বিয়েবাড়িতে ম্যাগির লাইভ কাউন্টার! নেটিজেনরা হন্যে হয়ে খুঁজছেন বিয়েবাড়ির ঠিকানা! ভাইরাল...

বিয়েবাড়িতে ম্যাগির লাইভ কাউন্টার! নেটিজেনরা হন্যে হয়ে খুঁজছেন বিয়েবাড়ির ঠিকানা! ভাইরাল...

  • Share this:

#কলকাতা: 'ম্যাগি ম্যাগি ম্যাগি'! জিঙ্গলটা কানে ভেসে এলেই নস্টালজিক লাগে। কারও হোস্টেলের কথা মনে পড়ে যায়। কারও কোনও অচেনা শহরে একা থাকার কথা। কারও আবার ছোটবেলার কথা। এই সব নানা কারণে ম্যাগি দেশের মানুষের রান্নাঘরে জায়গা করে নিয়েছে বহু বছর ধরে। তার কারণ ওই একটাই- ২ মিনিটে চটপট এটা বানিয়ে ফেলা যায়। তায় খেতেও ভাল! ফলে চাকরিজীবী থেকে হোস্টেল-পড়ুয়া, চিকিৎসক থেকে ইঞ্জিনিয়ার, স্কুল স্টুডেন্ট থেকে সাধারণ মানুষ- সকলের পছন্দ এই ইনস্ট্যান্ট নুডলস।

বাড়িতে তাড়াতাড়ি খাবার বানানোর জন্য ম্যাগি তৈরি করা খুব সাধারণ বিষয়। কিন্তু কোনও দিন বিয়ে বাড়ির মেনুতে ম্যাগি দেখেছেন? না বোধহয়! তাই এই বিয়েবাড়িতে ম্যাগির লাইভ কাউন্টার দেখে কার্যত অবাক হলেন নেটিজেনদের একাংশ। সবার পছন্দের এই ইনস্ট্যান্ট নুডলস সব বিয়েবাড়ির মেনুতেই থাকা উচিৎ বলে মনে করলেন অনেকে।

সম্প্রতি @somyalakhani নামের একটি ট্যুইটার (Twitter) হ্যান্ডেল থেকে একটি ছবি শেয়ার করা হয়। যাতে ক্যাপশনে লেখা হয়, আমি আমার তুতো বোনকে অনেক ভালবাসি। কারণ সে অনেক কিছু ভাবার পর তার বিয়েতে ম্যাগির একটা লাইভ কাউন্টার বসিয়েছে। ছবিটিতে দেখা যায়, একটি কাউন্টারে ডান দিকে অনেকগুলো ম্যাগির প্যাকেট রাখা আর বাঁ-দিকে একটি প্যানে ম্যাগি বানানো চলছে।

ট্যুইটটি করার সঙ্গে সঙ্গেই ভাইরাল হয় সেটি। বহু মানুষ কমেন্ট করতে থাকেন। রিট্যুইটও হয় তাঁর পোস্ট। অনেকেই অনেক ধরনের মন্তব্য করেন। যাতে ম্যাগির প্রতি সকলের ভালোবাসা কতটা, তা সহজেই বোঝা যায়।

একজন কমেন্টে লেখেন, এই কাউন্টারটিই নিশ্চয়ই সব চেয়ে জনপ্রিয় কাউন্টার ছিল বিয়েবাড়িতে।

আরেকজন লেখেন, প্রতিটা বিয়েবাড়িতে যদি এমন একটা করে ম্যাগির কাউন্টার থাকত!

বিয়েবাড়িতে কী মেনু থাকতে পারে, সেটা মোটামুটি একটা ধরে নেওয়া যায়। মানে পরিচিত প্যাটার্নেই বিয়েবাড়ির মেনু হয়ে থাকে। সেখানে খুব বেশি পরিবর্তন কেউ আনেন না। কিন্তু ম্যাগির কাউন্টার দেখে একজন লিখেছেন, এটাও এবার থেকে বিয়ে বাড়ির সাধারণ মেনুতে থাকা উচিৎ!

আরেকজন নেটিজেন আবার লিখেছেন, এটাই তো গেম চেঞ্জার। এখানেই শেষ নয়। ম্যাগি-প্রিয় মানুষজন অনেকেই বিয়েবাড়ির ঠিকানা চেয়ে বসেন। তাঁরা জিজ্ঞাসা করেন, অনুষ্ঠান কোথায় হচ্ছে সেটা জানাতে, তাঁরাও গিয়ে খাবেন। অনেকে আবার বলেন, ম্যাগির কাউন্টারে নিশ্চয়ই খুব ভিড় ছিল? আরেকজন জিজ্ঞাসা করেন, ম্যাগি নিজের মতো করে ফ্লেভারে বানানোর ব্যবস্থাও নিশ্চয়ই ছিল?

প্রসঙ্গত, করোনা-পরবর্তী সময়ে বিয়েবাড়ির ধরন অনেকটাই পালটে গিয়েছে। খাওয়ার জায়গা বা লোকজন বসার জায়গাতেও পরিবর্তন এসেছে। সব জায়গায় শারীরিক দূরত্ব মানার বিষয়টি এসেছে এবং মাস্ক, স্যানিটাইজারও দেখা গিয়েছে। অনেকেই বিয়েবাড়িতে লোকসংখ্যা কমিয়ে ফেলেছেন। সরকারের নির্দেশিকা ও কোভিড বিধি মেনে অনেকেই বিয়ের প্ল্যানিংয়েও কাটছাঁট করেছেন। একজন আবার বিয়েতে নিমন্ত্রিত লোকজনের বাড়ি বাড়ি খাবার পৌঁছে দিয়েছেন, যাতে কোনও ভাবেই সংক্রমণ ছড়ানোর জায়গা থাকে না।

Published by:Shubhagata Dey
First published: