• Home
  • »
  • News
  • »
  • local-18
  • »
  • অতিবৃষ্টি ও করোনার ধাক্কায় সংকটে জেলার পদ্ম চাষীরা

অতিবৃষ্টি ও করোনার ধাক্কায় সংকটে জেলার পদ্ম চাষীরা

Lotus farm

Lotus farm

পদ্মফুল ছাড়া দেবীর বোধন সম্পন্ন হয় না, পুজোয় পদ্মফুল যোগানের অনিশ্চয়তা জেলায়।

  • Share this:

    কোলাঘাট:    প্রাকৃতিক দুর্যোগ আর করোনা ভাইরাসের জোড়া ফলায় বিদ্ধ জেলার পদ্ম চাষ। দুর্গাপুজোয়  পদ্মফুল যোগানের অনিশ্চয়তার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। পদ্ম চাষে সংকটের মুখে পড়েছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কোলাঘাট পাঁশকুড়া ও তমলুকের পদ্ম চাষীরা। অতিবৃষ্টিতে নষ্ট হচ্ছে পদ্ম গাছ, পাওয়া যাচ্ছে না ভালো ফুল। আবার পদ্মফুল কলকাতার বাজারজাত করতে অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছে চাষিরা।

    চূড়ান্ত অনিশ্চয়তায় ভুগছে পদ্ম চাষীরা। সামনেই দুর্গাপুজো। তার আগেই পদ্ম চাষীদের দূরবস্থার ভয়াবহ চিত্র উঠে এসেছে পূর্ব মেদিনীপুরে। করোনা ভাইরাসের কারণেগতবছর থেকে একটানা লোকাল ট্রেন চলাচল বন্ধ। পাশাপাশি ইয়াস ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির জেরে পদ্মচাষীদের অবস্থা ক্রমেই সঙ্গীন হয়ে গিয়েছে। দুর্গাপূজা পদ্মফুল অপরিহার্য। পদ্মফুল ছাড়া দেবী দুর্গার বোধন সম্পন্ন হয় না। দুর্গাপূজাকে লক্ষ্য করে পদ্মফুল চাষ করে জেলার পদ্ম চাষীরা চড়া সুদে বাজার থেকে লোণ নেওয়া টাকা পরিশোধ হবে কিভাবে তা জানেন না কেউই।

    পাঁশকুড়ার পদ্মচাষী হারাধন অধিকারী জানায়, "রেলের কাছ থেকে জলাশয় টেন্ডার নেয় গ্রাম, আমরা গ্রাম থেকে লিজ নিই। আমাদের আশা থাকে ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা সিজনে লাভ হবে। কিন্তু গত দু'বছর ধরে তা মিলছে না। ব্যাঙ্ক থেকে লোণ পাওয়া যায় না, তাই গ্রামাঞ্চল থেকে চড়া সুদে টাকা নিতে হয়। এখন জমি বেচে টাকা দিতে হবে।"  তার আক্ষেপ,  ইয়াসে চরম ক্ষতি হয়েছে, পাতা নষ্ট হয়েছে। এখন আবার ট্রেন চলাচল বন্ধ। এই ফুল বাজারজাত হয় কলকাতা এলাকায়। শ্রাবন মাসে অবাঙালিদের পুজো থাকে। ফুল কলকাতায় নিয়ে গেলে তবেই বাজার পাওয়া যায়। ট্রেন বন্ধ, বাস বন্ধ। বেসরকারী ভাবে গাড়ি ভাড়া করে কলকাতা নিয়ে গেলে পাঁচ হাজার টাকা ভাড়া গুনতে হয়। মাঝে মাঝেই ফুল নদীতে ফেলে আসতে হয়।

    আর এক ফুল চাষী ব্রজবিহারী দাস জানায়, "পদ্ম চাষ শুরু হয় চৈত্র থেকে, চলে দুর্গাপুজো পর্যন্ত। যাতায়াতে সমস্যার কারনে ফুল পচে যাচ্ছে, লকডাউনে বাজার মন্দা। এই ফুল ১৫ দিনের বেশী থাকে না। এখন মাত্র দু'টাকা করে বিকোচ্ছে পদ্ম। প্রচুর ক্ষতি হচ্ছে। সরকার যদি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় তবেই হয়তো বাঁচবে চাষীরা।"

    সামনেই দুর্গাপুজো। কিন্তু প্রাকৃতিক দুর্যোগের রেশ এখনো কাটেনি। নতুন করে গভীর নিম্নচাপের কারণে জেলা জুড়ে চলছে প্রবল বৃষ্টি। অতিবৃষ্টিতে নষ্ট হচ্ছে পদ্ম গাছ। ফুল পাওয়া যাচ্ছে না সেভাবে। দুর্গাপুজোয় অপরিহার্য পদ্মফুল যোগানের অনিশ্চয়তার আশঙ্কা দেখা দেবে মনে করছে কোলাঘাটের এক ফুল ব্যবসায়ী।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: