• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • সুশান্তের মামলা থেকে সরে যান, হুমকি দিয়ে ফোন শিবসেনা সাংসদকে, যাদবপুর থেকে গ্রেফতার অভিযুক্ত

সুশান্তের মামলা থেকে সরে যান, হুমকি দিয়ে ফোন শিবসেনা সাংসদকে, যাদবপুর থেকে গ্রেফতার অভিযুক্ত

মহারাষ্ট্রের শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউতকে ফোন করে হুমকি দিয়েছিল অভিযুক্ত পলাশ বসু।

মহারাষ্ট্রের শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউতকে ফোন করে হুমকি দিয়েছিল অভিযুক্ত পলাশ বসু।

মহারাষ্ট্রের শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউতকে ফোন করে হুমকি দিয়েছিল অভিযুক্ত পলাশ বসু।

  • Share this:

#কলকাতা: ''ম‍্যায় দাউদ গ্যাংকা আদমি বোল রাহা হু। আপ অউর আপকি সরকার সুশান্ত সিং রাজপুতকে মামলে সে হট যাইয়ে। নেহি তো আপকো দেখ লেঙ্গে...।"

মহারাষ্ট্রের শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউতকে ফোন করে এই ভাষায় হুমকি দিয়েছিল অভিযুক্ত পলাশ বসু। নিজের ফোন থেকে হোয়াটসঅ্যাপ কল করে এই ভাষাতেই হুমকি দেয় পলাশ, তেমনটাই অভিযোগ মুম্বইয়ের anti-terrorist স্কোয়াড বা এটিএসের। তাদের আরও অভিযোগ, পলাশ ফোন করার চেষ্টা করেছিল মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরেকেও।

গত রবিবার এরকম হুমকি ফোন পেয়ে পুলিশকে জানান শিবসেনা সাংসদ। গ্যাংস্টার দাউদের নাম করে যেহেতু ফোন করা হয়েছে সেজন্য ঘটনার তদন্ত ভার নেয় মুম্বই পুলিশের এটিএস। তারা মোবাইলের সূত্র ধরে জানতে পারে, কলকাতার যাদবপুর এলাকা থেকে ফোনটি করা হয়েছিল। সেই সূত্রেই তদন্তে নেমে মুম্বই থেকে কলকাতায় আসেন এটিএসের তিন অফিসার। বৃহস্পতিবার রাতে টালিগঞ্জের রসা রোড এলাকায় পলাশের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করে মুম্বই পুলিশ। তার কাছ থেকে একটি ল্যাপটপ, দুটি মোবাইল ও তিনটি সিম কার্ড বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। তার মধ্যে দুটি সিম কার্ড আইএসডি কলের জন্য ব্যবহার করা হত বলে জানা গিয়েছে।

শুক্রবার পলাশকে আলিপুর আদালতে পেশ করে মুম্বই পুলিশ। ট্রানজিট রিমান্ডের আবেদন জানানো হয় তাদের তরফে। যদিও পলাশের আইনজীবী অনির্বাণ গুহ ঠাকুরতা আদালতে বলেন, "আমার মক্কেল একজন সাধারন মানুষ। তিনি সুশান্ত সিং রাজপুত কিংবা কঙ্গনা রানাওয়াত কাউকে চেনেন না। তার সঙ্গে দাউদের নাম ভুলভাবে জড়ানো হচ্ছে। যে ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে সেগুলো এ ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। তাই যে কোনও শর্তে জামিন দেওয়া হোক।" বিচারক শুনানি শেষে অনির্বানের আবেদন খারিজ করে অভিযুক্তকে চার দিনের ট্রানজিট রিমান্ডের অনুমতি দিয়েছেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, পলাশ পেশায় জিম ইনস্ট্রাক্টর। গত ১৯ বছর ধরে সে দুবাইতে চাকরি করত। ২০১৮ সালে সে কলকাতায় ফিরে আসে। কিন্তু পুরনো যোগাযোগের সূত্র ধরেই কি কোনও ভাবে তার সঙ্গে ডি কোম্পানীর যোগাযোগ রয়েছে? তা জানতেই পলাশকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জেরা করতে চায় মুম্বই এটিএস।

সুজয় পাল

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: