Priyadarshini Hakim : বাবাকে ফেরালেন, একটানা যুদ্ধ শেষে চোখে জল, মুখে হাসি ফিরহাদ কন্যার!

একটানা লড়ে স্বস্তির হাসি প্রিয়দর্শিনীর নিজস্ব চিত্র

সবে শেষ হয়েছে খুশির ইদ। হাতে মেহেন্দির রং এখনও গাঢ়। অথচ তার মধ্যেই পরিবারে নেমে এসেছে এক উদ্বেগ, অস্থিরতা। দিদি সাবা হাকিমের সঙ্গে সেই অস্থিরতাই সামাল দিচ্ছিলেন ফিরহাদ (Firhad Hakim) কন্যা প্রিয়দর্শিনী (Priyadarshini Hakim)।

  • Share this:

    #কলকাতা : গাড়ির জানলা দিয়েই মুখ বাড়ালেন প্রিয়দর্শিনী (Priyadarshini Hakim)। ঈষৎ চিন্তিত মুখে কোথাও যেন ছুঁয়ে যাচ্ছিল স্বস্তির হাসি। নিজে মুখে স্বীকারও করলেন কর্পোরেট কম্যুনিকেশন নিয়ে কাজ করা স্মার্ট, সপ্রতিভ মেয়েটি। বললেন, "মানসিক ভাবে কিছুটা ভাল লাগছে।  যশ ও কোভিড নিয়ে বাবা অত্যন্ত চিন্তিত। বাবার (Firhad Hakim) শরীর খারাপ। সবাইকে অনুরোধ এমন কিছু করবেন না যাতে বাবা অসুস্থ হন।"

    ফিরহাদ হাকিমের চেতলার বাড়িতে CBI -এর চড়াও হওয়া, সেখান থেকে নিজাম প্যালেস, ব্যাঙ্কশাল কোর্ট, হাইকোর্ট, প্রেসিডেন্সি জেল--- গত পাঁচদিন একের পর এক ঘটনা প্রবাহে এক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, এক প্রভাবশালী মন্ত্রীর পাশাপাশি তাঁর মেয়েকেও দেখছিল বাংলার মানুষ। সবে শেষ হয়েছে খুশির ইদ।  হাতে মেহেন্দির রং এখনও গাঢ়। অথচ তার মধ্যেই পরিবারে নেমে এসেছে এক উদ্বেগ, অস্থিরতা। দিদি সাবা হাকিমের সঙ্গে সেই অস্থিরতাই সামাল দিচ্ছিলেন প্রিয়দর্শিনী। কখনও সংবাদ মাধ্যমের সামনে কখনও দলীয় সমর্থকদের মধ্যে কথা বলতে দেখা গিয়েছে তাঁকে।

     প্রেসিডেন্সি ছাড়লেন ফিরহাদ কন্যা প্রেসিডেন্সি ছাড়লেন ফিরহাদ কন্যা

    কখনও টেলিভিশনের পর্দায়। কখনও সোশ্যাল মিডিয়ায় মেয়ে প্রিয়দর্শিনী হাকিম মুখর হয়েছেন বাবা ফিরহাদ হাকিমের জামিনের দাবিতে। উদ্বেগে ছুটে এসেছেন নিজাম প্যালেস। আবার হাত জোর করে দাঁড়িয়েছেন উত্তেজিত তৃণমূল সমর্থকদের সামনে। অনুরোধ করেছেন, শান্ত হওয়ার। হাইকোর্টের রায়ে বাবা ফিরহাদ হাকিম সহ চার নেতার জামিন মঞ্জুর না হলেও মুক্তি হয়েছে। সেই সময়ও আবেদনের সুর শোনা গেল ফিরহাদ কন্যার গলায়, " সবাই বাড়ি চলে যান। ভিড় করবেন না। বাবা এখনও পুরো জামিন পাননি। আপাতত সুপ্রিম কোর্টে ক্যাভিয়েট দাখিল করা হচ্ছে।"

    প্রসঙ্গত, নারদ মামলায় জামিন পাননি ফিরহাদ হাকিম ও অন্য তিন হেভিয়েট নেতা। শুক্রবারই নারদ মামলায় ধৃত চার নেতাকে জেল হেফাজত থেকে বের করে গৃহবন্দি করে রাখার নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট৷ পাশাপাশি, চার নেতার জামিনের বিষয়টি বৃহত্তর বেঞ্চে পাঠিয়েছে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ৷ বলা হয়েছে বৃহত্তর বেঞ্চ রায় না দেওয়া পর্যন্ত চার নেতাকে গৃহবন্দি থাকতে হবে৷ এবার এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে সিবিআই৷ পাল্টা আইনি লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন চার নেতাও৷ সূত্রের খবর, সিবিআই সুপ্রিম কোর্টে গেলে যাতে তাঁদের বক্তব্যও শোনা হয়, সেই জন্য শীর্ষ আদালতে ক্যাভিয়েট দাখিল করে রাখছেন সুব্রত- ফিরহাদরা৷ যদিও আদালত এদিন এও জানিয়েছে বাড়ি থেকে ভার্চুয়ালি সরকারি কাজ করতে পারবেন ফিরহাদ, সুব্রত এবং মদন৷

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: