দেশ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

'এই ধরনের মেয়েদের খেতের ধারেই পাওয়া যায়', হাতরাস কাণ্ডে মন্তব্য বিজেপি নেতার

'এই ধরনের মেয়েদের খেতের ধারেই পাওয়া যায়', হাতরাস কাণ্ডে মন্তব্য বিজেপি নেতার
বিজেপি নেতা রঞ্জিত বাহাদুর শ্রীবাস্তব।

কে এই বিজেপি নেতা? নাম রঞ্জিত বাহাদুর শ্রীবাস্তব। ৪৪টি অপরাধের মামলা চলছে তাঁর নামে।

  • Share this:

#লখনউ: গোটা দেশ চায় হাতরাস কাণ্ডে ন্যায়বিচার হোক। সুবিচার পাক নির্যাতিতা তথা মৃত তরুণীর পরিবার। কিন্তু রাজনৈতি নেতারা প্রমাণ করেই চলেছেন এদেশে লিঙ্গসাম্য, সংবেদনশীলতা অধরাই থেকে যাবে।

এবার উত্তরপ্রদেশের বাড়বাঁকি অঞ্চলের এক বিজেপি নেতার দাবি, হাতরস কাণ্ডের চার অভিযুক্ত ধর্ষক নাকি নির্দোষ। এবং সমস্ত দোষই নির্যাতিতার, বয়ান তাঁর।

কে এই বিজেপি নেতা? নাম রঞ্জিত বাহাদুর শ্রীবাস্তব। ৪৪টি অপরাধের মামলা চলছে তাঁর নামে। তিনি মনে করছেন হাতরাস কাণ্ডের মূল পাণ্ডাদের সঙ্গে 'সম্পর্ক ছিল নির্যাতিতার।'

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে এই বিজেপি নেতাকে বলতে শোনা যায়, "নিশ্চয়ই ওদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল ওই মেয়েটির। ওই ওদের মাঠে ডেকে নেয়।" সোশ্যাল মিডিয়ায় এই খবর ছড়াচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি।

এখানেও থামেননি তিনি। তাঁর সংযোজন, "এমন মেয়েদের মৃতই পাওয়া যায়। কখনও আখের খেতে, কখনও ভুট্টার কেতে এদের মৃতদেহই মেলে। কেন কখনও ধান বা গমের খেতে এদের দেহ পাওয়া যায় না?" বিজেপি নেতা সগর্বে বলছেন এটি সম্মান রক্ষার্থে খুন বা অনার কিলিং।

তাঁর যুক্তি, অভিযুক্তদের অবিলম্বে নিষ্কৃতি দিতে হবে। তিনি বলেন, "আমি গ্যারেন্টি দিয়ে বলছি ওরা নির্দোষ। সময় মতো ছাড়া না পেলে ওরা মানসিক নির্যাতনের স্বীকার হবে। সরকার তখন ওদের ক্ষতিপূরণ দেবে তো?"

শ্রীবাস্তবের কথাবার্তা এখন নেটদুনিয়ায় ভাইরাল। মহিলা কমিশনের চেয়ারম্যান রেখা শর্মা বলেন, উনি কোনও দলের প্রধান পরিগণিত হওয়ার যোগ্য নন। অসুস্থ মানসিকতার নিদর্শন উনি। ওঁকে অবিলম্বে নোটিস পাঠানো হবে।"

প্রসঙ্গত মঙ্গলবারই হাতরাস কাণ্ডকে ভয়ঙ্কর ও মর্মান্তিক বলে আখ্যা দিয়েছেও সুপ্রিম কোর্ট। সাক্ষীদের ও মৃতার পরিবারের জন্য নিরাপত্তার কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা আট অক্টোবরের মধ্যে উত্তরপ্রদেশ সরকারকে জানাতে বলেছেন বিচারপতিরা। প্রধান বিচারপতি শরদ অরবিন্দ বোবদে বলেন, আমরা কোনও ভাবেই হাতরাসের ঘটনা থেকে নজর ঘোরাচ্ছি না।

Published by: Arka Deb
First published: October 7, 2020, 9:30 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर