corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘নাগরিকত্বের অধিকার থেকে বঞ্চিত করলে মানুষ কুর্সি থেকে টেনে নামাবে’, মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ বিজয়বর্গীর

‘নাগরিকত্বের অধিকার থেকে বঞ্চিত করলে মানুষ কুর্সি থেকে টেনে নামাবে’, মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ বিজয়বর্গীর
কৈলাস বিজয়বর্গীয়
  • Share this:

ARUP DUTTA   

#কলকাতা: রাজ্যের মানুষ আপনাকে মুখ্যমন্ত্রী করেছেন। ভুলে যাবেন না এটা গণতন্ত্র। মানুষকে নাগরিকত্বের অধিকার থেকে বঞ্চিত করলে মানুষ আপনাকে কুর্সি থেকে টেনে নামাবে। নাগরিকত্ব বিল পাশের পরেও এ রাজ্যে তা লাগু না করা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর দাবিকে চ্যালেঞ্জ করে বৃহস্পতিবার বিজেপির রাজ্য দপ্তরের বাইরে এক অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন রাজ্যে বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গী। একইসঙ্গে রাজ্যে ১০০ দিনের মধ্যে সমস্ত উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব পাইয়ে দেওয়ার দাবি করেছেন বিজেপি নেতা ৷ তিনি এদিন বলেন, মতুয়া, রাজবংশী, কীর্তনীয়ার মতো সম্প্রদায়ের উদ্বাস্তু মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি এই বিল পাশের মধ্য দিয়ে পূর্ণ হল। বিজেপি ও RSS সূত্রে খবর, দেশভাগ ও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পর পার্শবর্তী বাংলাদেশ থেকে প্রায় দেড় কোটি মানুষ এদেশে এসেছেন। এর সিংহভাগ মানুষ (প্রায় ৬০ শতাংশের বেশি ) রয়েছে পশ্চিমবঙ্গে। কেন্দ্রের এই বিল পাশের ফলে রাজ্যের আগামী নির্বাচনে বিশেষ করে  উদ্বাস্তু ভোটে বড় সাফল্য পেতে পারে বিজেপি। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, ৩৪ বছরের বাম জামানায় এই উদ্বাস্তু ভোটের ফায়দা তুলেছে বামেরা ৷ বাম জামানার পর সেই উদ্বাস্তু ভোট চলে যায় তৃণমূলের দিকে। কিন্তু, নাগরিকত্ব সহ উদ্বাস্তু সমস্যার কোন রাজনৈতিক সমাধান হয় নি। গত ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্রে মোদী শাহের সরকার আসার পরেই পরিস্থিতির পরিবর্তন হতে শুরু করে। বাংলা দখলে শাহের মিশন বাংলা ভিসনে এই উদ্বাস্তু ভোটকে পাখির চোখ করে বিজেপি। রাজনৈতিক ভাবে বিজেপি ও সাংগঠনিক ভাবে  RSS এই গেম প্ল্যান কার্যকরী করতে উদ্বাস্তু ও কলোনী এলাকায় প্রচার শুরু করে। সেই প্রচারের অন্যতম প্রতিশ্রুতি ছিল হিন্দু উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব প্রদান। গত ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে তার জেরেই মতুয়া প্রভাবিত বনগাঁ ও রাজবংশী অধ্যুষিত রায়গঞ্জ লোকসভা আসন জেতে বিজেপি। সাম্প্রতিক উপ নির্বাচনে রায়গঞ্জ কেন্দ্রের অন্তর্গত কালিয়াগঞ্জে হারলেও, এই বিল পাশের জেরে সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে বলে আত্মবিশ্বাসী বিজেপি।
Published by: Elina Datta
First published: December 12, 2019, 9:07 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर