• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • COVAXIN CRISIS IN KOLKATA UNCERTAINTY ON AVAILABILITY IN BENGAL DMG

Covaxin Crisis in Kolkata: কোভ্যাক্সিনের জন্য হাহাকার, দ্বিতীয় ডোজ পেতে নাকাল মানুষ! কবে আসবে জানে না রাজ্যও

প্রতীকী ছবি৷

শুক্রবার কলকাতায় কোভ্যাক্সিনের টিকা দেওয়া হবে না বলে বৃহস্পতিবারই জানিয়ে দিয়েছিল পুরসভা৷ রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের সেন্ট্রাল ড্রাগ স্টোরেও কোভ্যাক্সিনের একটি ডোজও নেই (Covaxin Crisis in Kolkata)৷

  • Share this:

#কলকাতা: কলকাতায় কোভ্যাক্সিনের জন্য কার্যত হাহাকার৷ বেসরকারি হাসপাতালগুলির হাতে কিছু সংখ্যক কোভ্যাক্সিনের ডোজ থাকলেও সরকারের ভাঁড়ার শূন্য৷ ফলে সরকারি হাসপাতাল বা পুরসভার স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে যাঁরা কোভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজ পেয়েছিলেন, দ্বিতীয় ডোজ নিতে গিয়ে রীতিমতো নাকাল হচ্ছেন তাঁরা৷ কবে কোভ্যাক্সিনের নতুন ডোজ রাজ্যের হাতে আসবে, তা নিয়েও অন্ধকারে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর৷

কোভিশিল্ড-এর তুলনায় রাজ্যে কোভ্যাক্সিন টিকার ব্যবহার অনেকটাই কম৷ তা সত্ত্বেও ভারত বায়োটেকের তৈরি এই টিকার জোগান এতটাই কম যে আজ, শুক্রবার কলকাতায় কোভ্যাক্সিনের টিকা দেওয়া হবে না বলে বৃহস্পতিবারই জানিয়ে দিয়েছিল পুরসভা৷ রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের সেন্ট্রাল ড্রাগ স্টোরেও কোভ্যাক্সিনের একটি ডোজও নেই৷ তবে কলকাতায় উডল্যান্ডস-এর মতো কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতালে কোভ্যাক্সিনের টিকা আজকেও দেওয়া হচ্ছে৷ স্বাস্থ্য দফতর থেকে জানানো হয়েছে, যেহেতু আগে থেকেই টিকা পাঠিয়ে দেওয়া হয়, তাই জেলায় কয়েকটি জায়গায় কোভ্যাক্সিনের টিকা মিললেও মিলতে পারে৷

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, অবিলম্বে চার লক্ষ কোভ্যাক্সিনের ডোজ পাঠানোর জন্য কেন্দ্রকে অনুরোধ করা হয়েছে৷ কিন্তু কবে সেই টিকা আসবে তা এখনও স্পষ্ট নয়৷ আজকে যে তা আসবে না, এটা নিশ্চিত৷ আজই কলকাতায় পাঁচ লক্ষ ডোজ করোনার টিকা এসে পৌঁছনোর কথা৷ কিন্তু তার পুরোটাই আসবে কোভিশিল্ড-এর টিকা৷ স্বাস্থ্য দফতরের কর্তারা বলছেন, অন্তত দেড় থেকে দু' লক্ষ ডোজ কোভ্যাক্সিনের টিকা এখন পাওয়া গেলেও সাত দিন মতো চালিয়ে নেওয়া সম্ভব হবে৷

এই পরিস্থিতিতে কোভ্যাক্সিনের দ্বিতীয় ডোজ নিতে গিয়ে হয়রান হচ্ছেন বহু মানুষ৷ দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার নির্দিষ্ট দিন পেরিয়ে গেলেও কোভ্যাক্সিনের টিকা পাচ্ছেন না তাঁরা৷ এ দিন এসএসকেএম হাসপাতালেও অনেকে কোভ্যাক্সিন নিতে ভিড় করেছিলেন৷ কিন্তু কোভ্যাক্সিনের টিকা নেই বলে হাসপাতালের তরফে নোটিস ঝুলিয়ে দেওয়া হয়৷

Published by:Debamoy Ghosh
First published: