Home /News /life-style /

Weight Loss Tips: কাজের চাপে সময় নেই? কম ওয়ার্ক আউটেই ঝরবে ওজন, মেনে চলুন এই নিয়মগুলো!

Weight Loss Tips: কাজের চাপে সময় নেই? কম ওয়ার্ক আউটেই ঝরবে ওজন, মেনে চলুন এই নিয়মগুলো!

weight loss tips: the smart way to work out less and get better results

weight loss tips: the smart way to work out less and get better results

Weight Loss Tips: ব্যস্ততায় ফিটনেস (Fitness) এবং স্বাস্থ্যের (Health) সঙ্গে আপোস করা চলবে না। সব দিক ব্যালান্স করেও কী ভাবে ফিট থাকা যায়, জেনে নেওয়া যাক।

  • Share this:

#কলকাতা: রোজকার জীবনে পরিবার, কাজ এবং ফিটনেস (Fitness) একসঙ্গে সামলাতে অনেকেই হিমশিম খেয়ে যান। কিন্তু জীবনে তিনটেই জরুরি হলেও ব্যস্ততায় ফিটনেস (Fitness) এবং স্বাস্থ্যের (Health) সঙ্গে আপোস করা চলবে না। সব দিক ব্যালান্স করেও কী ভাবে ফিট থাকা যায়, জেনে নেওয়া যাক।

আসলে আমরা কতটা ঘাম ঝরাচ্ছি (Weight Loss) তার থেকেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হল আমাদের ওয়ার্ক আউটের ইনটেনসিটি। সম্প্রতি গবেষণায় দেখা দিয়েছে যে একজন মানুষের উপর সপ্তাহে তিন দিন ওয়ার্ক আউট এবং ছয় দিন ওয়ার্ক আউটের একই প্রভাব রয়েছে। এমনকি ঠিকঠাক ওয়েটের সঙ্গে জটিল মুভমেন্টের উপর জোর দিলে শুধুমাত্র সপ্তাহে দুই দিন ওয়ার্ক আউট (workout) করলেও চাহিদা অনুযায়ী নিজের লক্ষ্য পূরণ (weight loss tips) করা যায়। তবে এক্সারসাইজ করার সময় কিছু মূল বিষয় মনে রাখতে হবে৷

আরও পড়ুন - পঞ্জিকা ২২ ডিসেম্বর: দেখে নিন নক্ষত্রযোগ, শুভ মুহূর্ত, রাহুকাল এবং দিনের অন্য লগ্ন!

ভলিউম এবং ইনটেনসিটি

যদি কেউ ভলিউম এবং ইনটেনসিটির সঙ্গে ওয়ার্ক আউট (workout) করেন তাহলে তা অল্প সময়েও কার্যকারী হবে৷ ভলিউম মানে হল কতটা এক্সারসাইজ অর্থাৎ ক'টা সেট এবং রিপিটিশন করা হচ্ছে। আর ইনটেনসিটি হল আমরা এক্সারসাইজ করার সময়ে কতটা পরিশ্রম করছি। এক্ষেত্রে ইনটেনসিটির সঙ্গে কখনওই আপোস করা যাবে না এবং শেষ এক্সারসাইজের (workout) আগে যাতে আমরা থেমে না যাই, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

আরও পড়ুন - Husband and Wife: অপরূপ সুন্দরী স্ত্রী, খোদ স্বামী ‘এই’ কাজ করলেন, আতঙ্ক

শরীরের প্রতি মনোযোগ দিতে হবে

শরীরের ক্লান্তির (weight loss tips) দিকে নজর দিতে হবে বিশেষত যদি আমাদের লক্ষ্য নিজস্ব স্ট্রেন্থের বাইরে চলে যায়। মেকানিক্যাল ক্লান্তি বা কারও পেশির ক্লান্তি দেখা দিলে পরের দিন বেশ ব্যথা অনুভব হয়। গ্লাইকোজেন কমে যাওয়ার কারণে পেশিতে এই ক্লান্তি আসে। এক্ষেত্রে গ্লাইকোজেন ঠিক হতে প্রায় ২৪-৪৮ ঘন্টা সময় লাগে এবং এই সময় বিশ্রামের দিন হিসাবে ধরতে হবে৷

বিশ্রামের দিনের গুরুত্ব

সপ্তাহে তিন দিন ওয়ার্ক আউট (workout) তখনই কার্যকরী বলে প্রমাণিত হবে যখন আমরা বাকি তিন দিন বিশ্রাম নেব। এইচআইআইটি ওয়ার্ক আউটের মতো ইনটেন্স ওয়ার্ক আউট বেশি করলে কোষে আঘাত লাগতে পারে। তাই সপ্তাহে পাঁচ-ছয়দিন নয়, শুধু দুই-তিন দিন করাই যথেষ্ট। কারণ ইনটেন্স ওয়ার্ক আউট করার পরে শরীরের সর্বত্র রক্ত পৌঁছানোর জন্য একটি দিনের প্রয়োজন হয়।

ওয়ার্ক আউটের সঠিক পরিকল্পনা

কার্ডিও, স্ট্রেন্থ অথবা এইচআইআইটি এক্সারসাইজ সব কিছু একসঙ্গে করার পরিকল্পনা করলে কোনও কিছুতেই ঠিক মতো সময় পাওয়া যাবে না৷ সেক্ষেত্রে ন্যূনতম বিরতিতে শরীরের ভিন্ন অংশকে লক্ষ্য করে স্ট্রেন্থের দু'টি সেট করা যায়৷ সাধারণত ফিটনেস মোবিলিটি ওয়ার্ক, কন্ডিশনিং এবং স্ট্রেন্থ এই তিনটি প্রধান বিষয়ের উপর নির্ভর করে৷ তাই এই তিনটি বিষয়ের উপর জোর দিলে সামগ্রিক ওয়ার্ক আউটে অনেক উন্নতি আসবে।

আদর্শ ইনটেনসিটি

পাঁচ মিনিট ওয়ার্ম আপ করে পাঁচ মিনিট মোবিলিটি ওয়ার্ক আউট করলে ওয়ার্ক আউটে খুব ভালো কাজ হবে। একই সঙ্গে জটিল ওয়েট মুভমেন্ট এবং কন্ডিশনিং-এর সঙ্গে ১৫ মিনিট পুরো শরীরের ওয়ার্ক আউট করতে পারি আমরা। যার পরে পাঁচ মিনিট বিরতি নিতে হবে। মূল ওয়ার্ক আউটে কেটলবেল সুইংয়ের চার থেকে পাঁচ সেট থাকা উচিত, তার পর প্রতিটি হাতে দশটি ক্লিন এবং জার্কের দুই থেকে চারটি সেট রাখতে পারি আমরা। এর পর ক্লান্তির জন্য পুল আপ এবং পুশ আপদিয়ে ওয়ার্কআউট শেষ করা যায়।

Published by:Debalina Datta
First published:

Tags: Fitness, Work Out

পরবর্তী খবর