যখন CAA বিরোধিতায় পথে তৃণমূল, সমর্থনে পথে বিজেপি, তখন আদালত কক্ষে বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্ররা

যখন CAA বিরোধিতায় পথে তৃণমূল, সমর্থনে পথে বিজেপি, তখন আদালত কক্ষে বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্ররা
file photo

বিমান বসু,সূর্যকান্ত মিশ্র, রবীন দেব,অনাদি সাহু, মানব মুখোপাধ্যায়, শ্যামল চক্রবর্তী, কনীনিকা ঘোষবোস, মধুজা সেনরায় সহ ৯ বামনেতা-কে বেকসুর খালাস করলো ব্যাঙ্কশাল আদালত।

  • Share this:

ARNAB HAZRA

#কলকাতা: বিমান বসু,সূর্যকান্ত মিশ্র, রবীন দেব,অনাদি সাহু, মানব মুখোপাধ্যায়, শ্যামল চক্রবর্তী, কনীনিকা ঘোষবোস, মধুজা সেনরায় সহ ৯ বামনেতা-কে বেকসুর খালাস করল ব্যাঙ্কশাল আদালত।

মঙ্গলবার ২০নং মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মায়া চক্রবর্তী বাম নেতাদের বেকসুর খালাসের রায় দেন। অভিযুক্ত বাম নেতারা আজ উপস্থিত ছিলেন ব্যাঙ্কশাল আদালতে। রায় দিতে গিয়ে বিচারক মায়া চক্রবর্তী পর্যবেক্ষণ, "কলকাতা পুলিশ এই মামলায় সঠিক তথ্য প্রমাণ তুলে ধরতে পারেনি। যে তথ্য প্রমাণ আদালতের সামনে এসেছে তাতে অভিযুক্তদের দোষী সাব্যস্ত করা যায় না।"

২০১৮ সালের মে মাসে মৌলালি মোড়ে মিছিল করে প্রতিবাদ করে বাম নেতারা। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সুর মড়িয়ে বাম নেতারা সেই মিছিলে হাঁটেনও। এরপরই রাস্তা আটকে রাখা, এবং বেআইনি জমায়েতের অভিযোগে মামলা রুজু করে তালতলা থানার পুলিশ। মিছিলের কিছু ভিডিও ফুটেজ এবং ১১ পুলিশ আধিকারিক, কর্মীর সাক্ষী উপর দাঁড়িয়ে ছিল মামলা। বাম নেতাদের আইনজীবী ইয়াসিন রহমানের কথায়, "১১জন পুলিশ কর্মীর সাক্ষ্যের উপর দাঁড়িয়ে ছিল মামলা। পুলিশ অভিযোগ করছে, আবার পুলিশ-ই সাক্ষী দিচ্ছে, তাই ধোপে টেকেনি মামলা।"

ব্যাঙ্কশাল আদালত থেকে খালাস পেয়ে বেরনোর সময় বাম নেতাদের চোখেমুখে কোনও বিশেষ অনুভূতি ধরা পড়েনি। মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ অনেক পুরনো বামেদের। এই মামলা তেমনি মিথ্যা বলে দাবি করেন তাঁদের আইনজীবী। বাম নেতা ক্ষিতি গোস্বামী ইতিমধ্যেই প্রয়াত হয়েছেন। তাই তাঁর নাম আগেই বাদ যায় মামলা থেকে। সিপিআইএম নেতা রবীন দেব অসুস্থ হয়ে বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি। তাই তিনি এদিন আদালতে উপস্থিত থাকতে পারেননি।

এনআরসি, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে যখন পথে প্রতিবাদে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর দল তখন পাল্টা এনআরসি, সিএএ সমর্থনে শহরের পথে নামছে গেরুয়া শিবির। মঙ্গলবারের এমন একটা দিনে, বাম নেতাদের অবশ্য সকালটা কাটাতে হল আদালতে।

First published: 08:42:15 PM Dec 17, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर