Home /News /kolkata /
Mamata Banerjee: "১৪ দিনের ধর্না, ২৬ দিনের অনশন..." সিঙ্গুরে আবেগে ভাসলেন মমতা!

Mamata Banerjee: "১৪ দিনের ধর্না, ২৬ দিনের অনশন..." সিঙ্গুরে আবেগে ভাসলেন মমতা!

স্মৃতিতে সিঙ্গুর আন্দোলন, আবেগে মমতা!

স্মৃতিতে সিঙ্গুর আন্দোলন, আবেগে মমতা!

Mamata Banerjee: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুজো দিলেন সন্তোষী মায়ের মন্দিরে। নিজ হাতে প্রসাদ খাওয়ালেন বাচ্চাদের। 

  • Share this:

আবির ঘোষাল 

#সিঙ্গুর : সিঙ্গুরের বাজেমেলিয়া গ্রামে পুজো দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উদযাপন করলেন ব্রত। প্রসাদ বিতরণ করলেন শিশুদের নিজ হাতে। মন্দিরে এসে পুজো দিয়ে, আন্দোলনের সাথী গ্রামবাসীদের দেখে এদিন দৃশ্যতই আবেগতাড়িত ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)।

নিজের বাড়িতে কালীপুজো করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে, এমনকি রাজনৈতিক সভাতেও মন্ত্র উচ্চারণ করতে শোনা গিয়েছে তাঁকে। তবে শীতলা মন্দিরে গিয়ে তিনি জানিয়েছিলেন মা শীতলার মন্ত্র তাঁর শেখা হয়নি। তাই ‘ওম সর্বমঙ্গলা মঙ্গল্যে’ মন্ত্রই পাঠ করলেন তিনি। বৃহস্পতিবার ভবানীপুরে কাঁসারি পাড়ায় শীতলা মন্দিরে পুজো উপলক্ষে গিয়েছিলেন মমতা  (Mamata Banerjee)। বেনারসী শাড়ি, সোনার ঝাঁটা দিয়ে পুজোও দেন তিনি।

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছে, এই শীতলা মন্দিরে তিনি প্রায়ই আসেন। সিঙ্গুরে (Singur Andolon) জমি আন্দোলনের সময় যখন অনশনে বসেছিলেন মমতা তখন সন্তোষী মায়ের ব্রত শুরু করেছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি। কৃষকরা জমি ফিরে পেলে একটা ছোট্ট মন্দির বানিয়ে দেওয়ার কথা ভেবেছিলেন। সেই মত মন্দিরও গড়ে দেন তিনি। শুক্রবার সেই মায়ের মুখ দেখতে ও ব্রত উদযাপন করতে এদিন আসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  (Mamata Banerjee)।

আরও পড়ুন: বড় খবর! অনলাইন নয়, Offline-এই হবে পরীক্ষা, জানিয়ে দিল কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়

আরও পড়ুন: যত ইচ্ছে Luggage নিয়ে ট্রেনযাত্রা আর নয়! নতুন নিয়ম চালু করল ভারতীয় রেল! জানুন...

সিঙ্গুরের (Singur) এই মন্দির নিয়ে তিনি বলেন,"১৪ দিন এখানে ধর্ণা ও ২৬ দিন কলকাতায় অনশন। আমাকে ২৫ সেপ্টেম্বর বিডিও অফিস থেকে মারধর করে বার করা হয়। আমার রক্তক্ষরণ হচ্ছিল। এমনকি ডানকুনিতে রাত ১'টায় আমার ওপর অকল্পনীয় অত্যাচার হয়েছিল। সিঙ্গুরের (Singur Andolon) মানুষের অদম্য সাহস ছিল, তারা আমার পাশে সব সময় ছিলেন। এদিন পুরনো দিনের কথা, আন্দোলনের সময়ের কথা বারবার উঠে এসেছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলায়। তিনি বলেছেন, সিঙ্গুরের মাতঙ্গিনী হাজরা আমার সঙ্গে থাকত। স্বপন দেবনাথ, শুভাশিস বটব্যাল ফসল নিয়ে আসত। ১৪'টি ক্যাম্প করে ছিলাম আমরা। প্রতিদিন আমি ক্যাম্পের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতাম।

সিঙ্গুর আন্দোলন : মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  ফাইল ছবি সিঙ্গুর আন্দোলন : মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
ফাইল ছবি

কিন্তু কেন মন্দির সিঙ্গুরে? মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, বেচারাম মান্নাকে বলেছিলাম আমার ছোট জায়গা লাগবে। মা আমার কথা রেখেছে। কৃষি জমি আন্দোলনে জয় এসেছে। মানুষ জমি ফেরত পেয়েছে। আমি মানত করেছিলাম এখানে মন্দির করব। আমি সব ধর্ম গ্রন্থকে ভালোবাসি৷ ২০১৯ সালে মন্দির তৈরি হয়েছে। এবার মন্দির মন টানল। ১৬ সপ্তাহ ব্রত রাখলাম। বলেছিলাম বেচারাম মান্নাকে ঘটে জল রাখিস। আমি ব্রত উদযাপন করতে যাব। আমি বাচ্চাদের খাইয়ে উদযাপন করলাম। মাকে দেখতে, আপনাদেরকে দেখতে, প্রণাম জানাতে এখানে আমার আসা। এদিন মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর পরিবারের দুই সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: CM Mamata Banerjee, Singur Andolon

পরবর্তী খবর