• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • চলছে না লোকাল, যাত্রীও হাতেগোনা! পুজোয় চেনা সাজেও অচেনা হাওড়া-শিয়ালদহ

চলছে না লোকাল, যাত্রীও হাতেগোনা! পুজোয় চেনা সাজেও অচেনা হাওড়া-শিয়ালদহ

আলোর মেলায় সেজে উঠেছে শিয়ালদহ স্টেশন৷

আলোর মেলায় সেজে উঠেছে শিয়ালদহ স্টেশন৷

করোনা আবহে দুর্গা পুজোর মতোই বদলে গিয়েছে শিয়ালদহ, হাওড়া স্টেশনের পরিচিত ছবিটা৷ চলতি বছরে স্পেশ্যাল ছাড়া ট্রেন নেই।

  • Share this:

#কলকাতা: লোকাল ট্রেন চলছে না। হাতে গোনা কয়েকটা দূরপাল্লার স্পেশাল চলছে। আর চলছে স্টাফ স্পেশ্যাল। ফলে পুজোতেও প্রায় ফাঁকা গোটা স্টেশন চত্বর৷ যদিও অন্যান্য বছর পুজোর সময় ভোল বদলে যায় হাওড়া, শিয়ালদহ স্টেশনের। লাখো মানুষের ভিড়ে চেনা স্টেশনের অচেনা রুপ প্রকাশ পায়।

করোনা আবহে দুর্গা পুজোর মতোই বদলে গিয়েছে শিয়ালদহ, হাওড়া স্টেশনের পরিচিত ছবিটা৷ চলতি বছরে স্পেশ্যাল ছাড়া ট্রেন নেই। আর কলকাতায় যাঁরা ঠাকুর দেখতে আসেন, তাঁদের একটা বড় অংশ আসেন লোকাল ট্রেনে চেপে। এবার সেটাও বন্ধ। তবু দুর্গা পুজোর আবহে স্টেশন সাজানো হয়েছে বাহারি আলোয়। ফলে বিগত বছরগুলির ন্যায় এবারও চেনা স্টেশন বাইরে থেকে অচেনা লাগছে ভীষণ।

হাওড়া স্টেশনর ভবনটি বরাবরই সুন্দর। হাওড়া ব্রিজ ও গঙ্গার পাড়ে হওয়ার কারণে এর সৌন্দর্য ভীষণ আলাদা। এবার স্টেশন সাজানো হয়েছে তিন রঙা আলোয়। আলোর মালায় গাঁথা হয়েছে দেবী দূর্গার মূর্তি। পাশাপাশি ঢাক আর কাঁসরের মেলবন্ধনে সেজে উঠেছে স্টেশন। যদিও ফুড প্লাজা প্রতিবার সাজানো হয়। এবার আর সেই ছবি ধরা পড়েনি।

শিয়ালদহ স্টেশন সাজানো হয়েছে বাহারি সবুজ আলোর চেনে। সামনের নির্মীয়মাণ মেট্রো স্টেশন পর্যন্ত আলোর মালায় উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে। শিয়ালদহ স্টেশনের ভিতরের ভোলবদল হয়েছে। যদিও যাত্রী সেভাবে না থাকায় দেখার কেউ নেই৷ তবে দূরপাল্লার ট্রেন ধরতে যাঁরা আসছেন তাঁরাও বলছেন মন খারাপ লাগছে বটে, তবে স্টেশনের বাহারি আলো পুজোর মুড তৈরি করে দেয়। ইতিমধ্যেই রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল স্টেশনের এই আলোকসজ্জার ছবি ট্যুইট করেছেন।

পূর্ব রেল সূত্রে জানানো হয়েছে, ডিভিশনাল হেড কোয়ার্টার সুন্দর করে সাজানো হয়েছে। পুজোর সঙ্গেথে সকলের ভাল লাগা জুড়ে থাকে। তাই বরাবরের মতো এভাবেই স্টেশন সাজানো হয়েছে। রেল আধিকারিকদের বক্তব্য, কাউকে দেখানোর জন্যে নয়। পুজোর আনন্দে সামিল হতেই এই আয়োজন করা হয়েছে। তবে বিভিন্ন ফুড প্লাজা আশাবাদী ছিল পুজোর আগেই চালু হয়ে যাবে লোকাল ট্রেন। তাহলে তাদের কিছুটা হলেও আয় হবে। যদিও সেই আশা মিটল না এই পুজোয়।

ABIR GHOSAL

Published by:Debamoy Ghosh
First published: