• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • অখিলেশই আগামী মুখ্যমন্ত্রী হবেন, বললেন মুলায়ম

অখিলেশই আগামী মুখ্যমন্ত্রী হবেন, বললেন মুলায়ম

তিনিই দলের জাতীয় সভাপতি। তাই দলের প্রতীক 'সাইকেল'-এর অধিকারও তাঁর। সোমবার নির্বাচন কমিশনে গিয়ে এই দাবিই করেন মুলায়ম সিং যাদব।

তিনিই দলের জাতীয় সভাপতি। তাই দলের প্রতীক 'সাইকেল'-এর অধিকারও তাঁর। সোমবার নির্বাচন কমিশনে গিয়ে এই দাবিই করেন মুলায়ম সিং যাদব।

তিনিই দলের জাতীয় সভাপতি। তাই দলের প্রতীক 'সাইকেল'-এর অধিকারও তাঁর। সোমবার নির্বাচন কমিশনে গিয়ে এই দাবিই করেন মুলায়ম সিং যাদব।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #লখনউ: তিনিই দলের জাতীয় সভাপতি। তাই দলের প্রতীক 'সাইকেল'-এর অধিকারও তাঁর। সোমবার নির্বাচন কমিশনে গিয়ে এই দাবিই করেন মুলায়ম সিং যাদব। দু'দিন আগে কমিশনে ছেলে অখিলেশের জমা দেওয়া হলফনামা জাল বলেও অভিযোগ  জানান তিনি। কিন্তু আচমকা কাহানি মে ট্যুইস্ট ৷ বদলাচ্ছেন যদুবংশের গৃহযুদ্ধের চিত্রটা ৷ গত কয়েকদিন ধরেই সমাজবাদী পার্টির মধ্যে বাব ও ছেলের মধ্যে দ্বন্দ্বের বহু ঘটনা শিরোনামে এসেছে বারেবারে ৷ এবার তারই অবসান ঘটতে চলেছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল ৷ সোমবার থেকেই ছেলের প্রতি সুর নরম করতে দেখা গিয়েছে মুলায়ম সিং যাদবকে ৷  সমাজবাদী পার্টি সুপ্রিমো মুলায়ম সিংহ যাদব দাবি করলেন, অখিলেশ যাদবই উত্তরপ্রদেশের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হবেন। এই থেকেই অনেকটা পরিষ্কার যে বাবা ও ছেলের মধ্যে একটা বোঝাপড়া হয়ে গিয়েছে ইতিমধ্যেই ৷ সূত্রের খবর মঙ্গলবার মুলায়ম ও অখিলেশের মধ্যে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে ৷ সোমবার বিকেলে মুলায়ম জানিয়ে দিয়েছিলেন, ‘অখিলেশ যাদবই উত্তরপ্রদেশের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হবেন। তার সঙ্গে কোনও দ্বন্দ্ব নেই ৷ মুখে সন্ধির কথা বলছেন বটে। কিন্তু সাইকেলের দাবি ছাড়তে নারাজ নেতাজি। সিকি শতক আগে নিজের হাতে গড়া দলের রাশ হাতে রাখতে, এবার নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হলেন মুলায়মি সিং যাদব। সোমবার দুপুরে তুতো ভাই শিবপাল এবং অমর সিংকে সঙ্গে নিয়ে দিল্লিতে নির্বাচন সদনে যান মুলায়ম। মিনিট চল্লিশ কথা বলেন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার নাসিম জাইদির সঙ্গে। ছেলের সঙ্গে তাঁর কোনও দ্বন্দ্ব নেই। সমস্যার মূলে একজন ব্যক্তি। নাম না করলেও, আক্রমণের তির যে রামগোপালের দিকেই ছিল, তা স্পষ্ট। ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে উত্তরপ্রদেশের সাত দফার নির্বাচনী লড়াই। তার আগে সাইকেলর ভবিষ্যৎ আপাতত নির্বাচন কমিশনের হাতে।

    First published: