corona virus btn
corona virus btn
Loading

সংক্রমণ থেকে বাঁচাতে চিকিৎসক থেকে স্বাস্থ্যকর্মী, সাফাইকর্মীদের সরঞ্জাম বিলি

সংক্রমণ থেকে বাঁচাতে চিকিৎসক থেকে স্বাস্থ্যকর্মী, সাফাইকর্মীদের সরঞ্জাম বিলি

আশঙ্কার কথা মাথায় রেখেই এখানকার সাফাইকর্মী দের হাতে তুলে দেওয়া হল পিপিই এবং অন্যান্য সামগ্রী।

  • Share this:

#কলকাতা : হু হু করে বাড়ছে সংক্রমণ। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৷ পাল্লা দিয়েছে বাড়ছে মৃতের তালিকাও ৷ তার মাঝেই সুস্থ হয়েও বাড়ি ফিরছে অনেকে ৷ একদিকে যখন প্রায় প্রতিদিনই রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। করোনার ছোবলে মৃত্যর ঘটনাও ঘটছে। তখন আশার আলো দেখাচ্ছেন অনেকেই।  করোনা আক্রান্ত হওয়া মানেই যে মৃত্যু তা নয়, এমনটাই বলছেন রোগী দেখে চিকিৎসকরা। আক্রান্ত হয়েও যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরা যায় তার সাম্প্রতিক উদাহরণও আছে কলকাতা সহ রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। তবে  রেড জোন, কনটেইনমেন্ট এলাকা হওয়া সত্বেও লকডাউনকে উপেক্ষা করেই কলকাতাতে অনেক মানুষ আজ রাস্তায় নামছেন।  এই ছবিও বর্তমান।

সামাজিক দূরত্বের নির্দেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে হাটে বাজারে চলছে বিকিকিনি। সরকারের তরফ থেকে ফেস কভার বা মাস্ক মাস্ট করা হলেও অনেকেই আজও বেপরোয়া। বিভিন্ন ভাবে সরকারি স্তরে সচেতনতামূলক প্রচার । আবেদন। পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকিং । সবই  চলছে জোর কদমে। তবু আইন ভাঙাটাই এখন আইন হয়ে দাঁড়িয়েছে অনেকের কাছেই। আর এখান থেকেই সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা। কলকাতা পুরসভার 107 নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্গত কসবা  এলাকা। স্থানীয় কাউন্সিলর সুশান্ত ঘোষ এবং একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার তরফ থেকে সংক্রমণের  আশঙ্কার কথা মাথায় রেখেই এখানকার সাফাইকর্মী দের হাতে তুলে দেওয়া হল পিপিই এবং অন্যান্য সামগ্রী। যেহেতু এই সমস্ত সাফাইকর্মীরা নিয়ম করে বাজারহাট পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার কাজে যুক্ত রয়েছেন। এমনকী রাস্তাঘাটও নিয়ম করে প্রতিদিন সাফাইয়ের কাজ করছেন।

তাই তাঁদের যাতে কোনও ভাবে  শরীরে করোনা থাবা বসাতে না পারে সে কারণেই পিপিই  প্রদানের ভাবনা। এদিন পিপিই হাতে  পাওয়ার  সঙ্গে সঙ্গেই কাশেম মল্লিক,  রঞ্জিত দাসদের মতো আরও অনেক সাফাই কর্মীকেই দেখা যায় সেই পার্সোনাল প্রটেকশন ইকুইপমেন্ট বা  পিপিই  পড়ে সাফাইয়ের কাজ করছেন। অন্যদিকে মেডিকেল কলেজ ও আরজি করের  কয়েকজন প্রাক্তনী মিলে যাঁরা এই সময়ে শহরের নামজাদা চিকিৎসক তাঁদের উদ্যোগে চিকিৎসক , স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য যাঁরা করোনা যুদ্ধে সামনে থেকে লড়াই চালাচ্ছেন। যাদের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি তবুও সেই সমস্ত মানুষজন ভয়কে দূরে সরিয়ে রেখে আক্রান্ত হওয়া মানুষজনকে দিনরাত এক করে পরিষেবা দিয়ে সুস্থ করে তোলার জন্য অনবরত সেই সমস্ত চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন। তাঁদের সুরক্ষার কথা ভেবে সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতাল ঘুরে ঘুরে  পিপিই কিট ,এন 95 মাস্ক সহ অন্যান্য সুরক্ষা সরঞ্জাম  তুলে দেওয়া হল কলকাতা শহরের বেশ কিছু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হাতে। আগামী দিনে জেলায় জেলায়ও এই পরিষেবা প্রদান করা হবে বলে জানান সেই চিকিৎসক দলের অন্যতম সদস্য চিকিৎসক অনির্বাণ দোলুই।  VENKATESWAR  LAHIRI

First published: May 2, 2020, 9:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर