকালে। সংসদ থেকে এল সেই দুঃসংবাদ। টিভিতে খবর শুনে নিজের কানেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না পরিজনরা।

    ইরাকে নিহত ৩৯ জন ভারতীয়র মধ্যে পঞ্জাবেরই ২৭ জন। জলন্ধর, অমৃতসর, ভাতিন্ডার মহল্লায় এখন কান্নার রোল। জলন্ধরের সুরজিৎ মৈনাক পেশায় কাঠ মিস্ত্রি। আড়াই লাখ টাকা দিয়ে মসুল গিয়েছিলেন সুরজিৎ। সংসারে স্বাচ্ছন্দ্য ফেরানো আর হল না।

    এরপরেও সরকারের প্রতি বিশ্বাস? হা হুতাশ যাচ্ছে না মনজিত কউরের। তাঁর স্বামী দাবিন্দর ২০১১ সালে ইরাক যান। আচমকাই বন্ধ হয়ে যায় সব যোগাযোগ। তবু সরকারের তরফে শুনে এসেছেন আশ্বাস। এরপর আর কাকে বিশ্বাস করবেন?

    সংসদে দাঁড়িয়ে সুষমা স্বরাজের ঘোষণা, ভারত প্রথম কোনও দেশ যারা ইরাক থেকে এতগুলো মরদেহ ফেরাতে পারছে। হয়তো কথাটা ঠিক। কিন্তু বিদেশমন্ত্রীর এই ঘোষণায় লুকনো অহংয়ের নীচে কত কান্না জমে, তা কি বুঝবে সাউথ ব্লক?

    First published: