Delhi Assembly Election 2020: টিকিট দিতে কেজরিওয়াল ১০ কোটি টাকা চেয়েছিলেন, কংগ্রেসে যোগ দিয়েই বিস্ফোরক আপ বিধায়ক

Delhi Assembly Election 2020: টিকিট দিতে কেজরিওয়াল ১০ কোটি টাকা চেয়েছিলেন, কংগ্রেসে যোগ দিয়েই বিস্ফোরক আপ বিধায়ক
অরবিন্দ কেজরিওয়াল

তাঁর অভিযোগ, দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে টিকিট দেওয়ার বদলে ১০ কোটি টাকা ঘুষ চেয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী তথা আপ সুপ্রিমো অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে দলবদল, দোষারোপের পালা বাড়ছে দিল্লিতে৷ বর্তমান আপ সরকারকে গদি থেকে সরাতে কোমর বেঁধে মাঠে নেমে পড়েছে বিজেপি ও কংগ্রেস৷ ইতিমধ্যেই কংগ্রেস দাবি করেছে, আপ-এ টিকিট না-পাওয়া ১৫ জন বিধায়ক কংগ্রেসের সঙ্গে টিকিট পাওয়ার জন্য যোগাযোগ রাখছে৷ এ হেন পরিস্থিতিতে বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন কংগ্রেসে যোগ দেওয়া এক আপ বিধায়ক৷ তাঁর অভিযোগ, দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে টিকিট দেওয়ার বদলে ১০ কোটি টাকা ঘুষ চেয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী তথা আপ সুপ্রিমো অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷

কংগ্রেসে যোগ দেওয়া ওই আপ বিধায়কের নাম আদর্শ শাস্ত্রী৷ শনিবারই তিনি আপ ছেড়ে কংগ্রেসে যোগ দেন৷ তারপরেই কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ তুলে বলেন, বিধানসভায় লড়ার টিকিট ১০ থেকে ২০ কোটি টাকায় বিক্রি করছেন কেজরিওয়াল৷ আপ-এ টিকিট না পেয়ে কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন আদর্শ৷ দ্বারকা বিধানসভা কেন্দ্রে আদর্শের পরিবর্তে আপ এ বারে টিকিট দিয়েছে বিনয় শর্মাকে৷

প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী লালবাহাদুর শাস্ত্রীর নাতি আদর্শ শাস্ত্রী আপ-এর জাতীয় মুখপাত্র ছিলেন ও বৈদেশিক বিষয় দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন৷ লোকসভা ভোটের আগেও এক আপ বিধায়কের ছেলে দাবি করেছিলেন, টিকিট পাওয়ার জন্য তাঁর বাবা দলকে ৬ কোটি টাকা দিয়েছেন৷ যদিও আপ বিধায়ক বলবীর সিং জাখার ছেলের অভিযোগ অস্বীকার করেন এবং জানান ভোটে লড়ার টিকিট পেতে তিনি কোনও টাকা দেননি৷

এ দিকে সূত্রের খবর, দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে পারেন নির্ভয়ার মা আশা দেবী ৷ নির্ভয়ার মা কংগ্রেসের টিকিটে কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে নির্বাচন লড়তে পারেন ৷ এই বিষয়ে শীঘ্রই ঘোষণা করা হতে পারে ৷ নির্ভয়া মামলায় দোষীদের ফাঁসি হওয়ায় দেরি হতে একাধিক বার দিল্লি সরকারের বিরুদ্ধে আঙুল তুলেছেন আশাদেবী ৷ তিনি আরও বলেন যে, সরকার দোষীদের বাঁচানোর চেষ্টা করছে৷

এই বিষয়ে অবশ্য মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়াল জানিয়েছেন, দিল্লি সরকার তাদের কাজ সময়েই সম্পূর্ণ করেছে ৷ এই মামলা সংক্রান্ত কোনও কাজে দিল্লি সরকার কোনও দেরি করেনি ৷ আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে ভোট৷ ফল প্রকাশ হবে ১১ ফেব্রুয়ারি৷

First published: January 19, 2020, 9:27 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर