Home /News /national /
দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষায় ভাল ফল, বিকাশ দুবের দলে ভিড়েই প্রাণ গেল প্রভাতের

দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষায় ভাল ফল, বিকাশ দুবের দলে ভিড়েই প্রাণ গেল প্রভাতের

নিহত প্রভাত মিশ্র৷

নিহত প্রভাত মিশ্র৷

  • Share this:

    #কানপুর: সম্প্রতি উত্তর প্রদেশ বোর্ডের দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষায় ৬১ শতাংশ নম্বর পেয়ে পাশ করেছিল সে৷ এ হেন প্রভাত মিশ্র ওরফে কার্তিকেকেই পুলিশের সঙ্গে এনকাউন্টারে মরতে হয়েছে৷ অভিযোগ, বিকাশ দুবের ঘনিষ্ঠ সহযোগী এই তরুণ আট পুলিশকর্মীর হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত৷

    পুলিশের দাবি অনুযায়ী প্রভাতের বয়স ১৯ বছর হলেও নিহতের মায়ের দাবি অনুযায়ী, তাঁর ছেলের বয়স ১৬৷ সন্তানহারা ওই মায়ের অভিযোগ অনুযায়ী তাঁর নাবালক ছেলেকেই গুলি করে মেরেছে পুলিশ৷

    গত ২৯ জুন দ্বাদশ শ্রেণির বোর্ড পরীক্ষায় পাশ করে প্রভাত৷ এর ঠিক দশ দিন পরেই পুলিশের সঙ্গে এনকাউন্টারে মৃত্যু হয় তার৷ প্রভাতের দশম শ্রেণির মার্কশিট এবং আধার কার্ড অনুযায়ী, তাঁর জন্মতারিখ ২০০৪ সালের ২৭ মে৷ অর্থাৎ তার বয়স এখন ১৬ বছর৷

    কানপুরের চৌবেপুরের বিকরু গ্রামেই থাকত প্রভাত৷ এই গ্রামেরই বাসিন্দা ছিল বিকাশ দুবেও৷ বিকাশকে ধরার জন্য কিছুদিন আগে এই বিকরু গ্রামেই হানা দিয়েছিল পুলিশ৷ তখনই পুলিশের উপরে হামলা চালায় বিকাশের দলবল৷ মৃত্যু হয় আট পুলিশকর্মীর৷

    এই ঘটনার পরই গ্রাম ছেড়ে পালায় প্রভাত৷ যদিও তাঁর মায়ের দাবি অনুযায়ী তিনিই ছেলেকে কয়েকদিন অন্যত্র গিয়ে থাকার পরামর্শ দিয়েছিলেন৷ গত ৮ জুলাই হরিয়ানার ফরিদাবাদ থেকে প্রভাতকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ তার কাছ থেকে বিকরু শ্যুটআউটে ব্যবহৃত পিস্তলও উদ্ধার হয় বলে দাবি পুলিশের৷ ৯ জুলাই তাকে উত্তর প্রদেশ নিয়ে আসা হচ্ছিল৷ পুলিশের দাবি অনুযায়ী, মাঝপথে পুলিশের গাড়ির চাকা লিক হয়ে যায়৷ সেই সুযোগে এক পুলিশকর্মীর বন্দুক ছিনিয়ে নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে প্রভাত৷ তখনই পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয় তার৷

    প্রভাতের মা গীতাদেবীর দাবি অনুযায়ী, তাঁদের বাড়ির ছাদ ব্যবহার করে কয়েকজন দুষ্কৃতী পুলিশকর্মীদের উপরে হামলা চালিয়েছিল৷ এর সঙ্গে প্রভাত যুক্ত ছিল না৷ তাঁর আরও দাবি, প্রভাত বায়ুসেনায় যোগ দেওয়ার স্বপ্ন দেখত৷ গীতাদেবীর প্রশ্ন, যে ছেলে পরীক্ষায় ভাল নম্বর পেয়ে পাশ করে, সে কেন বিকাশের দলের হয়ে কাজ করতে যাবে? প্রসঙ্গত, দশম শ্রেণির পরীক্ষাতেও ৭৮ শতাংশ নম্বর পেয়েছিল প্রভাত৷

    যদিও গীতাদেবীর দাবি মানতে নারাজ পুলিশ৷ তাদের দাবি, গ্রেফতারের পর প্রভাত স্বীকার করেছিল, বিকরু গ্রামে এনকাউন্টারের পর মৃত দুই পুলিশকর্মীর পিস্তল এবং গুলি নিয়ে বিকাশ দুবের সঙ্গে গা ঢাকা দিয়েছিল সে৷ প্রভাতের সঙ্গে আরও দুই দুষ্কৃতীকেও গ্রেফতার করা হয়৷ উত্তর প্রদেশ পুলিশের দাবি অনুযায়ী, হরিয়ানার পুলিশই তাদের জানিয়েছিল যে প্রভাতের বয়স ১৯ বছর৷

    প্রভাতের মৃত্যুর পর পরই কানপুরের ডন বিকাশ দুবেরও অনেকটা একই কায়দায় পুলিশের সঙ্গে এনকাউন্টারে মৃত্যু হয়৷ পুলিশের দাবি, প্রভাতের মতো অনেক কমবয়সিকেই নিজের দলে টেনে কার্যত জঙ্গি কায়দায় তৈরি করেছিল বিকাশ দুবে৷

    প্রভাতের পরিবারের এখন আশঙ্কা, এর পর তার বাবাকেও গ্রেফতার করতে পারে পুলিশ৷ শুধু তাই নয়, হয়রানির আশঙ্কায় প্রভাতের দিদিকেও অন্যত্র রেখে এসেছে তার পরিবার৷ প্রভাত এবং তার দিদির সমস্ত সরকারি নথিও অন্য জায়গায় সরিয়ে রেখেছেন গীতাদেবী৷ তাঁর আশঙ্কা, পুলিশ সেগুলি নষ্ট করে দিতে পারে৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    Tags: Uttar Pradesh, Vikas Dubey, Vikas Dubey Encounter

    পরবর্তী খবর