• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • STATE IS NOT GOING TO DIVISION BENCH FOR TIME BEING CHALLENGING THE VERDICT ON APPOINTMENT OF UPPER PRIMARY TEACHERS ED

চাকরিপ্রার্থীদের জন্য বড় খবর, উচ্চ প্রাথমিকের রায়কে মান্যতা, নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু কমিশনের, জেনে নিন বিশদে

এদিন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সঙ্গে বৈঠকে বসেন এসএসসির আধিকারিকরা।

এদিন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সঙ্গে বৈঠকে বসেন এসএসসির আধিকারিকরা।

  • Share this:

#কলকাতা: চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর ৷ আপাতত উচ্চপ্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে নতুন কোনও মামলা নয় ৷ হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে আপাতত ডিভিশন বেঞ্চে যাচ্ছে না রাজ্য।

উচ্চ প্রাথমিকের রায় নিয়ে রাজ্যের পরবর্তী অবস্থান এবং পদক্ষেপ কী হবে তা নিয়েই সোমবার আলোচনায় বসেছিল রাজ্য-স্কুল সার্ভিস কমিশন ৷ একইসঙ্গে এদিন আইনজীবীদের সঙ্গেও পরামর্শ করে রাজ্য ৷ তারপরই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় আপাতত ডিভিশন বেঞ্চে নতুন করে এই রায় নিয়ে কোনও আপিল করার পথ নিচ্ছে না কমিশন ৷

সিঙ্গল বেঞ্চের রায়কে মান্যতা দিয়েই ৪ জানুয়ারি থেকেই ভেরিফিকেশন শুরু করতে চলেছে এসএসসি। এদিন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সঙ্গে বৈঠকে বসেন এসএসসির আধিকারিকরা। আপাতত ভেরিফিকেশন পর্ব শুরু করুক এসএসসি। প্রয়োজনীয় পরিস্থিতি দেখে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে নেওয়া হবে। সোমবার বৈঠকে স্কুল সার্ভিস কমিশনের আধিকারিকদের এমনই বার্তা দেন শিক্ষামন্ত্রী বলে স্কুল শিক্ষা দফতর সূত্রে খবর ৷

উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগ প্রক্রিয়া দ্রুত শুরু করার পক্ষপাতী রাজ্য ৷ ডিভিশন বেঞ্চে গেলে নিয়োগ প্রক্রিয়া আরো সময় লাগবে। তাই সিঙ্গেল বেঞ্চের রায়কে মান্যতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত সরকারের। সূত্রের খবর, ২১-এর বিধানসভা ভোটের আগেই উচ্চপ্রাথমিকের নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করতে চাইছে রাজ্য ৷

শুক্রবার বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্যের সিঙ্গল বেঞ্চের ঐতিহাসিক রায়ে খারিজ হয়ে যায় আপার প্রাইমারিতে ১৪ হাজারের বেশি শিক্ষকের শূন্যপদে নিয়োগ প্রক্রিয়া ৷ নিয়োগে অস্বচ্ছতা আর বেনিয়মের অভিযোগে সিলমোহর দেয় আদালত। প্যানেল থেকে শুরু করে মেরিট লিস্ট সবই বাতিল। একইসঙ্গে দ্রুত নতুন করে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরুর নির্দেশ দেন বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্য ৷

আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী, ৪ জানুয়ারির মধ্যেই কাউন্সেলিং, ডকুমেন্ট জমা নেওয়ার কাজ শুরু করে দিতে হবে ৷ শুধু তাই নয়, এপ্রিলের মধ্যে প্রক্রিয়া শেষ করতেই হবে বলে জানিয়েছে আদালত ৷ ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে চূড়ান্ত মেধাতালিকা প্রকাশের নির্দেশ দিলেন বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্য ৷ অর্থাৎ আগামী আট সপ্তাহের মধ্যে নতুন করে মেরিট লিস্ট প্রকাশ করতে হবে কমিশনকে ৷ সম্পূর্ণ নিয়োগ ১০ মে ২০২১ সালের মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট ৷ করোনা আবহে ভার্চুয়াল প্রক্রিয়ায় জোর দিতে পারে কমিশন বলেও জানিয়েছে আদালত ৷

অন্যদিকে এতদিন ধরে অপেক্ষার পরও নিয়োগ আটকে যাওয়ায় অনিশ্চত হয়ে পড়ে চাকরিপ্রার্থীদের ভবিষ্যত। ২০১৬-র SSC-র বিজ্ঞপ্তি দেখে আবেদন করেছিলেন এক লক্ষ আশি হাজারের বেশি চাকরিপ্রার্থী। চার বছর ইতিমধ্যে কেটে গেছে, আর কত দিন লাগবে চাকরি পেতে? রায়ের পর সে প্রশ্নও তোলেন অনেকে? এই পরিস্থিতিতেই সিদ্ধান্ত নিল শিক্ষা দফতর।

হাইকোর্ট নিজের পর্যবেক্ষণে জানিয়েছে নিয়োগের মূল নিয়মগুলিই মানা হয়নি ৷ ২০১৬ সালে কমিশনের প্রকাশিত মেরিট লিস্ট স্বচ্ছ নয় ৷ প্যানেলে একাধিক দুর্নীতি রয়েছে বলে মত আদালতের ৷ প্রশিক্ষিত না হওয়া সত্ত্বেও যাদের নেওয়া হয়েছিল তাদের বাদ দিতে হবে বলে জানানো হয়েছে ৷ শুধু মাত্র যোগ্যরাই যেন বিবেচিত হয় বলে জানিয়েছে আদালত ৷ যা অভিযোগ ছিল হাজার হাজার হাজার মামলাকারীর ৷ ২০১৬ এই টেট নিয়ে প্রায় ২০০০ আলাদা মামলা দায়ের হয় আদালতে ৷

Somraj Bandopadhyay

Published by:Elina Datta
First published: