Arvind Kejriwal: কোভিডে মা-বাবা দুজনকেই হারিয়েছে! এমন শিশুদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিল কেজরিওয়াল সরকার

Arvind kejriwal- photo courtesy/pti

কোভিড ১৯ কেড়ে নিয়েছে মা ও বাবা দুজনেরই প্রাণ। এমন শিশুদের বিনামূল্যে শিক্ষা প্রদান করার ঘোষণা করলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল (Arvind Kejriwal)।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: দ্বিতীয় ঢেউতে করোনার (Second wave corona) ভয়াবহ রূপ দেখেছে গোটা ভারতের মানুষ। সারা দেশজুড়ে ভাইরাসের জন্য হাহাকার পড়ে গিয়েছে। এই মহামারীতে (Pandemic) বহু শিশু অনাথ হয়েছে। কোভিড ১৯ কেড়ে নিয়েছে মা ও বাবা দুজনেরই প্রাণ। এমন শিশুদের বিনামূল্যে শিক্ষা প্রদান করার ঘোষণা করলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল (Arvind Kejriwal)। শুধু শিশুদের নয়। করোনার জন্য বহু অসহায় নাগরিককে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন তিনি। বিশেষ করে যে সমস্ত প্রবীণ নাগরিকরা পরিবারের উপার্জনকারী সদস্যকে হারিয়েছেন তাদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে বলে শুক্রবার ঘোষণা করল দিল্লি সরকার।

    একটি ডিজিটাল সাংবাদিক বৈঠকে কেজরিওয়াল জানান, দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজারের নীচে নেমে এসেছে। পজিটিভিটির হার ১২ শতাংশে নেমেছে। কেজরিওয়াল বলছেন, বিগত ১০ দিনে হাসপাতালে ৩০০০ বেড খালি হয়েছে। তবে আইসিইউ বেড ভর্তি রয়েছে এখনও। তবে যে রোগীদের অবস্থা গুরুতর তারা যাতে ঠিকমতো চিকিৎসা পান তাই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন ১২০০ আইসিইউ বেড রয়েছে।

    তিনি বলছেন, "বিগত কয়েক দিনে বহু চেষ্টার পরেও আমরা দিল্লির বহু নাগরিক কে বাঁচাতে পারিনি। বহু পরিবার একজনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এমন বহু শিশু আছে যারা বাবা ও মা দুজনকেই হারিয়েছে। আমি আছি। ওই শিশুদের পড়াশোনা ও বড় হয়ে ওঠার দায়িত্ব দিল্লি সরকার নেবে। এছাড়াও বহু প্রবীণ নাগরিক রয়েছেন যাঁরা তাঁদের উপার্জনকারী সন্তানদের হারিয়েছেন। চিন্তা করবেন না। আপনাদের ছেলে এখনও জীবিত আছেন। যে সমস্ত পরিবার তাদের উপার্জনকারী সদস্যদের হারিয়েছে, তাদের আর্থিক সহায়তা দেবে দিল্লি সরকার।"

    এছাড়াও কেজরিওয়াল ইঙ্গিত দেন যে দিল্লির লকডাউন আরও ১ সপ্তাহ বাড়ানো হতে পারে। চলতি লকডাউনটি সোমবার ভোর ৫টা অবধি চলার কথা। তিনি বলছেন, "আজকেও ৮৫০০ নতুন করোনা কেস এসেছে। আমাদের এটা ০-তে নামিয়ে আনতে হবে আর আমরা এই কড়া সতর্কতা আলগা করতে পারব না। আমরা আলগা হলেই আবার সংক্রমণ বাড়বে। তাই আমাদের এই লকডাউন মেনে চলতেই হবে।"

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: