শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় সমস্যা গাড়িতে উঠতে, স্মার্ট কার এগিয়ে এল নিজে থেকেই! ভিডিও ভাইরাল

শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় সমস্যা গাড়িতে উঠতে, স্মার্ট কার এগিয়ে এল নিজে থেকেই! ভিডিও ভাইরাল

শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় সমস্যা গাড়িতে উঠতে, স্মার্ট কার এগিয়ে এল নিজে থেকেই! ভিডিও না দেখলে বিশ্বাস হবে না!

ভাইরাল এই ভিডিওটি নিজের Twitter হ্যান্ডেলে আপলোড করেছেন থমাস ফগদো (Thomas Fogdö)।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: শারীরিক দিক থেকে কোনও প্রতিবন্ধকতা থাকলে জীবন যে একটা নির্দিষ্ট গণ্ডির মধ্যে আটকে যায়, সে বড় একটা নতুন কথা নয়। যাঁরা এই অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে রোজ যাচ্ছেন, তাঁরাই জানেন যে জীবনযাত্রা ঠিক কী পরিমাণ যন্ত্রণা বরাদ্দ করে রেখেছে! আর এখানেই কাজে আসে প্রযুক্তিষ ভাগ্য যে দিকের দরজা বন্ধ করে রেখেছে, তা খোলার যথাসম্ভব অন্য উপায় আবিষ্কার করে নেয় মানুষ। এই দিক থেকে দেখলে এলন মাস্কের (Elon Musk) Tesla সংস্থা কিন্তু বিশেষ ভাবে সক্ষম মানুষদের পাশে থাকার একটা উপায় এই প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বের করে ফেলেছে। সম্প্রতি যার নতুন করে দেখা মিলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ভাইরাল এই ভিডিওটি নিজের Twitter হ্যান্ডেলে আপলোড করেছেন থমাস ফগদো (Thomas Fogdö)। তাঁর জীবন হুইলচেয়ারে বন্দী। ফলে পার্কিং লটে যদি দু'টি গাড়ি খুব অল্প জায়গা রাখে নিজেদের মধ্যে, সেখান দিয়ে হুইলচেয়ারে করে গিয়ে গাড়িতে ওঠা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়। ভিডিওটিতেও আমরা দেখছি সেই সমস্যা। পার্কিং লটে ফগদোর কালো Tesla গাড়িটার ঠিক পাশেই রয়েছে এক লাল গাড়ি। কিন্তু দুই গাড়ির মধ্যে ব্যবধান বেশ কম, ফলে হুইলচেয়ার নিয়ে সে দিকে এগোতে পারছেন না তিনি। চেষ্টা করেছেন ঠিকই, তবে হুইলচেয়ার ঠেকে গিয়েছে দুই গাড়ির ফাঁকে!

ভিডিও দেখে বোঝা গিয়েছে যে ফগদোকে এ হেন পরিস্থির মুখে প্রায়ই পড়তে হয়। তাই তিনি ঘাবড়ে না গিয়ে নিজের হুইলচেয়ারটাকে পিছিয়ে এনেছেন একটুখানি! তার পর তাঁকে নিজের স্মার্টফোনের স্ক্রিনে আঙুল বোলাতে দেখা গিয়েছে। তার পরেই সবাইকে অবাক করে স্টার্ট নিয়েছে চালক ছাড়া গাড়ি, আলো জ্বালিয়ে নির্দেশ মতো সে পিছিয়ে এসেছে কিছুটা। যখন গাড়িতে ওঠার মতো জায়গা পাওয়া গিয়েছে, তখন ফগদোকে হাসতে দেখা গিয়েছে। তিনি হুইলচেয়ার নিয়ে এগিয়ে গিয়েছেন গাড়ির দিকে। আর সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন প্রযুক্তি-সমৃদ্ধ স্মার্ট কার তৈরি করার জন্য তিনি ধন্যবাদ জানিয়েছেন Tesla-কে।

প্রসঙ্গত, Tesla-র এই ফিচারটির নাম Smart Summon। পুরোপুরি ভাবে স্বয়ংক্রিয় সংস্থার কিছু গাড়ির মডেলে এই ফিচার পাওয়া যায়। যেখানে অ্যাপ দ্বারা ইচ্ছা মতো নিয়ন্ত্রণ করা যায় গাড়ি চালানোর বিষয়টিকে।

Published by:Debalina Datta
First published: