Home /News /kolkata /

আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ বৃহস্পতিবারের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

    anandabazar11

    ১) সেনার আত্মহত্যা ঘিরে বিক্ষোভ, রাজধানীতে আটক রাহুল, কেজরীবাল সেনাদের বলিদানের আবেগে সওয়ার হয়ে যখন বাজিমাত করতে চাইছেন নরেন্দ্র মোদী, তখন সেনা অস্ত্রেই তাঁকে বধ করতে নামলেন রাহুল গাঁধী ও অরবিন্দ কেজরীবাল। কম পেনশন আর ‘এক পদ, এক পেনশন’-এ (ওআরওপি) বর্ধিত টাকা না পাওয়ার অভিযোগে মঙ্গলবার দিল্লিতে আত্মহত্যা করেন এক প্রাক্তন জওয়ান। আর সেই মৃত্যুকে ঘিরে আজ দিনভর নাটক চলল দিল্লির রাস্তায়। মৃত জওয়ানের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে দু’-দু’বার আটক হলেন কংগ্রেস সহ-সভাপতি রাহুল গাঁধী। এমনকী কার্যত নজিরবিহীন ভাবে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কেজরীবাল ও উপমুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসৌদিয়াকেও আটক করে পুলিশ। আটক হন মৃত জওয়ানের ছেলে ও তাঁর পরিবারের অন্য সদস্যরা। রাতে সবাইকে ছেড়ে দেওয়া হলেও বিষয়টি ঘিরে উত্তাপ বিন্দুমাত্র কমেনি।

    ২) বিরিয়ানি বাঁচাতেই কি বুকে গুলি, প্রশ্নের মুখে শিবরাজ সংঘর্ষটা সন্দেহজনক! আর বিপজ্জনক তার পরের বার্তাটি! প্রশ্ন উঠেছিল ঘটনার দিনই। তদন্ত যেটুকু এগিয়েছে তাতেও সন্দেহটা আরও জোরদার হয়ে উঠেছে যে, ধরা নয়, মারাই ছিল লক্ষ্য। এবং সেই লক্ষ্য পূরণেই গত সোমবার জেলছুট ৮ সিমি সদস্যের কোমরের উপরে, বুকে গুলি করা হয়েছিল। আজ ময়নাতদন্তের রিপোর্টে স্পষ্ট, এতটাই কাছ থেকে গুলি করা হয়েছিল যে বুলেট এফোঁড়-ওফোঁড় করে শরীর থেকে বেরিয়ে গিয়েছে। এরই পাশাপাশি রাজ্যের সন্ত্রাস দমনের কর্তাই জানাচ্ছেন, গুলি করার সময় ওই জেলছুটরা মোটেই সশস্ত্র ছিল না।

    ৩) দুই কিশোরীকে উদ্ধারের পরে খুন আশ্রয়স্থলের কেয়ারটেকার যৌনপল্লি থেকে দুই নাবালিকাকে উদ্ধার করে এনে আশ্রয় দেওয়ার ২৪ ঘণ্টা না-পেরোতেই খুন হয়ে গেলেন ওই আশ্রয়স্থলেরই কেয়ারটেকার। আর তার পর থেকেই নিখোঁজ ওই দুই কিশোরী। ঘটনায় দিনভর চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সোনাগাছি এলাকায়। আর তদন্ত যত এগিয়েছে, ততই ঘনীভূত হয়েছে রহস্য। পুলিশ জানিয়েছে, বুধবার সোনাগাছির ১২/৫ নীলমণি মিত্র স্ট্রিটের বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের দফতরের কেয়ারটেকার, বছর পঞ্চান্নর কবিতা রায়ের দেহ। তাঁর মাথা থেঁতলানো ছিল, গলায় গামছার ফাঁস। সারা শরীরে আঘাতের চিহ্ন। সংগঠনটি দীর্ঘদিন ধরে নারী ও শিশু পাচারের বিরুদ্ধে কাজ করছে। মাঝেমধ্যেই নাবালিকাদের উদ্ধার করে বাড়ি পৌঁছে দেন তাঁরা। নিখোঁজ হয়ে যাওয়া দুই নাবালিকাও এ ভাবেই উদ্ধার হয়েছিল।

    ৪) বার্তা বিজেপি-বিরোধিতার,নিন্দায় রাহুল-কেজরীর পাশে মমতা নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরোধিতায় কংগ্রেস ও অন্য ধর্মনিরপেক্ষ দলগুলিকে এককাট্টা করার কাজে তিনি যে অন্যতম প্রধান ভূমিকাই নিতে চাইছেন, ক’দিন আগেই সেই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সংসদের শীতকালীন অধিবেশন শুরু হতে বাকি আর দু’সপ্তাহ। তার আগে তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে দু’টি ঘটনা ঘিরে বুধবার টুইটারে সমালোচনায় সরব হলেন তৃণমূল নেত্রী। যার নেপথ্যে মমতার বিজেপি-বিরোধিতায় প্রধান ভূমিকা নেওয়ার সেই চেষ্টাই দেখছেন কেউ কেউ। ঘটনা এক, পেনশন নিয়ে বঞ্চনার অভিযোগ তুলে আত্মঘাতী প্রাক্তন সেনাকর্মীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে বুধবার দিল্লিতে রাহুল গাঁধী এবং অরবিন্দ কেজরীবালের আটক হওয়া। যার তীব্র প্রতিবাদ করেছেন তৃণমূল নেত্রী। ঘটনা দুই, বিজেপি শাসিত মধ্যপ্রদেশে আট সিমি সদস্যের গুলিতে নিহত হওয়ার ঘটনা। মমতা প্রশ্ন তুলেছেন তা নিয়েও।

    bartaman_big11

    ১) বিজেপিকে তোপ দেগে কংগ্রেসের পাশে মমতা একদিকে ভোপালের এনকাউন্টারে জঙ্গি হত্যার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন, অন্যদিকে দিল্লিতে রাহুল গান্ধীকে পুলিশি হেনস্থার বিরুদ্ধে সমালোচনায় সরব হয়ে, সংঘ বিরোধী জাতীয় রাজনীতিতে নতুন জল্পনার ইন্ধন জোগালেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গত শুক্রবার ভোপালে আটজন জেল পালানো জঙ্গিকে এনকাউন্টারে হত্যা করার ঘটনা নিয়ে ইতিমধ্যেই দেশের ছোট বড় প্রায় সব দলই সংশয় প্রকাশ করে নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করেছে। তবে কোনও তদন্ত দাবি না করলেও, বুধবার সেই প্রতিবাদীদের তালিকায় যুক্ত হলেন তৃণমূল নেত্রী। একদিকে নাম না করে বিজেপিকে আক্রমণ, অন্যদিকে আক্রান্ত কংগ্রেস সহ-সভাপতির পাশে দাঁড়ানোর বার্তা কোনও কাকতলীয় নয়, বরং মমতার কৌশলী পদক্ষেপ বলেই রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা। প্রত্যাশিতভাবেই মমতার এই পদক্ষেপ জঙ্গিদের প্রতি মুখ্যমন্ত্রীর নমনীয়তার লক্ষণ বলে দাবি করেছে বিজেপি।

    ২) উত্তপ্ত সীমান্তে গুলি চলছেই, পাকিস্তানকে হুমকি জেটলির এখন আর আগের মতো নীরব সাক্ষী হয়ে ভারত বসে থাকবে না। এভাবে সাধারণ মানুষকে টার্গেট করে যেভাবে হত্যা করা হচ্ছে তার জন্য চরম মূল্য চোকাতে হবে পাকিস্তানকে। আজ এভাবেই একপ্রকার চূড়ান্ত হুমকি দিলেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। গতকাল একদিনে জম্মুর একাধিক সেক্টরে একতরফা গোলাগুলি চালিয়ে শিশু মহিলা সহ আট জন সাধারণ নাগরিককে হত্যা করেছে পাকিস্তান রেঞ্জার্স বাহিনী। বিকেলের মধ্যেই ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী পালটা জবাব দিয়েছে। এবং ১৪টি পাক রেঞ্জার্স ছাউনি ধ্বংস করেছে ভারতীয় বাহিনী। দুজন পাক সেনাও খতম হয়েছে এই প্রত্যাঘাতে। আজও উত্তপ্ত সীমান্ত পরিস্থিতির মধ্যেই গোলাগুলি অব্যাহত রয়েছে। পাকিস্তানের এই লাগাতার সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লংঘন করে ভারতকে একপ্রকার যুদ্ধ ঘোষণার জন্য প্ররোচিত করার পিছনে আসল প্ল্যান কী তা নিয়ে জোর বিতর্ক চলছে। এবং সেই প্ল্যানের মদতদাতা আসলে চীন কিনা তা নিয়েও গতকাল রাতে ভারতের নিরাপত্তা সংক্রান্ত সর্বোচ্চ পর্যায়ের বৈঠক হয়। এবং আজ সকালে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পারিক্কর, অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং আইবি ও রিসার্চ অ্যানালিসিস উইং এর কর্তাদের নিয়ে সাউথ ব্লকে বৈঠক করেন। অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি এরপরই রীতিমতো হুঁশিয়ারির ভঙ্গিতে বলেন, পাকিস্তান ভুলে যাচ্ছে এখন ভারত ও পাকিস্তানের সম্পর্ককে বলা যেতে পারে নতুন স্বাভাবিকতা। নিউ নর্মাল।

    ৩) অবসরপ্রাপ্ত সেনাকর্মীর আত্মহত্যার ঘটনায় বিক্ষোভ কংগ্রেসের, দফায় দফায় আটক রাহুল ‘ওআরওপি’র দাবিতে অবসরপ্রাপ্ত এক সেনার আত্মহত্যার পর মৃতের পরিবারের সঙ্গে দেখা করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে আজ দিনভর উত্তাল হল দিল্লি। হাসপাতালে ঢুকতে বাধা দেওয়া হল কংগ্রেস সহসভাপতি রাহুল গান্ধীকে। একইভাবে বাধা পেলেন দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী মণীশ শিসোদিয়াও। তোলপাড় হল রাজধানী। ঘটনার নিন্দা করে ট্যুইট করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত রাহুলকে এদিন দফায় দফায় বিভিন্ন থানায় আটকে রাখল দিল্লি পুলিশ। ঘটনাকে ঘিরে কংগ্রেস কর্মীদের বিক্ষোভে আর পুলিশের মারমুখী চেহারায় দিল্লির কেন্দ্রস্থল গোল ডাকখানা, বাবা খড়্গ সিং মার্গ, মন্দির মার্গ, পার্লামেন্ট স্ট্রিট প্রায় রণক্ষেত্রের চেহারা নিল। আসরে নামলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও।

    ৪) সোমবার ছটে রাজ্য কর্মীদের সবার ছুটি ছট পুজোয় বাড়তি একদিনের ছুটি পাবেন রাজ্যের সরকারি কর্মচারীরা। বিভিন্ন দপ্তরের কর্মীরা ছাড়াও সরকার পোষিত সংস্থা, নিগম, পর্ষদ, কর্পোরেশন এবং পুরসভার কর্মীরা ছটপুজো উপলক্ষে আগামী সোমবার (৭ নভেম্বর) এই ছুটি পাচ্ছেন। বুধবার অর্থদপ্তরের পক্ষ থেকে ছুটির এই সরকারি নির্দেশনামা প্রকাশিত হয়েছে। এর আগে অবশ্য সরকারি ছুটির তালিকায় ছট পুজোর দিনটিকে ‘সেকশনাল হলিডে’ হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল। অর্থাৎ শুধুমাত্র বিহার, ঝাড়খণ্ডের আদি বাসিন্দা, যাঁরা এখন এ রাজ্যের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মচারী হিসাবে নিয়োজিত, তাঁরাই পেতেন এই ছুটি। প্রসঙ্গত, পূর্ব ঘোষিত ছুটির তালিকার সঙ্গে এবার দুর্গাপুজোর পঞ্চমীতে একদিনের বাড়তি ছুটি পেয়েছিলেন কর্মীরা। এবার পাচ্ছেন ছটপুজোর জন্য।

    First published:

    Tags: Morning Newspaper, Newspaper Headline, Todays Newsppaer Headline

    পরবর্তী খবর