করোনায় মৃত্যুমিছিল! কবর দেওয়ার জায়গা নেই, বাধ্য হয়েই দেহ দাহ করার নিদান দিলেন আহমেদাবাদের বিশপ

করোনায় মৃত্যুমিছিল! কবর দেওয়ার জায়গা নেই, বাধ্য হয়েই দেহ দাহ করার নিদান দিলেন আহমেদাবাদের বিশপ

হাসপাতালে বেড নেই, মর্গে জায়গা নেই, খোলা চত্বরে রোদের মধ্যে পড়ে থাকছে করোনায় মৃতের দেহ! পরিস্থিতি এতটাই করুণ যে, অন্ত্যেষ্টিস্থলেও আর জায়গা বেঁচে নেই

হাসপাতালে বেড নেই, মর্গে জায়গা নেই, খোলা চত্বরে রোদের মধ্যে পড়ে থাকছে করোনায় মৃতের দেহ! পরিস্থিতি এতটাই করুণ যে, অন্ত্যেষ্টিস্থলেও আর জায়গা বেঁচে নেই

  • Share this:

    #আহমেদাবাদ: দেশজুড়ে ফের একবার ভয়াবহ আকার নিয়েছে করোনা! করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় ইতিমধভেই বেশামাল গোটা দেশ! প্রতিনিয়ত বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যও! হাসপাতালে বেড নেই, মর্গে জায়গা নেই, খোলা চত্বরে রোদের মধ্যে পড়ে থাকছে করোনায় মৃতের দেহ! পরিস্থিতি এতটাই করুণ যে, অন্ত্যেষ্টিস্থলেও আর জায়গা বেঁচে নেই । এই পরিস্থিতিতে করোনাভাইরাস সংক্রমণে মৃতদের সৎকারের জন্য কবর দেওয়ার পরিবর্তে দেহ দাহ করার প্রস্তাব দিয়েছেন গুজরাতের আহমেদাবাদের ক্যাথলিক বিশপ। একই আবেদন জানিয়েছেন পার্সি সম্প্রদায়ের ধর্মগুরু। এই দুই ধর্মেই সৎকারের পন্থা হিসেবে দাহ করার নিয়ম নেই, কিন্তু এই নিদারুণ পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে ধর্মীয় আচারের গণ্ডি পেরতে প্রস্তুত দুই সম্প্রদায়-ই।

    আহমেদাবাদের ক্যাথলিক বিশপ অ্যাথানাসিয়াস রেথনা স্বামী ১২ এপ্রিল নগর প্রশাসনকে জানিয়েছেন, কবর দেওয়ার পরিবর্তে যদি করোনায় মৃতদের দেহ দাহ করার বিষয়ে তাঁর সম্মতি রয়েছে। এই নতুন ব্যবস্থা মেনে নেওয়ার জন্য শহরের ক্যাথলিক সমাজের কাছে বার্তাও দিয়েছেন তিনি। তিনি চিঠিতে লেখেন, '' পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে পূর্ণ সম্মানের সঙ্গে মৃতদের সৎকার আমাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ। কবরস্থানে জায়গা নেই। এই মহামারী পরিস্থিতিতে দেহ দাহ করলে মৃতদের আত্মার শান্তি কোনওভাবেই বিঘ্নিত হবে না বলেই চার্চ মনে করে।''

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published: