Home /News /kolkata /

কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন

কী বলছে আজকের খবরের কাগজ ? দেখে নিন

এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ রবিবারের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ রবিবারের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

    anandabazar11

    সেনার পাশেই রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী, পাল্টা ফুঁসলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতাও

    সংবিধান মতে তিনি রাজ্যের শীর্ষ পদাধিকারী। আবার প্রশানিক বিষয়ে প্রকাশ্যে মত জানানোর ক্ষেত্রে তাঁর অধিকারের সীমা টেনে দিয়েছে সংবিধানই। কিন্তু সেই সীমা অতিক্রম করার অভিযোগকে কেন্দ্র করে এর আগে রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর সঙ্গে বেশ কয়েক বার মন কষাকষি হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এ বার সেনাবাহিনীর পথে নামার ঘটনায় তা পুরোদস্তুর সংঘাতের চেহারা নিল।

    চিচিং বন্‌ধ! জনধনে অন্যের জমা টাকা ফেরত দেবেন না, মন্ত্রণা নরেন্দ্র মোদীর

    অর্থনীতিতে কালো টাকা আটকাতে রাতারাতি ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিলের ঘোষণা করেছিলেন। পরের ২৪ দিন ধরে হাজার সমালোচনাতেও এতটুকু পিছু হটেননি। আর নোট বাতিলের ২৫তম দিনে উত্তরপ্রদেশের মোরাদাবাদে ‘পরিবর্তন সভা’য় দাঁড়িয়ে কালো টাকার বিরুদ্ধে যুদ্ধে এক অন্য অস্ত্র ব্যবহার করলেন নরেন্দ্র মোদী।

    হাওয়া পরিকল্পিত পথে বইছে না, ভোটের তাড়া কমলো বিজেপি-র

    ব্যাটে-বলে ঝড় তুলে উত্তরপ্রদেশে বাজিমাত করতে চেয়েছিল বিজেপি। কিন্তু এখন ধরে খেলতে চাইছে তারা। পর্যবেক্ষকরা বলছেন, বিজেপির আশা ছিল, ২৯ সেপ্টেম্বর এলওসি পেরিয়ে সেনার সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের কৃতিত্ব প্রচার করে উত্তরপ্রদেশে ভোট বৈতরণী পার হবে। তাই তারা তখন চেয়েছিল জাতীয়তাবাদের হাওয়া তুলে যত তাড়াতাড়ি ভোট করানো যায় রাজ্যে। দ্রুত বোঝা যায়, হাওয়া উঠছে না। তার পর ৮ নভেম্বর নোট বাতিল হল। নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহরা ভরসা রাখলেন, কালো টাকার বিরুদ্ধে লড়াই ঘোষণা করে ভোটের বাজারে জোয়ার আনবেন। এক মাসে সেই লড়াইয়ের ধাক্কায় জনজীবন বেসামাল। রাজনীতির হাওয়া পরিকল্পিত চিত্রনাট্য মেনে বইছে না বুঝতে পেরেই বিজেপি তথা কেন্দ্রীয় সরকার এখন উত্তরপ্রদেশে যতটা সম্ভব রয়েসয়ে ভোটে যেতে চাইছে।

    সাততলা সমান নীচ দিয়ে এগোচ্ছে সুড়ঙ্গ, গঙ্গা আর মাত্র ৩০০ মিটার!

    ‘‘পাতালের মাটি খুঁড়ে যন্ত্রটি প্রতিদিন এগোচ্ছে ১২ মিটার করে। এ ভাবে এগোলে ৩০০ মিটার যেতে আরও মাস দুয়েক। তার পরেই গঙ্গার নীচে ঢুকব আমরা।’’ মাটির নীচে প্রায় সাততলা গভীরতায় ৫.৫ মিটার ব্যাসার্ধের বৃত্তাকার সুড়ঙ্গে দাঁড়িয়ে কথাগুলো বলছিলেন ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর নির্মাণকারী সংস্থা ‘কলকাতা মেট্রো রেল কর্পোরেশন লিমিটেড’-এর এগ্‌জিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার উত্তম কর্মকার। সামনেই সুড়ঙ্গ কাটার দৈত্যাকার টানেল বোরিং মেশিন (টিবিএম) কর্কশ শব্দে মাটি কেটে চলেছে। তার উপরে দাঁড়ালে বোঝা যাচ্ছে, খুব ধীরে হলেও যন্ত্রটা কাঁপতে কাঁপতে এগোচ্ছে সামনের দিকে।

    bartaman_big11

    জনধনে জমা টাকা ফেরত দেবেন না: মোদি এতদিন গরিবের সঙ্গে বড়লোকরা কথাই বলতেন না। আর এই একমাস ধরে অনুনয় বিনয় করে নিজেদের টাকা গরিবের জনধন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা করেছে সেইসব ধনীরা। আর এখন সেইসব ধনী হাতজোড় করে জনধন অ্যাকাউন্টের গরিব মানুষদের কাছে এসে বলছে সেই জমা টাকা তুলে দিতে। কিন্তু আমি বলছি একদম ফেরত দেবেন না। জনধন অ্যাকাউন্টে গরিব মানুষরা অন্যদের যে মোটা টাকা জমা করেছেন, তাঁরা একটা টাকাও তুলবেন না। সাফ বলে দিন কোনও টাকা ফেরত হবে না। ওইসব টাকা গরিবদের হয়ে গেল। আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই চাঞ্চল্যকর পরামর্শ দিয়েছেন গরিব মানুষকে। রাজ্যে সেনা মোতায়েন ইস্যুতে  মমতা-রাজ্যপাল দ্বৈরথ চরমে পণ্য ও যাত্রীবাহী গাড়ির পরিসংখ্যান সংগ্রহের কাজে রাজ্যের বিভিন্ন টোলপ্লাজায় সেনা নামানোর ইস্যুতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে নরেন্দ্র মোদির সংঘাত ক্রমশ বাড়ছে। এই ইস্যুতে সেনা-রাজ্য তরজা শনিবার আরও এক ধাপ মাত্রা পেয়ে মমতা-রাজ্যপাল সংঘাতের চেহারা নিয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা সংস্থাকে মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন, তাকে আদৌ সমর্থন করেননি রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠি। নাম না করে তিনি মমতার সমালোচনা করে মন্তব্য করেছেন। চলতি তরজায় রাজ্যপাল সেনাবাহিনীর পাশে দাঁড়ানোয় বেজায় চটেছেন মুখ্যমন্ত্রী এবং তাঁর দল ও মন্ত্রিসভার সদস্যরা। সরাসরি রাজ্যপালের কাছে গিয়ে পালটা ক্ষোভ জানিয়ে শাসক দল তাঁর আচরণকে প্রকাশ্যেই নিন্দা করে এই দ্বন্দ্বকে চরমে নিয়ে গিয়েছে। যদিও রাজ্যপাল রাত পর্যন্ত তাঁর অবস্থান থেকে সরে আসার কোনও ইঙ্গিত দেননি। সব মিলিয়ে মমতা-ত্রিপাঠি দ্বৈরথ কেন্দ্র-রাজ্য চলতি সংঘাতকে আগামী দিনে কোন জায়গায় নিয়ে গিয়ে দাঁড় করায়, আপাতত সেদিকেই তাকিয়ে গোটা রাজ্য। হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু, অমানবিক এটিএমের লাইন নোটের এই আকালে টাকা তোলার মরিয়া চেষ্টা কি মানুষকে অমানবিক করে দিচ্ছে? এই প্রশ্ন উঠছে কারণ, চোখের সামনে এক মাঝবয়সি লোককে যন্ত্রণায় ছটফট করতে দেখেও এটিএমের সামনের লাইনে দাঁড়ানো জনা পনেরো মানুষের কেউ একটুও বিচলিত হলেন না। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন না কেউ। অথচ তাঁদের সঙ্গেই লাইন দিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন ওই ভদ্রলোক। নোট বাতিলের ঠিক আগে দমদমে চার কোটি টাকায় অমিত শাহের নামে জমি নোট বাতিলের আগে বিহার, রাজস্থানের মতো এ রাজেও জমি-বাড়ি কেনায় উদ্যোগী হয় বিজেপি। দমদমে বিমানবন্দর থেকে ১০ মিনিট দূরে বেলঘড়িয়া এক্সপ্রেসওয়ের ধারে চার কোটি টাকা খরচ করে ১৬ কাঠা জমি, বারুইপুরে পুকুরসহ তিনতলা বাড়ি কেনার কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে। বীরভূম, বর্ধমান ও বাঁকুড়াতেও জমি চিহ্নিত হয়েছে। কোথাও অগ্রিম দেওয়া হয়েছে। কোথাও পাকা কথা হয়ে গিয়েছে। জমি কেনার কথা স্বীকার করে বিজেপি’র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, আমরা প্রতিটি জেলায় আধুনিক পার্টি অফিস তৈরি করার জন্য একবছর আগে থেকেই জমি দেখছিলাম। বিধানসভা নির্বাচন চলে আসায় তা একটু থমকে যায়।

    ei samay

    ফের ‘গরিব দরদি’ মোদি এমন একটা লাইন শুরু করেছি, যা লাইনে দাঁড়ানোয় ইতি টেনে দেবে ৷ মাসের শুরুতেই ফাঁকা পকেটে ব্যাঙ্ক এটিএম এর সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে য়খন নাজেহাল দেশের মানুষ, তখন নিজের সিদ্ধান্তের সপক্ষে জনমত টানতে মুলায়ম-মায়াবতীর রাজ্যে গিয়ে এ রকমই দাবি করলেন প্রধানমন্ত্রী ৷ সেনা তরজায় মমতা-ত্রিপাঠী সংঘাত চলছে নরেন্দ্র মোদী বনাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ৷ এবার তাতে জড়িয়ে পড়লেব রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীও ৷ সেনা মোতায়েন বিতর্ক মুখ্যমন্ত্রীর নাম না করে রাজ্যপাল বলেন, ‘সেনাবাহিনীর মতো দায়িত্বশীল সংস্থার বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ তোলার আগে প্রত্যেকেরই সতর্ক হওয়া উচিৎ ৷ এ রাজ্যে নোট নেই, অন্য রাজ্যের CM ফোন করতেই পৌঁছে গেল ২৪২০ কোটি! সাধারণ মানুষের সমস্যা নিয়েও রাজনীতির ‘নোংরামি’! পশ্চিমবঙ্গ-সহ গোটা  দেশ যখন টাকার সমস্যায় নাজেহাল, তখন দুটি চাটার্ড বিমানে একটি নির্দিষ্ট রাজ্যে পৌঁছে গেল ২ হাজার ৪২০ কোটি টাকা, যাতে সেই রাজ্যের মানুষের কোনও অসুবিধা না হয় ৷ সেনা-কাণ্ডে রাজ্যকে সতর্ক রাজ্যপালের, পালটা তোপ তৃণমূলের সেনা কাণ্ড নিয়ে এবার নাম না করে রাজ্যকে সতর্ক করলেন রাজ্যপাল কেশরী নাথ ত্রিপাঠী ৷ এদিকে, রাজ্যপালের মন্তব্যের পর পরই ট্যুইটারে তাঁকে আক্রমণ করেন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন ৷

    First published:

    Tags: Bengali News, ETV News Bangla, Morning Daily, Morning Digest, Morning Headlines, Morning Newspapers, Sunday Headlines

    পরবর্তী খবর