Home /News /kolkata /

কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন

কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন

এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ বৃহস্পতিবার গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ বৃহস্পতিবার  গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

    anandabazar11

    মোদীকে রুখতে ভারত পরিক্রমা মমতার

    নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় আজ রাষ্ট্রপতি ভবন অভিযানের পর এ বার খোদ নরেন্দ্র মোদীর গড়ে হানা দেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মোদী সরকারের ‘জনবিরোধী’ পদক্ষেপগুলি মানুষের সামনে তুলে ধরতে প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী কেন্দ্র বারাণসীতে গিয়ে সভা করবেন তিনি।

    খবর কি আগেই ফাঁস, তদন্ত চেয়ে জেপিসি দাবি সংসদে

    টেলিভিশনে নোট বাতিলের ঘোষণা করতে গিয়ে নরেন্দ্র মোদী দাবি করেছিলেন— যা করছেন, সবই গরিবের মঙ্গলের জন্য। এতে গরিবের লাভ হচ্ছে, ঘুম ছুটেছে বড়লোকদের। কিন্তু নোট বাতিলের ফলে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ যে ভোগান্তিতে পড়েছেন, নোটের অভাবে ছোট ব্যবসা-বাণিজ্য যে ভাবে লাটে ওঠার জোগাড় হয়েছে, তাতে তাঁর গরিব-দরদি ভাবমূর্তিই আজ বিরোধীদের নিশানায়। এমন একটি সিদ্ধান্ত কর্মী ও অনুগত শিল্পপতিদের আগাম জানিয়ে দেওয়ার অভিযোগও তুলেছেন বিরোধীরা, যৌথ সংসদীয় দল গড়ে যার তদন্তের দাবি উঠেছে সমস্বরে।

    কালির দেখা নেই অর্ধেক কলকাতাতেই

    এটিএম এখনও তথৈবচ। লাইন ছোট হওয়ার লক্ষণ নেই ব্যাঙ্কে। রোজকার নিত্যনতুন সরকারি ঘোষণায় হয়রানি কমা দূর অস্ত্‌, বরং বাড়ছে বিভ্রান্তি। আর এই সব কিছুর মধ্যে এ বার মুখ ডোবাল ভোটের কালিও।

    কাফিলের মার খাচ্ছি, তাড়িয়ে দিল দূতাবাসও

    এক সময় ভেবেছিলাম ফেরা আর হবে না। মায়ের মুখটাও দেখা হবে না। ভেবেছিলাম, ঘাস কেটে আর উট চরিয়েই জীবনটা কাটাতে হবে। আরবি ভাষায় মালিককে বলে কাফিল। আমার কাফিল ছিল নইফ ফারাজ বুকমি। বছর বত্রিশের যুবক। ওরা ছ’-সাত ভাই। প্রথম পনেরো দিন একটা ঘোরের মধ্যে ছিলাম। বিশ্বাসই হচ্ছিল না, আমি নইফের ক্রীতদাস। চাকরির গল্পটা তা হলে পুরো ভাঁওতা ছিল। মনে পড়ছিল, মুনির আহমেদ নামে দিল্লির যে এজেন্টের মাধ্যমে সৌদি আরবে সার্ভিস ইঞ্জিনিয়ারের চাকরিটা পেয়েছিলাম, সে কোনও নথি দেয়নি। বলেছিল, মুম্বইয়ে গিয়ে ইন্টারভিউ দিতে হবে। তার পর কাগজপত্র মিলবে।

    bartaman_big11

    রাজ্য জুড়ে হানা আয়কর দপ্তরের

    প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঘোষণায় তাবড়দের অবস্থা কী হবে ভেবে অনেকেই মুখ টিপে হেসেছিলেন। অনেকে আনন্দ ধরে রাখতে পারেননি। আবার অনেকে সিঁদুরে মেঘ দেখেছিলেন। এরপর কী অপেক্ষা করছে, তা নিয়ে বেশিদিন আর ভাবার অবকাশ মিলল না। রাজ্যজুড়ে হানা শুরু করে দিল আয়কর দপ্তর। তালিকায় প্রথম সারিতে রয়েছেন বহু নামীদামি কোটিপতি ডাক্তার। তাঁদের বাড়ি ও চেম্বারে তল্লাশি শুরু হয়েছে। তালিকায় রয়েছেন কয়েকজন নামজাদা স্বর্ণব্যবসায়ী। একইসঙ্গে আয়কর অফিসারদের নজর রয়েছে বিপিএল তালিকাভুক্ত রাজ্যের প্রায় এক হাজার জনধন যোজনার অ্যাকাউন্টে। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর শহরের বড় বড় দোকানগুলিতে দামি টিভি-ফ্রিজ কারা কিনেছেন, সেই তালিকা চেয়ে পাঠিয়েছেন আয়কর অফিসাররা। নজর রয়েছে ব্যাংকের লকারেও। নোট বাতিলের কথা ঘোষণার পর লকার থেকে কারা মহার্ঘ জিনিসপত্র ঢোকাচ্ছেন বা বের করে নিচ্ছেন, সেদিকে নজর রাখতে শুরু করেছেন আয়কর আধিকারিকরা। অনেকে বলতে শুরু করেছিলেন, ৯ নভেম্বর শুধু ‘সিনেমার ট্রেলর’ দেখেছে আমজনতা। এখনও বহু কিছু বাকি। প্রসঙ্গত, মোদির ঘোষণার পর ডাক্তারমহলের অনেকেই যে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন, সেই সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল ক’দিন আগেই।

    মানুষ কাঁদছে, মোদি হাসছে, এর শেষ দেখে ছাড়ব: মমতা

    মানুষ মরছে আর মোদি হাসছে! মানুষকে বিপদে ফেলার এই চক্রান্তের শেষ দেখে ছাড়ব। সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে শেষ পর্যন্ত লড়ে যাব। নোট বাতিলের প্রতিবাদে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাক্ষাতের পর এভাবেই আজ তোপ দাগলেন মমতা। একইভাবে সরব হতে আগামীকাল দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আয়োজনে এক সমাবেশে হাজির হবেন তিনি। নোট বাতিলের প্রতিবাদে এদিন সকালে সংসদে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে সরকার বিরোধী ধরনায় বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল। দেশে আচমকা অর্থনৈতিক জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে বলেও স্লোগান দেন দলের এমপিরা। পরে দুপুরে ওই গান্ধী মূর্তির সামনে জড়ো হয়েই রাষ্ট্রপতিভবন যান মমতা। তাঁর সঙ্গে মিছিলে পা মেলান জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা ন্যাশনাল কনফারেন্সের নেতা ওমর আবদুল্লা।

    নোট বাতিলের পিছনে রয়েছে বড় দুর্নীতি, মোদিকে তোপ দেগে জেপিসি চাইল বিরোধীরা

    কালো টাকার বিরুদ্ধে অভিযানের অঙ্গ হিসাবে নোট বাতিল করা হয়েছে প্রচার করা হলেও সুইস ব্যাংক সহ বিদেশি ব্যাংকগুলিতে অ্যাকাউন্ট থাকা যাঁদের নাম পাওয়া গিয়েছে সেই নামের তালিকা প্রকাশ করা যাবে না বলে আজ সংসদে জানিয়ে দিল মোদি সরকার। বিদ্যুৎ মন্ত্রী পীযুষ গোয়েল বিরোধীদের সম্মিলিত দাবিকে নস্যাৎ করে দিয়ে বলেন, কালো টাকা থাকা সুইস ব্যাংকের অ্যাকাউন্টগুলির মালিকদের নাম ঘোষণা করে দিলে বিদেশি ব্যাংকগুলি থেকে আমরা আর কোনও তথ্য পাব না। তাই ওই নামের তালিকা একমাত্র যথাসময়ে সুপ্রিম কোর্টে দেওয়া হবে।

    হাতে কালি দিতেই প্রতিবাদ, ভিড় কমে যাচ্ছে দালালদের

    টাকা বদলাব। কিন্তু কালি কোনওমতেই লাগাতে দেব না। এটা ভোট নাকি? আঙুলে কালি লাগাবে কেন ব্যাংক? যাঁদের ব্যাংকে কালো টাকা রয়েছে, তাঁরা বেঁচে যাচ্ছেন। আর আমাদের হাতে কালি লাগানো হচ্ছে! সকালে স্ট্র্যান্ড রোডে এসবিআইয়ের সদর দপ্তরে টাকা বদলাতে আসা মেটিয়াবুরুজের জনা কুড়ি যুবক লাইনে দাঁড়িয়ে চেঁচিয়ে উঠল কেন কালি লাগাবে? আমরা চোর নাকি, যে চিহ্নিত করে রাখা হচ্ছে? কেন্দ্র ঘোষণা করেছে, নোট বদলালেই আঙুলে কালি পড়বে। আর তাতেই ত্রাহি ত্রাহি রব উঠেছে দালাল-ফড়েদের। এসবিআই এদিন শহরে প্রথম কালি লাগানোর ব্যবস্থা করে। দেখা গেল, এই সিদ্ধান্তে অনেকেরই ঘুম ছুটেছে। সেকারণেই ব্যাংকের লাইনে তারা প্রতিবাদী। কিন্তু এদের পিছনে দাঁড়ানো রেজাউল ইসলাম, গুরফাম মোল্লা, অভিজিৎ রায়ের মতো অনেকেই বললেন, কালি লাগানোর সিদ্ধান্ত সঠিক। কালো টাকা লুকাতে না পারলে তো গোঁসা হবেই!

    ei samay

    মাস্টারস্ট্রোক না বুমেরাং, গুঞ্জন বাড়ছে দেশজুড়েই

    মধ্যরাতের তথাকথিত সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে পাঁচশো এবং হাজার টাকার নোট বাতিল হওয়ার পরে আট দিন কেটে গিয়েছে, দেশজুড়ে এটিএম এবং ব্যাঙ্কের সামনে জনতার হাপিত্যেশ প্রতীক্ষায় কোনও ভাটা পড়েনি ৷

    কাকভোরে পেঁপে উঠল দিল্লি

    এবার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল দিল্লি ৷ কম্পন অনুভূত হয়েছে গুরগাঁও, ফরিদাবাদ, নয়ডা, গাডিয়াদাবাদ-সহ রাজধানী সংলগ্ন বিস্তীর্ণ এলাকায় ৷

    ২০০ শতাংশ জরিমানা নিয়ে প্রশ্ন

    লুকোনো টাকায় ২০০ শতাংশ জরিমানা কি আদৌ সম্বব? আয়কর নিয়ে যারা ঘাঁটাঘাঁটি করেন প্রশ্নটা তুলেছেন তাঁরাই ৷ ৮ নভেম্বর কেন্দ্র পুরোনো ৫০০ টাকা ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল করার পরের দিন কেন্দ্রীয় রাজস্ব সচিব হাসমুখ আধিয়া ঘষণা করেন, আমানতকারীর ঘোষিত আয়ের সহ্গে ব্যাঙ্কে জমা দেওয়ার টাকার পরিমাণ সাম্যঞ্জস্যপূর্ণ না হলে আয়কর আইনের আওতায় ২০০ % পর্যন্ত জরিমানা নেওয়া হবে ৷

    ধারেই সুন্দরবন দর্শন পিয়েত্রাদের

    খদ্দের টানার জন্য গত সপ্তাহেই শীতে পরার উপযুক্ত নানা ধরনের জামা-কাপড় আনিয়ে দোকান ভরেছিলেন গড়িয়াহাট ফুটপাথের হকার সন্তোষ দে ৷ গত সাতদিনে একটাও বিক্রি হয়নি ৷

    First published:

    Tags: Bengali News, ETV News Bangla, Morning Daily, Morning Digest, Thursday Morning Newspapers

    পরবর্তী খবর