• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • MITHUN CHAKRABORTY RELIEVED BY KOLKATA HIGH COURT JUDGE COMMENT ON DIALOGUE ISSUE SMJ

Mithun Chakraborty: 'আমি জাত গোখরো...'! ডায়ালগ নিয়ে যত ঝামেলা, বিচারপতির মন্তব্যে আপাতত স্বস্তিতে মিঠুন চক্রবর্তী

ভোট পরবর্তী অশান্তি ছড়ানোর সঙ্গে মিঠুন চক্রবর্তীর ডায়ালগের সম্পর্ক থাকতে পারে না। প্রাথমিকভাবে কলকাতা আদালত এটাই মনে করে।

ভোট পরবর্তী অশান্তি ছড়ানোর সঙ্গে মিঠুন চক্রবর্তীর ডায়ালগের সম্পর্ক থাকতে পারে না। প্রাথমিকভাবে কলকাতা আদালত এটাই মনে করে।

  • Share this:

#কলকাতা:

জনপ্রিয় ডায়ালগে হিংসা ছড়ায়!

শোলের ছবির আমজাদ খান থেকে আজ পর্যন্ত হাজার হাজার জনপ্রিয় সিনেমার ডায়ালগ তৈরি হয়েছে। মিঠুন চক্রবর্তীর ডায়ালগটিও জনপ্রিয়। মিঠুন নিজেই স্বীকার করে নিয়েছেন, তিনি ওই ডায়ালগ বলেছেন। এরপর  তদন্তের আর কী বাকি থাকে? ভোট পরবর্তী অশান্তি ছড়ানোর সঙ্গে মিঠুন চক্রবর্তীর এই ডায়ালগের সম্পর্ক থাকতে পারে না। প্রাথমিক ভাবে আদালত এমনটাই মনে করে। শুধু ডায়ালগে ভোট পরবর্তী অশান্তি তৈরি হয়েছে, এটা ঠিক নয়। ব্রিগেড সমাবেশে তিনি বলেছিলেন সেই ডায়ালগ। স্বীকারও করে নিয়েছেন। এরপরে আর কোনও তদন্ত প্রসঙ্গ আসতে পারে কি? মুখ্য সরকারি কৌঁসুলির উদ্দেশ্যে এমন মন্তব্য করেন বুধবার বিচারপতি কৌশিক চন্দ।

বিচারপতির এমন পর্যবেক্ষণের পাল্টা দেন মুখ্য সরকারি কৌঁসুলি শাশ্বত গোপাল মুখোপাধ্যায়। হতে পারে মিঠুন চক্রবর্তীর ডায়ালগ জনপ্রিয়।  মিঠুন চক্রবর্তী ডায়ালগ বলার পর নির্বাচন পরিস্থিতিতে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। মিঠুন একজন সাধারণ মানুষ নন। এটা আদালতকে বুঝতে হবে।  শুধু ব্রিগেড সমাবেশ মাঠে নয়, আরও কিছু জায়গায় মন্তব্য করেছিলেন তিনি। তথ্য পুলিশের হাতে এসেছে। পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে তথ্য পেশ করতেই বিষয়টি আদালতগ্রাহ্য অপরাধ বলে গণ্য হয়েছে। তদন্ত চলছে, মিঠুনের কাছে পুলিশ শুধু কিছু প্রশ্নের উত্তর চায়, তাও ভার্চুয়াল মোডে। আদালত এটা মঞ্জুর করুক। এর বেশি বা  কম কোনওটাই চাইছে না পুলিশ। ভোটপর্বে বাঙালি বাবুকে নিয়ে জনতার আবেগ ছিল বাঁধন ছাড়া।সেই সময় জনতার আবদার মেটাতে তাঁকে বলতে দেখা যায় জনপ্রিয় ডায়ালগ।

মারব এখানে লাশ পরবে শ্মশানে... বালিবোরা নয় জলঢোরা নয়...এই ডায়লগ গুলি নিয়েই বিতর্ক। বিধানসভা নির্বাচন পর্বে ২৫ মার্চ থেকে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত বিজেপি প্রার্থীদের হয়ে প্রচার করেন মহাগুরু। সেই সময় মিঠুন চক্রবর্তী বিভিন্ন সভামঞ্চে ঘুরেফিরে এসেছে ডায়ালগগুলি।ভোটপর্ব মিটতেই ৬ মে মানিকতলা থানায় এফআইআর রুজু হয়। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতীয় দন্ডবিধির ১৫৩এ, ৫০৪,৫০৫ ধারায় এফআইএর রুজু হয়। হিংসা ছড়ানো, শান্তি নষ্টের চেষ্টার মতো অভিযোগ করা হয়। এই এফআইআর খারিজ চেয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন মিঠুন চক্রবর্তী। মিঠুনের আইনজীবী বিকাশ সিং ও স্যামসন কুরিয়ার জানান,  "২০১৪ সালে কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে শাহরুখ খান সহ একাধিক তারকার উপস্থিতিতে এমনই ডায়ালগ বলেন মিঠুন চক্রবর্তী। মঙ্গলবার মামলাটি শুনানির জন্য রাখা হয়েছে। আদালতের ওপর আশাবাদী আমরা।" রিলের নায়ক কী পারবেন বাস্তবের আইনের চাকা ঘোরাতে! উত্তর দেবে ভবিষ্যৎ।

Published by:Suman Majumder
First published: