কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘বন্ধু দেখা হবে’, গেরুয়া রঙের টেমপ্লেটে বিক্ষুব্ধ শীলভদ্রের ইঙ্গিতপূর্ণ পোস্ট

‘বন্ধু দেখা হবে’, গেরুয়া রঙের টেমপ্লেটে বিক্ষুব্ধ শীলভদ্রের ইঙ্গিতপূর্ণ পোস্ট

সম্প্রতিই ব্যারাকপুরের বিধায়ক ঘোষণা করেছিলেন, আগামী বিধানসভা নির্বাচনে তিনি লড়বেন না ৷

  • Share this:

#ব্যারাকপুর: বাংলার রাজনীতি সরগরম তৃণমূলের দুই বিক্ষুব্ধ বিধায়ককে নিয়ে ৷ সকালে শুভেন্দুর বিস্ফোরক মেসেজের ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই ব্যারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র দত্তের ইঙ্গিতপূর্ণ ফেসবুক পোস্টে ফের নয়া জল্পনার শুরু ৷ সম্প্রতিই ব্যারাকপুরের বিধায়ক ঘোষণা করেছিলেন, আগামী বিধানসভা নির্বাচনে তিনি লড়বেন না ৷

শুভেন্দু অধিকারী মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পরই ব্যারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র দত্তের মান ভাঙাতে উদ্যোগী হয় তৃণমূল কংগ্রেস ৷ পিকে টিম ও পরে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক গিয়েও লাভ হয়নি ৷ পিকে টিমের সঙ্গে দেখা হলেও খাদ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা হয়নি শীলভদ্রের দত্তের ৷ তিনি বাড়িতে না থাকায় বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেই ফিরে আসতে হয় জ্যোতিপ্রিয়কে৷ এই চিত্র অনেককেই কয়েকদিন আগের এক ঘটনা মনে করিয়ে দিয়েছে ৷ যখন মিহির গোস্বামীকে বোঝানোর দায়িত্ব নিয়ে তাঁর বাড়ি পৌঁছেও দেখা পাননি রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ৷ খালি হাতেই ফিরতে হয় বিধায়ককে ৷ সম্প্রতি দিল্লি গিয়ে বিজেপিতে যোগ দেন বিধায়ক মিহির গোস্বামী ৷

গতকাল বর্ষীয়ান তৃণমূল বিধায়কের সঙ্গে কথা বলতে তাঁর বাড়ি যান টিম পিকে-র দুই সদস্য ৷ তাতেও খানিক অসন্তুষ্ট হন বরিষ্ঠ রাজনীতিবিদ ৷ বলেন, 'পিকে-র দলের কাজকর্ম আমার পছন্দ হয়নি৷ দলের নেতারা এলে অনেক ভাল হত৷ তবে এটা তাঁদের ব্যাপার৷ দল যাঁদের দায়িত্ব দিয়েছে, তাঁরাই এসেছেন৷ যেটা আগে বলেছি সেখান থেকে পিছিয়ে আসার জায়গা নয় ৷'

একই সঙ্গে অবশ্য তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছেন, দলের নেতারা এলেও তাঁর সিদ্ধান্ত থেকে তিনি সরবেন না৷ ব্যারাকপুরের বিধায়কের দাবি, তাঁর কোথায় সমস্যা হচ্ছে সে সম্পর্কে দলীয় নেতৃত্বকে অনেক দিন ধরেই জানিয়ে আসছিলেন ৷ তাঁর কথায়, ‘এই আসাটা আরও আগে হলে ভাল হত৷’ এরপরই ব্যারাকপুরের বিধায়কের বাড়ি আসেন খাদ্যমন্ত্রী ৷

খাদ্যমন্ত্রী অবশ্য দাবি করেন, শীলভদ্র দত্ত রাজনৈতিক সহকর্মী ছাড়াও তাঁর দীর্ঘদিনের বন্ধু৷ তাঁদের প্রায় ৪৫ বছরের পরিচয়৷ রাজনৈতিক কোনও কারণ নয়, এ দিন এমনিই তিনি শীলভদ্র দত্তের খোঁজ নিতে গিয়েছিলেন বলে দাবি করেন জ্যোতিপ্রিয়৷ খাদ্যমন্ত্রী বলেন, 'ছাত্র রাজনীতি করার সময় থেকে ওর সঙ্গে আমার পরিচয়৷ নিয়মিত ফোনেও কথা হয়৷ এ দিক দিয়ে যাচ্ছিলাম বলে আমি জানিয়েছিলাম যে আসব৷'

শীলভদ্র দত্ত জানতেন জ্যোতিপ্রিয় আসবেন৷ তার পরেও এ দিন বাড়িতে ছিলেন না তিনি৷ জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক এসে ফোন ব্যারাকপুরের বিধায়কের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করলেও ফেরেননি শীলভদ্র৷ বিধায়কের বোন জানান, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক এলে তাঁকে চা খাওয়াতে বলে গিয়েছেন শীলভদ্রবাবু৷ সব কিছু দেখে শুনে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঘর সামলাতে নাজেহাল ঘাসফুল শিবির ৷ বিক্ষুব্ধ বিধায়কেরা কোনপথে হাঁটবেন জানতে এখন কয়েকদিন অপেক্ষা করতে হবে বলে মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ৷

Published by: Elina Datta
First published: December 2, 2020, 6:14 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर