liveLIVE NOW

LIVE: রাবণ দহন দেখতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে মৃত কমপক্ষে ৬০, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা

  • News18 Bangla
  • | October 20, 2018, 08:58 IST
    facebookTwitterLinkedin
    LAST UPDATED 3 YEARS AGO

    AUTO-REFRESH

    13:45 (IST)

    দুর্ঘটনার জেরে বন্ধ ট্রেন চলাচল ৷ অমৃতসর-মান্ডওয়ালা ট্রেন চলাচল বন্ধ ৷ দুপুরে বৈঠকে বসবেন রেলকর্তারা ৷ ট্রেন চালানো নিয়ে সিদ্ধান্ত হবে ৷

    13:44 (IST)

    ‘ট্রেনের চালক হর্ন বাজাননি ৷ চালকের ভুলেই অমৃতসরে ভয়াবহ দুর্ঘটনা’, বিস্ফোরক অভিযোগ নভজ্যোৎ সিং সিধুর ৷

    13:44 (IST)
    ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর ৷ ৪ সপ্তাহের মধ্যে দিতে হবে রিপোর্ট, নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংয়ের ৷

    13:43 (IST)
     আহতদের দেখতে হাসপাতালে মুখ্যমন্ত্রী ৷

    13:43 (IST)

    অমৃতসরে দুর্ঘটনায় নয়া তথ্য ৷ রেল ট্র্যাকের পাশেই দশেরা উৎসব ৷ ওই জায়গায় দশেরার অনুমতি ছিল ৷ থানার দেওয়া অনুমতিপত্র প্রকাশ্যে ৷ উৎসবের খবর দেওয়া হয়নি রেলকে ৷ অনুষ্ঠানের আয়োজকদের ভূমিকায় প্রশ্ন ৷ নির্দিষ্ট গতিতেই চলছিল দু’টি ট্রেন ৷ 

    13:42 (IST)

    অমৃতসরে দুর্ঘটনায় টুইট বিরাটের  ৷ মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা বিরাট কোহলির ৷
     

    13:40 (IST)
    চালককে ক্লিনচিট দিল রেল কর্তৃপক্ষ । রেলের দাবি, একে অন্ধকার, তার উপর একটা বাঁক থাকায় চালক দেখতে পাননি। তাছাড়া রাবণ দহনের কথা উদ্যোক্তারা রেলকে আগাম জানায়নি। দাবি নর্দার্ন রেলওয়ের সিপিআরও দীপক কুমারের।

    13:39 (IST)

    রাবণ দহন দেখতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে মৃত্যু। অমৃতসরের জোড়া ফটকের ঘটনা নিছকই দুর্ঘটনা। এর পিছনে গাফিলতি রয়েছে বটে। কিন্তু, ইচ্ছাকৃতভাবে দুর্ঘটনা ঘটানো হয়নি। হাসপাতালে আহতদের দেখতে গিয়ে বললেন রাজ্যের মন্ত্রী নভজ্যোৎ সিং সিধু। তাঁর দাবি, ট্রেন আসার সময় কোনও হর্ন দেওয়া হয়নি। 

    13:39 (IST)

    পঞ্জাবের উপমুখ্যমন্ত্রী নভজ্যোৎ সিং সিধুর বিরুদ্ধে আজও হাসপাতালে স্লোগান। নভজ্যোৎ সিং সিধুর স্ত্রীর ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন নিহতের আত্মীয়েরা।

    12:18 (IST)

     

    পঞ্জাব ট্রেন দুর্ঘটনায় আহতদের হাসপাতালে দেখতে গেলেন রাজ্যের মন্ত্রী নভজ্যোৎ সিং সিধু

    রাবণ দহন দেখতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে মৃত্যু হল  অন্তত ৬০ জনের। অমৃতসরের জোড়া ফটকে এই মর্মান্তিক ঘটনা। রেললাইনে দাঁড়িয়ে রাবণবধ দেখছিলেন পাঁচশো থেকে সাতশো মানুষ। তখন আপ ও ডাউনে লাইনে দুটি ট্রেন আসে। দ্রুতগতির ট্রেনের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই মারা যান ষাটজন। জখম বেশ কয়েকজন। ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ ও উদ্ধারকারী দল। রেল ও আয়োজকদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।  রাবণবধে বাজি ফাটাতেই বিপত্তি? কাঠামো ভেঙে গায়ে পড়ার আশঙ্কা। আতঙ্কে হুড়োহুড়ি দর্শনার্থীদের। তাড়াহুড়ো করে পালাতে গিয়ে বিপত্তি। রেললাইনে এসে যান দর্শনার্থীরা। বাজির শব্দে ট্রেনের আওয়াজ শোনা যায়নি। তখনই দ্রুত গতিতে ছুটে আসে দু'টি ট্রেন