Anger Management: রেগে গেলে মনের মানুষের মাথা ঠিক থাকে না? শান্ত করতে পারবেন এই ৭ উপায়ে!

৭টি উপায়ের মাধ্যমে আপনি নিজের সঙ্গী/সঙ্গিনীকে রাগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারেন।

৭টি উপায়ের মাধ্যমে আপনি নিজের সঙ্গী/সঙ্গিনীকে রাগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারেন।

  • Share this:

#কলকাতা:

আমাদের আর পাঁচটা আবেগের মতোই রাগও আবেগের একটি বহিঃপ্রকাশ। তাই যে কোনও বিষয়ে যখন-তখন রেগে যাওয়া এবং তার বহিঃপ্রকাশও খুবই স্বাভাবিক। তবে রাগ এবং তার অতিরিক্ত বহিঃপ্রকাশের মধ্যের সীমারেখাকে সকলের বোঝা উচিত। কারণ জনসমক্ষে বা একান্তে কথায় কথায় উগ্র এবং আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠা একেবারেই সঠিক আচরণ নয়। পাশাপাশি আপনার মনের মানুষ যদি কোনও কারণে রেগে গিয়ে আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠেন তাহলে আপনাকে তার কারণ বুঝতে হবে। আপনাকে নিজের সঙ্গী/সঙ্গিনীর আচরণের পরিবর্তনে এগিয়ে আসতে হবে। এক্ষেত্রে ৭টি উপায়ের মাধ্যমে আপনি নিজের সঙ্গী/সঙ্গিনীকে রাগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারেন।

সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন

কোনও মনস্তাত্ত্বিক কষ্ট থেকে আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনীর রাগ হতে পারে। তাই সেই মানসিক কষ্ট থেকে বের করে আনতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। তাঁর মন ভালো করার জন্য আপনি কিছু করতে পারেন কি না তা আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনীকে জিজ্ঞাসা করুন। ঠিক কী কারণে আপনার প্রিয় মানুষটি রেগে যাচ্ছেন তা জানলেই হয় তো আপনি তাঁর রাগ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারবেন।

নিজে শান্ত থাকার চেষ্টা করুন

আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনী যখন রেগে যান, তখন আপনারও মেজাজ গরম হওয়া খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু আপনার পাল্টা রাগ এই পরিস্থিতিতে শুধুই উত্তেজনা বাড়িয়ে দেবে। তবে কঠিন হলেও, আপনি শান্ত ও ধৈর্যশীল থাকার চেষ্টা করুন। এক্ষেত্রে যখন আপনি নিজের মেজাজ বেড়ে যাচ্ছে বলে বুঝতে পারবেন তখন জোরে নিশ্বাস নিন এবং ভেবেচিন্তে কথা বলুন।

তাঁকে আবেগগত ভাবে নিরাপদ বোধ করান

রাগের মুহুর্তে আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনীকে এমন কিছু বলুন যা তার মনকে শান্তি দেবে। রাগের অতিরিক্ত বহিঃপ্রকাশের জন্য সঙ্গীর সমালোচনা করবেন না। বরং মন দিয়ে তাঁর কথা শুনুন এবং মানসিক ভাবে তার পাশে থাকুন।

সমবেদনা জানান

সমবেদনার মাধ্যমে আপনার রাগী সঙ্গী/সঙ্গিনীর আচরণ পরিবর্তন করার চেষ্টা করুন। সহানুভূতি দিয়ে আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনীর উগ্র মনোভাবকে ভালোবাসায় পরিবর্তন করতে পারলেই সমস্যার সমাধান হতে পারে। তাই তাঁর চরম আবেগের প্রতি সহানুভূতিশীল হওয়া আপনাদের দু'জনকেই ভালো থাকতে সাহায্য করবে।

না বুঝে রাগের কারণ আন্দাজ করবেন না

আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনীর রাগের কারণ আপনি জানেন বলে কখনও ধরে নেবেন না। বরং তাঁর রাগের কারণ নিয়ে প্রশ্ন করুন। আপনার চিন্তার কারণ খুলে বলুন এবং তাঁর ব্যবহারে আপনি যে পরিবর্তন খেয়াল করছেন সে বিষয়ে তাঁর সঙ্গে কথা বলুন। নিজেদের মধ্যে খোলাখুলি কথা বললে তা পরিস্থিতির উন্নতিতে দু'জনের জন্যই সাহায্য করবে।

মনোযোগ দিয়ে তাঁর কথা শুনুন

আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনীর কথা শেষ হলেই শুধু আপনি কথা বলবেন বলে অপেক্ষা করবেন না। বরং এমনভাবে কথা শুনুন যাতে আপনি যে তাঁর কথা শুনছেন সেটা তিনি বুঝতে পারেন। নচেৎ আপনি যে তাঁর কথা শুনে উপলব্ধি করছেন তা আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনী বুঝতে পারবেন না।

প্রাথমিক স্তরেই রাগ চিহ্নিত করুন

মনে রাখবেন যে প্রতিরোধ নিরাময়ের চেয়ে ভালো। আপনি যদি প্রথম থেকেই ওয়াকিবহাল থাকেন তাহলে আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনীর রাগ নিয়ন্ত্রণে সুবিধা হবে। যত তাড়াতাড়ি আপনি বুঝতে পারবেন, তত তাড়াতাড়ি আপনার নিয়ন্ত্রণের বাইরে পরিস্থিতি না যাওয়া সামলাতে পারবেন!

Published by:Suman Majumder
First published: