corona virus btn
corona virus btn
Loading

চিনের হামলায় শহিদ রাজেশ ওরাংয়ের পরিবারকে সাহায্য শুভেন্দু অধিকারীর 

চিনের হামলায় শহিদ রাজেশ ওরাংয়ের পরিবারকে সাহায্য শুভেন্দু অধিকারীর 

তখনই রাজেশের আত্মার শান্তি কামনায় রাজেশের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে এই কথাই বলেন তিনি। গত সপ্তাহেই লাদাখে ভারত-চিন সীমান্তে সংঘর্ষে সময় মৃত্যু হয় রাজেশের।

  • Share this:

'আমরা বাড়িতে রাতে ঘুমোতে পারি, কারণ আপনার ছেলে রাত জেগে সীমান্ত পাহারা দেয়। আত্মবলিদান দেয় আমাদের রক্ষা করতে গিয়ে। আপনার ছেলেকে নতমস্তকে প্রণাম জানাই।' শহিদ রাজেশ ওরাংয়ের পরিবারের সঙ্গে ভিডিও কল মারফত মঙ্গলবার  কথা বলেন রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

তখনই রাজেশের আত্মার শান্তি কামনায় রাজেশের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে এই কথাই বলেন তিনি। গত সপ্তাহেই লাদাখে ভারত-চিন সীমান্তে সংঘর্ষে সময় মৃত্যু হয় রাজেশের। চিন সেনার হাতে রাজেশ সহ সেনার আধিকারিক ও জওয়ানদের মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছে গোটা দেশ। তারই মধ্যে এদিন রাজেশের পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দিলেন রাজ্যের সেচ ও পরিবহণ মন্ত্রী।

শুভেন্দু অধিকারী আগেই জানিয়েছিলেন, রাজ্যের দুই শহিদ পরিবারকে তিনি সাহায্য করতে চান। সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করলেন তিনি। কিছুদিন আগের ঘোষণা অনুযায়ী, আজ সতীশ সামন্ত ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে গালওয়ানে অনুপ্রবেশকারী চিনের সামরিক হানায় শহিদ ভারতীয় বীর জওয়ান রাজেশ ওরাং এর ছবিতে মাল্যদান ও শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে পরিবারের হাতে ১০ লক্ষ টাকা প্রদান করেন তিনি। এরপর শুভেন্দু অধিকারী ভিডিও কলের মাধ্যমে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বললেন।

শুভেন্দু জানান,  যদি পরিবার চায় তাহলে তাদের বসত বাড়িতে রাজেশের আবক্ষ মূর্তি স্থাপন করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। শহিদ রাজেশ ওরাংয়ের বাড়িতে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। যদিও করোনার সময়ে বীরভূম যাওয়া মুশকিল। সেই কারণেই আপাতত ভিডিও কল মারফত শহিদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন।

আগামী দিনে বীরভূম গেলে তিনি রাজেশের বাড়ি গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন। আলিপুরদুয়ারের শহিদ পরিবারের সঙ্গেও তিনি যোগাযোগ করতে চান। তাঁদের পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। রাজেশের বাড়ির সদস্যদের তিনি তার ফোন নম্বর দিয়েছেন। যে কোনও প্রয়োজন হলে তাঁকে ফোন করতে বলেছেন তিনি। মন্ত্রীর আশ্বাস পেয়ে কিছুটা হলেও নিশ্চিন্ত বোধ করছেন রাজেশের পরিবার।

ABIR GHOSAL

Published by: Arindam Gupta
First published: June 23, 2020, 8:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर