• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • NADIA WOMAN SUFFERING FROM KIDNEY PROBLEM ADMITTED IN NRS HOSPITAL KOLKATA AFTER A LONG JOURNY SB

Kolkata News: তেহট্ট থেকে কলকাতা, তিন হাসপাতাল ঘুরে NRS-এ ঠাঁই আন্নার! শেষরক্ষা হবে?

জীবনযুদ্ধে আন্না হালদার

Kolkata News: এই মুহূর্তে রোগী ভর্তি রয়েছে এনআরএস এর ইমারজেন্সি বিভাগে। সামান্য চিকিৎসা শুরু হলেও যথেষ্ট আশঙ্কায় এবং ভয়ে রয়েছেন আন্নার স্বামী বিশ্বজিৎ ও পরিবারের লোকেরা।

  • Share this:

#কলকাতা: আবার রোগী রেফার রোগ শহরের বড় হাসপাতাল গুলির। দুটি কিডনি বিকল রোগীকে নিয়ে সকাল থেকে আরজিকর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে আরম্ভ করে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল হয়ে এনআরএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল।সমস্ত জায়গাতে হয়রানি ছাড়া আর কিছু জোটেনি রোগীর বাড়ির আত্মীয়দের। আন্না হালদারের (৩০)বাড়ি নদীয়ার তেহট্টে। বেশ কিছুদিন অসুস্থ ছিল।স্থানীয় ডাক্তারকে দেখিয়ে কোন লাভ হয়নি। গতকাল আন্নাকে নিয়ে তাঁর স্বামী এবং আত্মীয়রা কল্যাণীর একটি বেসরকারি নার্সিং হোমে নিয়ে ভর্তি করে।

ওই নার্সিংহোমে ডাক্তাররা জানায় আন্নার দুটি কিডনিই বিকল। ডায়ালাইসিসের প্রয়োজন রয়েছে।স্বামী বিশ্বজিৎ হালদার কৃষি মজুর।সর্বসাকুল্যে মাসে ৭ হাজার টাকা রোজগার। দুটি বিকল কিডনির চিকিৎসা ভার বেসরকারি জায়গায় রেখে তাঁর দ্বারা করা সম্ভব নয়। তাই কল্যাণী থেকে কলকাতা সরকারি হাসপাতালে উদ্দেশ্যে অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে রওনা দেয়।   সকাল এগারোটায় আরজিকর হাসপাতালে ইমারজেন্সিতে আন্নাকে নিয়ে আসে।সেখানে তিন থেকে চার ঘণ্টা রোগী ফেলে রাখে ডাক্তাররা।বেলা তিনটে নাগাদ ওই হাসপাতাল থেকে মেডিক্যাল হাসপাতালে রেফার করে।সেখান থেকে নিয়ে যায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।সেখানেও শয্যা নেই বলে ফিরিয়ে দেয়।

তারপর বেলা পাঁচটা নাগাদ পৌঁছায় নীলরতন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।   নীলরতন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামিয়ে রোগীকে নিয়ে যাওয়ার জন্য কোন ভাবে ট্রলি দিতে চায়নি ট্রলিম্যানরা। কারণ দুশো টাকা না দিলে ট্রলি তাঁরা দেয় না। ডাক্তার ট্রলির জন্য লিখে দিলেও তারা বলে দেয় ট্রলি নেই।  এই মুহূর্তে রোগী ভর্তি রয়েছে এনআরএস এর ইমারজেন্সি বিভাগে। সামান্য চিকিৎসা শুরু হলেও যথেষ্ট আশঙ্কায় এবং ভয়ে রয়েছেন আন্নার স্বামী বিশ্বজিৎ ও পরিবারের লোকেরা।তার ওপর সকাল থেকে অ্যাম্বুলেন্স সঙ্গে থাকার জন্য ,ভাড়া মোটামুটি পাঁচ হাজার টাকায় দাঁড়িয়েছে। বিশ্বজিতের বক্তব্য, সারাদিন অনেক খরচ হল, এখনও রোগীর চিকিৎসা শুরু হল না। কলকাতায় থেকে এখন চিকিৎসা করানো  করাতে পারবে কিনা?সেটা নিয়ে সংশয়।এখনো হাসপাতালে শয্যা পায়নি।আগের হাসপাতালের মত কয়েক ঘণ্টা রেখে ফেরত দিলে,তখন কোথায় নিয়ে যাবে!

Published by:Suman Biswas
First published: