Home /News /kolkata /
KMC: বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা রুখতে নয়া পদক্ষেপ কলকাতা পুরসভার, কিনতে চলেছে আর্থ টেস্টার যন্ত্র

KMC: বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা রুখতে নয়া পদক্ষেপ কলকাতা পুরসভার, কিনতে চলেছে আর্থ টেস্টার যন্ত্র

কলকাতা পুরসভার আলো বিভাগের ইঞ্জিনিয়াররা মার্কেট সার্ভে করে বিভিন্ন যন্ত্র পরীক্ষা করে দেখেছেন। তার মধ্যে সবথেকে বেশি পছন্দ এবং বাজেটের মধ্যে যন্ত্রটি হল আর্থ টেস্টার। 

  • Share this:

#কলকাতা: বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা রুখতে কলকাতা পুরসভা কিনতে চলেছে আর্থ টেস্টার যন্ত্র। খুব সহজেই বাসস্তন্দে বিদ্যুৎ লিকেজ আছে কিনা তা ধরা পড়বে এই যন্ত্রে। অল্প খরচে কেনা এই যন্ত্র থাকবে প্রতিটি ওয়ার্ডে থাকবে। পুরসভার তদন্তে উঠে এসেছে আর্থিং নিয়ে গাফিলতির অভিযোগ। যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস মেয়র পরিষদের।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক-এর পরামর্শ মতো কলকাতা পুরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম নির্দেশ দিয়েছিলেন আর্থ মেগার যন্ত্র কেনার জন্য। কলকাতা পুরসভার আলো বিভাগের ইঞ্জিনিয়াররা মার্কেট সার্ভে করে বিভিন্ন যন্ত্র পরীক্ষা করে দেখেছেন। তার মধ্যে সবথেকে বেশি পছন্দের এবং বাজেটের মধ্যে যন্ত্রটি আর্থ টেস্টার।

আনুমানিক ছয় থেকে সাত হাজারের মধ্যে এই যন্ত্রটি বাজারে উপলব্ধ। এর মাধ্যমে শুধু বিদ্যুতের পোস্ট নয়, আর্থিং মাপা যাবে ট্রান্সমিটারেরও। বাতিস্তম্ভের গায়ে এবং আর্থিং-এর তারে সংযোগ করে নির্দিষ্ট যন্ত্রের লিভার ঘোরালেই বোঝা যাবে বিদ্যুৎ লিকেজ হচ্ছে কিনা সেই বাতিস্তম্ভ থেকে। সেই বাতিস্তম্ভের আর্থিং-এর পরিমাপটাও জানা যাবে এই যন্ত্রে থাকা মিটারের মাধ্যমে।

কলকাতা পুরসভার আলো বিভাগের মেয়র পরিষদ সন্দীপ রঞ্জন বক্সী বলেন, '' মেয়রের নির্দেশে আমরা মার্কেট সার্ভে করে দেখেছি ৬০০০ থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন যন্ত্র রয়েছে আর্থিং টেস্ট করার জন্য। এর মধ্যে আমাদের আলো বিভাগের ইঞ্জিনিয়াররা একটি যন্ত্র পছন্দ করেছেন সেই যন্ত্রের গুনাগুন বিচার করে দেখা হচ্ছে। এরপর কলকাতা পুরসভার ১৪৪ টি ওয়ার্ডের জন্যই মেয়র এর নির্দেশে এই যন্ত্র কেনা হবে।''

কলকাতা পুরসভার আলো বিভাগের সমীক্ষাতে উঠে এসেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। অনেক জায়গাতেই ফুটপাত বা পার্কের সংলগ্ন এলাকায় কাজ করতে গিয়ে বাতিস্তম্ভের আর্থিং-এর তার কেটে যাচ্ছে। সেই রিপোর্ট সঠিকভাবে করা হচ্ছে না আলো বিভাগে। এই কারণেও দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা প্রবল। বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন মেয়র পরিষদ পার্ক দেবাশীষ কুমারও। এই ঘটনা থেকে সজাগ থাকতে হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন। পাশাপাশি আর্থিং এর তার কোথাও খোলা থাকলে আলো বিভাগে যোগাযোগের পরামর্শ মেয়র পরিষদ আলো বিভাগের।

কলকাতা পৌরসভার মেয়র পরিষদ আলো সন্দীপ রঞ্জন বক্সী বলেন, '' মাঝে মাঝেই দেখা যায় আর্থিং করার পরেও বিভিন্ন জায়গায় কাজের পর বাতিস্তম্ভের আর্থিং এর তার কাটা। অনেকদিন পর সেই ঘটনা নজরে এলেই সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। কিন্তু এই ধরনের তার কেটে গেলে বিপত্তি ঘটতে পারে। তাই সঙ্গে সঙ্গেই যাঁরা কাজ করেন, তাঁরা আলো বিভাগে জানালে আর্থিং মেরামতি দ্রুত করে নেওয়া যায়।'' কলকাতা পুরসভার মেয়র পরিষদ (পার্ক) দেবাশীষ কুমার এই ধরনের ঘটনা হতে পারে বলে স্বীকার করে নিয়েছেন। পার্ক সংলগ্ন এলাকায় বা ফুটপাতে এ'ধরনের কাজ করতে গেলে বাতিস্তম্ভের কাছাকাছি কাজে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। বাতি স্তম্ভের আর্থিং যাতে কোনওভাবেই না কাটা যায় সেদিকে নজর রেখেই কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন।বড় কাজের জন্য আগেই পরিকল্পনা করে দেখে নেওয়া হয় কোথায় কোন তার রয়েছে। কিন্তু ছোটখাটো কাজের জন্য অনেক সময় খোঁড়াখুড়ি করতে গিয়ে এ ধরনের বিপত্তি যে ঘটে না তা নয়, তবে সতর্ক থেকে কাজ করার উচিত বলেই জানান দেবাশীষ কুমার।

কলকাতা পুরসভার আর্থিং টেস্টারের খুঁটিনাটি--

★বাতিস্তম্ভের আর্থিং মেপে দেখতে কলকাতা পৌরসভা কিনছে 'আর্থ টেস্টার' যন্ত্র।

★প্রতিটি যন্ত্রের আনুমানিক মূল্য ৬ থেকে ৭ হাজার টাকা।

★কলকাতা পৌরসভার 144 টি ওয়ার্ডে থাকবে একটি করে আর্থ টেস্টার যন্ত্র।

★বাতিস্তম্ভের পাশাপাশি ট্রান্সমিটারের আর্থিং ও মেপে দেখা যাবে এই যন্ত্রের মাধ্যমে।

★অন্য বিভাগের কাজের জন্য আর্থিং এর তার কেটে যাচ্ছে বলে অভিযোগ আলো বিভাগের।

★বিভিন্ন দফতরকে আর্থিং এর তার কেটে গেলে তা সঠিকভাবে আলো বিভাগকে জানানোর জন্য পরামর্শ।

বাতিস্তম্ভের সংলগ্ন এলাকায় অন্য বিভাগের কাজ করলে এবার থেকে সতর্ক থাকার পরামর্শ আলো বিভাগের। কোনোভাবে আর্থিং এর তার কেটে গেলে তা সঙ্গে সঙ্গে আলো বিভাগকে জানানোর জন্য অনুরোধ মেয়র পরিষদ আলো বিভাগ সন্দীপ রঞ্জন বক্সীর।

BISWAJIT SAHA
Published by:Rukmini Mazumder
First published:

Tags: KMC

পরবর্তী খবর