জামিয়া ও আলিগড়ে পুলিশের প্রবেশ- বাংলা থেকে গুজরাট, উত্তরপ্রদেশ থেকে কেরল ক্ষোভ উগড়ে দিলেন মানুষ

জামিয়া ও আলিগড়ে পুলিশের প্রবেশ- বাংলা থেকে গুজরাট, উত্তরপ্রদেশ থেকে কেরল ক্ষোভ উগড়ে দিলেন মানুষ
Photo- PTI

জামিয়া ও আলিগড়ে পুলিশ প্রবেশ ঘিরে ক্ষোভের আগুন সারা দেশে

  • Share this:

#নয়াদিল্লি : নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সারা দেশেই ক্ষোভের আগুন জ্বলছিল ৷ এরমধ্যে জামিয়ামিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশের প্রবেশ ও লাঠিচার্জের ঘটনার পরেই সারাদেশের ছাত্র-ছাত্রীরা নিজেদের সবমর্মিতা প্রকাশ করে ৷ রবিবার জামিয়া ক্যাম্পাস কার্যত রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছিল ৷ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জোর করে ঢুকে যায় পুলিশ ৷ ফলে উত্তাল প্রতিবাদে মুখরিত হয়েছিল দিল্লির ঐতিহ্যশালী এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৷

এরপরেই দেশের বিভিন্ন ঐতিহ্যশালী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরাও প্রতিবাদে মুখর হয়ে ওঠেন ৷

কলকাতা

------------------

যাদবপুর ও প্রেসিডেন্সির ছাত্র-ছাত্রীর প্ল্যাকার্ড হাতে প্রতিবাদ মিছিল করেন ৷ নাগরিকত্ব আইন ও জামিয়া ক্যাম্পাসে পুলিশি অত্যাচারের প্রতিবাদে ছিল এই মিছিল ৷ যাদবপুরের ছাত্র সংগঠনের পক্ষ থেকে সাধারণ সম্পাদক দেবরাজ দেবনাথ  জানিয়েছেন যে  বিজেপি ও  দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে ছিল এই মিছিল ৷

পুণে

-----------

সাবিত্রীবাই ফুলে পুণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যম্পাসে ৩০০ -র বেশি ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিবাদ করেন৷  ন্যাশানাল স্টুডেন্টস ইউনিয়ন এফ ইন্ডিয়া, স্টুডেন্টস ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া, যুবক ক্রান্তি দল সকলের পক্ষ থেকেই ছাত্র-ছাত্রীরা বিক্ষোভে সামিল হয়েছিলেন ৷

মধ্যপ্রদেশ,গুজরাট, মহারাষ্ট্র

-----------------------------------------

মধ্য ও পশ্চিম ভারতের কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা বিক্ষোভে সামিল হন ৷ নাগরিকত্ব আইন ও জামিয়ায় পুলিশ ঢোকার প্রতিবাদে মুখর হন তাঁরা ৷ মুম্বইয়ের টাটা ইন্সটিউট অফ সোশ্যাল সায়েন্স ও আউরঙ্গবাদ ডক্টর বাবাসাহেব আম্বেদকর মারাঠওয়াডা বিশ্ববিদ্যালয় সাবিত্রীবাই ফুলে পুণে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্টরা জামিয়া ও আলিগড়ের ঘটনার তীব্র নিন্দা করেন ৷ আহমেদাবাদে ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ ম্যানেজমেন্টের বাইরে বহু মানুষ জমায়েত বন ৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ মোতায়েন করতে হয় ৷ প্রায় ৫০ জনকে তুলে নেয় পুলিশ যার মধ্যে সোশ্যাল গ্রুপ অ্যাকটিভিস্ট, আইআইএমএ- ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক , আরও অন্য শিক্ষালয়ের ছাত্ররাও রয়েছেন ৷

বিজেপি শাসিত সরকার ও সিএএ-র বিরুদ্ধে গর্জে ওঠেন মুম্বইয়ের শত শত ছাত্র-ছাত্রী ৷ মুম্বই বিশ্ববিদ্যালয় ও টাটা ইন্সটিটিউটের ছাত্র-ছাত্রীরা ছিলেন বড় সংখ্যায় ৷

উত্তরপ্রদেশ

-------------------

উত্তরপ্রদেশে পুলিশের দিকে পাথ ছোঁড়ে ছাত্রদের একটা বড় অংশ ৷ ঘটনাটি ঘটে লখনউয়ের ইসলামিক সেমিনারির বাইরে ৷ আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয় রুদ্ধ করে দেওয়া হলেও বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিবাদ মিছিল করে ৷

পঞ্জাব

----------------

চণ্ডীগড়ে পঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিবাদে সামিল হয় ৷ এরা নিজেরা বিবৃতিও জারি করেছে ৷

কেরল

------------

DYFI -র পক্ষ থেকে এবং শাসক দল CPIM -র যুব সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ সংগঠিত হয় ৷ ভেলানকানি এরনাকুলাম এক্সপ্রেস থিরুভালা রেলওয়ে স্টেশনে ১৩ মিনিট প্রতীকি আটকে রাখা হয় ৷ আইল্যান্ড এক্সপ্রেস কোল্লাম স্টেশনে আটকে রাখা হয় ৷

কর্ণাটক

-------------

প্রতিবাদ হয়েছে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ৷ শিবমোগা,বল্লারি, মাইসুরু বেঙ্গালুরুতে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে ৷ শয়ে শয়ে মানুষ এদিন রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেন ৷

80588462_438851820349919_4597880224011517952_n

 আসলে ঘটনা তীব্র আকার নেয় যখন রবিবার জামিয়ামিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশের প্রবেশ ঘটে তখন থেকে ৷ আহত হন বহু পড়ুয়ারা ৷ আটক করা হয় ১০০-ওরও বেশি পড়ুয়াদের ৷ জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিবাদের রেশ আছড়ে পড়ল আলিগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটিতে৷ নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে শুরু হয় প্রতিবাদ৷ শয়ে-শয়ে পড়ুয়ারা সামিল হন এই প্রতিবাদ বিক্ষোভে৷ তবে পুলিশের লাঠি চার্জ এবং টিয়ার গ্যাস ছোঁড়ায় পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হয়ে৷ জামিয়ার প্রতিবাদের কথা শুনেই বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা৷ সকলে মিলে জমায়াত করেন বাবে স্যার সায়েদ গেটে এবং স্লোগান দিতে শুরু করেন৷ দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে শুরু হয় তাদের প্রতিবাদ৷ এরপরই পুলিশের ব্যাডিকেড ভাঙতে শুরু করেন পড়ুয়ারা৷ ক্যাম্পাসের প্রতিটি গেট আটকায় পুলিশ৷ পরিস্থিতি সামলাতে লাঠি চালায় পুলিশ৷ সঙ্গে কাঁদানে গ্যাসও ছোঁড়া হয়৷ এতেই পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে ওঠে৷

ক্যাম্পাসে ঢুকে ছাত্র বিক্ষোভ হটাতে গিয়ে তোপের মুখে দিল্লি পুলিশ। জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার ঘটনায় দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে পাল্টা এফআইআরের হুমকি। পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়িয়ে ঘটনার উচ্চপর্যায়ের তদন্তের দাবি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নাজমা আখতার। অভিযোগ উড়িয়ে পডুয়াদের বিরুদ্ধে দুটি ধারায় মামলা করেছে পুলিশ। এই পরিস্থিতিতে কাল শুনানির আগে হিংসা বন্ধের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের।

আরও দেখুন

First published: 12:53:20 PM Dec 17, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर