খারাপ সময়ে হতাশা গ্রাস করছে? এই ব্যাপারগুলো মাথায় রাখলেই পরিস্থিতি বদলাতে পারবেন

সময় খারাপ যাচ্ছে বলে হতাশ হচ্ছেন! কয়েকটা ব্যাপার মাথায় রাখলেই মন ভাল হতে পারে।

সময় খারাপ যাচ্ছে বলে হতাশ হচ্ছেন! কয়েকটা ব্যাপার মাথায় রাখলেই মন ভাল হতে পারে।

  • Share this:

#কলকাতা:

অনেকেই হয় তো ভাবছেন আর ভালো লাগছে না এই করোনা আর লকডাউন। চারিদিকে সব বন্ধ, ট্রেন চলছে না, কোনও জায়গায় ঘুরতে যাওয়া যাচ্ছে না, প্রত্যেক দিন শুধু সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের মধ্যে আটকে থাকছে। একটাও দিন ভালো ভাবে কাটছে না! আসলে খারাপ সময়ে আমরা বেশি হতাশায় ভুগি। ফলে খারাপ সময় আরও আমাদের জাঁকড়ে ধরে। তবে এমন পরিস্থিতি থেকে নিজেকে বার করার শক্তি একা একাই বার করতে হবে। দিনের শুরুতেই যদি খারাপ কোনও অভিজ্ঞতা হয় তাহলে নিজেকেই সেই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার উপায় খুঁজে বার করতে হবে। এটা হয় তো খুব কঠিন পথ হতে পারে, কিন্তু এমনটা করতে পারলে ভবিষ্যতে কোনও খারাপ অভিজ্ঞতায় মন বিচলিত হবে না। এই বিশেষ কৌশলগুলরি জন্য প্রথমেই নেগেটিভ চিন্তা-ভাবনাকে দূরে সরিয়ে ফেলতে হবে এবং সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। কারণ, একটা দিনের পর আবার পরের দিনের সকাল আসবে। আর সেটা একেবারে নতুন সকাল, যা এনে দিতে পারে নতুন সুযোগ, নতুন সূচনা। নিচে কিছু পদ্ধতি নিয়ে চিন্তা করার কথা আলোচনা করা হল যা কঠিন মুহূর্ত থেকে বাঁচাতে পারবে!

আমাদের মনে এমন কিছু চিন্তা ঘুরপাক খায় যা সব সময় সত্যি হয় না। ভালো করে চিন্তা করে দেখলে এমন অনেক কিছুই রয়েছে যা নিয়ে বহুবার ভাবা হলেও, সত্যিকারে তা কখনও হয়ে ওঠে না। এটা মাথায় রেখে ওই চিন্তা দূর করতে হবে।

পরিবর্তনই জীবনের একমাত্র সত্য, সময় কখনই এক থাকে না। আমরা ছোট থেকে বড় হয়েছি, একসময় বৃদ্ধ হতে হবে। এইভাবেই জীবন চলে, আগামীতেও তাই হবে।

কোনও কাঙ্ক্ষিত জিনিস না পাওয়ার মতো ঘটনা ঘটলে স্বাভাবিক ভাবেই মন খারাপ হবে, কিন্তু সেই সময় ভেঙে না পড়ে চিন্তা করতে হবে কাঙ্ক্ষিত ওই বস্তু ছাড়াও আর কী কী ভালোলাগার বিষয় রয়েছে। সেগুলিকে নিয়ে বাঁচতে হবে।

অন্তরের অনুভূতিগুলি অনেক সময় সত্যি না-ও হতে পারে, কিন্তু মনের মধ্যে সেগুলো সব সময় বেঁচে থাকে। যেগুলিকে নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা নিজেকেই রাখতে হবে।

জীবনে সকলের জন্য পছন্দের মানুষ হওয়া যায় না। কারণ বিভিন্ন জনের চাহিদা বিভিন্ন রকমের হয়। আবার অনেক সময় কোনও ক্ষেত্রে সকলের চাহিদা মেটাবার সামর্থ্য থাকে না।

নিজের প্রতি সহানুভূতিশীল ও আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠতে হবে। তাহলে কোনও প্রকার বিষন্নতা গ্রাস করতে পারবে না।

যে যে বিষয়গুলি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব সেগুলিতে মনোনিবেশ করে বাকিগুলিকে মনের মধ্যে থেকে সরিয়ে ফেলতে হবে।

কোনও মানুষের মূল্য তার পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে না। প্রতিটি মানুষ তার নিজের সত্ত্বা নিয়ে জন্মায় যা তাঁদের জন্য যথেষ্ট।

কঠিন পরিস্থিতিতে মনের মধ্যে হতাশা জন্মাতেই পারে। তা বলে এটা শুধু মাত্র একজনের সঙ্গেই হচ্ছে এমনটা নয়। আরও অনেকে একই অসুবিধায় থাকতে পারে!

একটা খারাপ দিন বা মুহূর্ত কখনই গোটা জীবন খারাপ করার জন্য যথেষ্ট হতে পারে না। সব কিছু নিজের জৈবনিক শক্তি দিয়ে মিটিয়ে নিতে পারলেই ভবিষ্যৎ সুখের হতে পারে এবং সামনের দিনে পরিস্থিতি খারাপ হলেও এগিয়ে যাওয়া সহজ হতে পারে।

Published by:Suman Majumder
First published: