দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

সাবধান! WhatsApp-এ পার্ট টাইম ওয়ার্ক ফ্রম হোমের ফাঁদে পা দিলেই ডেকে আনবেন বিপদ !

সাবধান! WhatsApp-এ পার্ট টাইম ওয়ার্ক ফ্রম হোমের ফাঁদে পা দিলেই ডেকে আনবেন বিপদ !

বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছেন যে এই রকম কোনও মেসেজ (Messege) এলে সেগুলো এড়িয়ে যাওয়াই ভালো, কারণ এই দুনিয়ায় কোনও কিছুই বিনামূল্যে পাওয়া যায় না!

  • Share this:

#নয়া দিল্লি: ইমেল (Email) বা এসএমএসের (SMS) মাধ্যমে চাকরি বা বিনামূল্যে কোনও কিছু দেওয়ার নামে প্রতারণা করা অনেক পুরনো হয়ে গিয়েছে। এ বার WhatsApp আর Telegram-এর মতো মাধ্যমকেও ঠগবাজরা তাদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। সরাসরি মেসেজের মাধ্যমে কখনও বিনামূল্যে বাড়িতে ব্যবহারের জিনিসপত্র দেওয়া হচ্ছে, কখনও কোনও কিছু কেনার পরিবর্তে দেওয়া হচ্ছে মোটা টাকার পেব্যাক অফার! বিভিন্ন স্কিমে টাকা খাটিয়ে দ্বিগুণ টাকা রোজগারের লোভ দেখানোও হচ্ছে। এক সাম্প্রতিক তদন্তে উঠে এসেছে এমনই কিছু তথ্য। একটি WhatsApp মেসেজে লেখা ছিল যে- বাড়িতে বসে কাজ করে প্রতি দিন ৫,০০০ টাকা রোজগার করুন! সাধারণত এইসব মেসেজের সঙ্গে একটি সন্দেহজনক লিঙ্ক থাকে। সেই লিঙ্কে ক্লিক করলেই এটিএম(ATM) পিন সহ অন্যান্য অর্থনৈতিক তথ্য চাওয়া হয়।

যেহেতু করোনাভাইরাসের (Coronavirus) সংক্রমণের জন্য লকডাউন (Lockdown) করা হয়েছিল, সেই সময়ে বহু মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। তাই এই জাতীয় ভুয়ো চাকরির ফাঁদে অনেকেই পা দিয়েছেন। এতে চাকরি তো তাঁদের ভাগ্যে জোটেইনি, উল্টে অ্যাকাউন্ট থেকে বহু টাকা বেরিয়ে গিয়েছে। ভারত ও SAARC এর চেক পয়েন্ট সফটওয়্যার টেকনোলজির ম্যানেজিং ডিরেক্টর সুন্দর এন বালসুব্রমনিয়ম বলেছেন যে প্রতারকরা তাদের লোক ঠকানোর পদ্ধতি প্রতি দিন পাল্টে ফেলে। করোনাকালে (Covid 19) এই জাতীয় সাইবার ক্রাইমের (Cyber Crime) ঘটনা অনেক বেড়ে গিয়েছে। এই জাতীয় সরাসরি বার্তা যেখানে দেওয়া হয় সেখানে একটি লিঙ্ক থাকে। এই লিঙ্ক আসলে একটি নকল অ্যাকাউন্টে লগ ইন করার লিঙ্ক। এখানে ক্লিক করে কোনও তথ্য দিলেই আর্থিক তছরুপের আশঙ্কা থেকে যায়।

তা ছাড়া ওই লিঙ্কে ক্লিক করলে একটি ম্যালওয়্যার (Malware) ব্যবহারকারীর স্মার্টফোনে (Smartphone) ডাউনলোড হয়ে যায়। এতে স্মার্টফোন থেকে অনেক জরুরি তথ্য প্রতারকদের কাছে চলে যায়। এই তথ্যের মধ্যেই বেশিরভাগই ব্যাঙ্কের সঙ্গে সম্বন্ধিত তথ্য। এতে অন্যের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা হাতিয়ে নেওয়া অনেক সহজ হয়। যে সব বার্তায় কোনও অ্যাকাউন্ট লিঙ্ক থাকে না, সেখানে থাকে নকল বা ভুয়ো ওয়েবসাইটের ঠিকানা। সেখানে যে সব তথ্য দেওয়া হয় সেগুলো অবৈধ ভাবে ব্যবহার করা হয়।

বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছেন যে এই রকম কোনও মেসেজ (Messege) এলে সেগুলো এড়িয়ে যাওয়াই ভালো, কারণ এই দুনিয়ায় কোনও কিছুই বিনামূল্যে পাওয়া যায় না!

Published by: Piya Banerjee
First published: December 17, 2020, 4:06 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर