হোম /খবর /মুর্শিদাবাদ /
ভিন রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু, শোকের ছায়া নিমতিতা গ্রামে 

Murshidabad News- ভিন রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু, শোকের ছায়া নিমতিতা গ্রামে 

ভিন রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু শোকের ছায়া নিমতিতা গ্রামে পরিবারে 

ভিন রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু শোকের ছায়া নিমতিতা গ্রামে পরিবারে 

পনেরো দিন আগেই তামিলনাড়ুতে কাজে গিয়েছিল এই শ্রমিক। তদন্তের দাবি করেছে মৃতের পরিবার

  • Share this:

#জঙ্গিপুরঃ ফের ভিন রাজ্যে কাজে গিয়ে শ্রমিকের মৃত্যু। দেহ ফিরিয়ে আনতে গ্রামে তোলা হল চাঁদা। মুর্শিদাবাদ জেলার সামশেরগঞ্জের নিমতিতা গ্রাম পঞ্চায়েতের শেরপুরের বাসিন্দা বাজরুল সেখ (বয়স ২০ বছর), গত ১৬ই ফেব্রুয়ারি তামিলনাড়ুতে কাজে যান শ্রমিকের কাজে যোগদান করতে। পরিবারে বাবা না থাকায় আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী হতেই তামিলনাডুতে রওনা দেন বাজরুল সেখ (Murshidabad News)। গত ১৯শে ফেব্রয়ারি সেখানে পৌঁছে দুদিন কাজও করেন। কিন্তু গত সোমবার কাজ শেষে সন্ধ্যায় চা খাওয়ার নাম করে বেড়িয়ে যান বাজরুল। ফিরে না আসায় সহকর্মীরা অনেক খোঁজাখুজি করেও তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। মঙ্গলবার তামিলনাড়ুর পুনামাল্লি থানায় অভিযোগ করা হয়, তদন্তে নেমে পুলিশ ওইদিন বিকেলে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে। খুন বলে অনুমান পরিবারের। তবে কি কারণে খুন বুঝে উঠতে পারছেন না কেউই। যুবকের মৃত্যুতে শোকের ছায়া এলাকা জুড়ে। মৃতদেহ ফেরার অপেক্ষায় পরিবার। দেহ ফিরিয়ে আনতেই গ্রামের বাসিন্দারা চাঁদা তুলছেন। শুক্রবার ভোরে দেহ ফিরে আসবে বজরুলের। কফিনবন্দি দেহ ফিরে আসার অপেক্ষায় দিন কাটাচ্ছেন পরিবারের সদস্যরা।

মৃতের মা মৌপি বেওয়া জানান, "গত পনেরো দিন আগে কাজে গিয়েছিল বাজরুল সেখ। কুড়ি টাকা নিয়ে চা খেতে যায়। তবে তারপর থেকে নিখোঁজ ছিল। তারপর ওখান থেকে স্হানীয় পুনামাল্লি পুলিশ প্রশাসন আমাদেরকে জানায় সে মারা গেছে। তার দেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার দেহ ময়না তদন্ত করা হয়েছে। বুধবার গ্রামের বাসিন্দাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেহ ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। আমার ছেলেকে খুন করা হয়েছে, স্হানীয় কেও আমার ছেলেকে খুন করেছে। বাইরে গেলেও সেখানে স্হানীয় ভাষা জানত না, ফলে কেও শত্রু ছিল না। তবে কেন এমন ঘটনা ঘটল তা বুঝে উঠতে পারছি না। আমরা সঠিক তদন্তের দাবি করছি।" (Murshidabad News)

নিমতিতা গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য সাদিকুল রহমান জানান, "গত ২১শে ফেব্রুয়ারি দুপুরে আবির নামক এক ছেলে আমাদেরকে ফোন করে। তারপর অনেক খোঁজাখুঁজি হলেও তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। তারপর আমাদের কে জানানো হয়, আমরা পুলিশে অভিযোগ করেছি। কোনও রকমে সংসার চালানোর জন্য ভীন রাজ্যে কাজে গিয়েছিল। তারপর মৃত্যুর খবর পাই আমরা। তবে দেহ ফিরিয়ে আনতে ৯০ হাজার টাকা দরকার। আমরা স্হানীয় বাসিন্দারা টাকা জোগাড় করে দেহ ফিরিয়ে নিয়ে আসছি। তবে যেভাবে ভীন রাজ্য পরিযায়ী শ্রমিকেরা কাজে গিয়ে হত্যা হচ্ছে, তামিলনাড়ু রাজ্যে এই পরিযায়ী শ্রমিকদের মারধর করা হচ্ছে তার আমরা তদন্ত দাবি করছি।"

Koushik Adhikary

Published by:Samarpita Banerjee
First published:

Tags: Berhampore, Migrant Worker, Murshidabad, Nimtita