৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল, মোদি সিদ্ধান্তের প্রবল সমালোচনায় বামেরা

৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল, মোদি সিদ্ধান্তের প্রবল সমালোচনায় বামেরা

কালো টাকা উদ্ধারে মোদির ঘোষণায় রাতারাতি বাতিল ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট ৷ পাক জঙ্গিদের পর দুর্নীতির বিরুদ্ধে মোদির সার্জিক্যাল স্ট্রাইক বলে বিজেপি প্রচার চালালেও কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের প্রবল বিরোধীতা করল বামেরা ৷

কালো টাকা উদ্ধারে মোদির ঘোষণায় রাতারাতি বাতিল ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট ৷ পাক জঙ্গিদের পর দুর্নীতির বিরুদ্ধে মোদির সার্জিক্যাল স্ট্রাইক বলে বিজেপি প্রচার চালালেও কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের প্রবল বিরোধীতা করল বামেরা ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: কালো টাকা উদ্ধারে মোদির ঘোষণায় রাতারাতি বাতিল ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট ৷ পাক জঙ্গিদের পর দুর্নীতির বিরুদ্ধে মোদির সার্জিক্যাল স্ট্রাইক বলে বিজেপি প্রচার চালালেও কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের প্রবল বিরোধীতা করল বামেরা ৷ সাধারণ মানুষদের দুর্ভোগে ফেলে সরকার কোন ভালো করতে চলেছেন প্রশ্ন বামপন্থীদের ৷

    সিপিআইএম-এর সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাটের মন্তব্য , ‘নির্বাচনের আগে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু থেকে সাধারণ মানুষের নজর ঘুরিয়ে দেওয়াই মোদি সরকারের লক্ষ্য’ ৷ মোদি সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন সূর্যকান্ত মিশ্রও ৷ কেন্দ্রের মোদি সরকারের সঙ্গে সার্কাসের তুলনা টেনে এই বাম নেতা বলেন, ‘সরকার নয়, সার্কাস চলছে ৷’ আগামী মরশুমে এই ইস্যুতে সংসদে প্রশ্ন তুলবে বামফ্রন্ট ৷

    মঙ্গলবার সন্ধেয় হঠাতই জাতির বিরুদ্ধে বার্তা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা করেন, মধ্যরাতের পর থেকে বাতিল হয়ে যাচ্ছে সমস্ত ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট ৷ একইসঙ্গে ঘোষণা করা হয় বুধবার ও বৃহস্পতিবার বন্ধ থাকবে সমস্ত ব্যাঙ্ক এবং এটিএম ৷ এরপরই প্রবল চাঞ্চল্য ছড়ায় দেশ জুড়ে ৷ কিছুক্ষণের মধ্যেই রির্জাভ ব্যাঙ্কের তরফ থেকে জানানো হয়, কালো টাকা আটকাতে বাজারে আসতে চলেছে নতুন নোট। নতুন ৫০০ ও ২,০০০ টাকা নিয়ে আসতে চলেছে সরকার ৷ তবে নতুন নোটের জন্য আর বেশিদিন অপেক্ষা করতে হবে না সাধারণ মানুষকে ৷ ১০ নভেম্বর অথার্ৎ বৃহস্পতিবার থেকে বাজারে পাওয়া যাবে নতুন ৫০০ ও ২,০০০ টাকার নোট ৷

    এই ঘোষণার পর থেকে চাঞ্চল্য ছড়ায় দেশ জুড়ে ৷ মধ্যরাতের আগেই নোট বদলাতে এটিএম-এ ছোটে সাধারণ মানুষ ৷ কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পর প্রবল বিরোধীতায় মুখর হয়ে ওঠেন বিরোধীরা ৷ প্রধানমন্ত্রীর এই পদক্ষেপের পর ক্ষোভে ফেটে পড়েন বামপন্থী নেতারা ৷ সিপিআইএম-এর সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাট বলেন, ‘সাধারণ মানুষের নজর ঘোরাতেই মোদির এই চাল ৷ নোট বাতিল করে দুর্নীতি থামানো যাবে না ৷ এই পদক্ষেপে জঙ্গিদের ফান্ডিং বন্ধ হবে না, কালো টাকাও ঘরে আসবে না, দুর্নীতিও বন্ধ হবে না ৷ শুধু দুর্ভোগে পড়বেন সাধারণ মানুষ ৷’ বাম নেতা সূর্যকান্ত মিশ্রও আরও একধাপ এগিয়ে মোদির সরকারের সমালোচনায় বলেন, ‘এটা সরকার নয়, সার্কাস চলছে ৷ এটা আইওয়াশ ছাড়া কিছু নয় ৷ মূল সমস্যা থেকে দৃষ্টি সরিয়ে সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতে চমকের রাজনীতি করছে বিজেপি ৷ ’

    কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্তে মঙ্গলবার রাতেই তীব্র প্রতিক্রিয়া দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ তিনি জানান, ‘রাজনৈতিক ইমার্জেন্সি চলছিল ৷ এখন ফিনান্সিয়াল ইমার্জেন্সিও চালাতে চাইছে ৷ তুঘলকি শাসন চলছে দেশে ৷ কাল ও ব্যাঙ্ক বন্ধ করে দিয়েছে ৷ ব্যাঙ্কে ১০০ টাকার নোট নেই ৷ এই সিদ্ধান্তে অনেকে আত্মহত্যাও করতে পারে ৷ আমি মনে করি এই সরকারের এক মুহুর্ত থাকা উচিৎ নয় ৷ এখনই রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করা উচিত ৷’

    তৃণমূলের মতো বামফ্রন্টও এই কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করলেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্য নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া দিতে নারাজ বাম নেতারা ৷ যদিও সূর্যকান্ত মিশ্রের কাছে মমতার বক্তব্য নিয়ে প্রতিক্রিয়া চাওয়া হলে, তিনি বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য নিয়ে কিছু বলতে চাই না ৷ উনি কালো টাকা নিয়ে কথা বলবেন কীভাবে! ওনার দলের নেতা, মন্ত্রী, সাংসদরা মুঠো মুঠো কালো টাকা আত্মসাৎ করেছে এবং উনি সেটা জেনেও তাদের পদে বহাল রেখেছেন ৷ তাই মুখ্যমন্ত্রীর কথার কোনও গুরুত্বই নেই ৷’

    নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী পুরনো ৫০০ ও ১,০০০ টাকার নোট আর ব্যবহার করা যাবে না ৷ কিন্তু ১০ নভেম্বর থেকে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত টাকা বদল করা যাবে ৷ পোস্ট অফিস সহ রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্কগুলিতে টাকা বদল করা যাবে ৷ পরিচয় পত্রের সঙ্গে টাকা বদল করতে পারবেন ৷ টাকা বদলের মোট ৫০ দিন সময় পাওয়া যাবে ৷

    কালো টাকার লেনদেন রুখতে নজিরবিহীন কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে রাজনৈতিক নেতা থেকে সাধারণ মানুষ, চাঞ্চল্য সব মহলে ৷

    First published:

    লেটেস্ট খবর