Home /News /kolkata /
নবান্ন অভিযানের আঁচ বিধানসভাতেও, প্রতিবাদে বাম-কংগ্রেসের ওয়াক আউট

নবান্ন অভিযানের আঁচ বিধানসভাতেও, প্রতিবাদে বাম-কংগ্রেসের ওয়াক আউট

বুধবার রাজ্য বিধানসভায় বাংলার প্রতি কেন্দ্রীয় বঞ্চনার অভিযোগ তুলে সরব হন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ও। নাম পরিবর্তন নিয়ে রাজ্যের শাসক দলের পাশে দাঁড়াচ্ছে বাম-কংগ্রেস শিবির।

বুধবার রাজ্য বিধানসভায় বাংলার প্রতি কেন্দ্রীয় বঞ্চনার অভিযোগ তুলে সরব হন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ও। নাম পরিবর্তন নিয়ে রাজ্যের শাসক দলের পাশে দাঁড়াচ্ছে বাম-কংগ্রেস শিবির।

নবান্ন অভিযানের আঁচ বিধানসভাতেও, প্রতিবাদে বাম-কংগ্রেসের ওয়াক আউট

  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: নবান্ন অভিযানের আঁচ গিয়ে পড়ল বিধানসভাতেও। আজ অধিবেশনের শুরুতেই অভিযানে পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগ তুলে মুলতুবি প্রস্তাব চান বাম ও কংগ্রেস বিধায়করা। তা নাকচ হতেই শুরু হয় অধ্যক্ষকে ঘিরে ধরে বিক্ষোভ। ওয়াকআউটও করেন তাঁরা। আরও একধাপ এগিয়ে রাজ্যপালের কাছেও নালিশও জানায় বাম ও কংগ্রেসের প্রতিনিধি দল। বিধানসভায় বিরোধীদের আচরণে ক্ষুব্ধ সরকারপক্ষ। আনা হয়েছে নিন্দাপ্রস্তাব।

    নবান্ন অভিযানের সাফল্যই তুলে ধরছে বামদলগুলি। আর তার রেশ ধরে রাখতে মরিয়া তারা। তাই কর্মসূচি শেষ হওয়ার পর থেকেই পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগে সরব হন বামনেতারা। মঙ্গলবার ধিক্কার দিবসের ডাক দেওয়া হয়। অস্ত্রে শান দিতে বিধানসভাকেও মঞ্চ করেন বাম ও কংগ্রেস বিধায়করা।

    অধিবেশন শুরু হতেই পুলিশি অত্যাচার ও বিধায়কদের আটক করার অভিযোগে মুলতুবি প্রস্তাব চায় বাম ও কংগ্রেস। তা খারিজ হতেই শুরু হয় বিক্ষোভ। প্ল্যাকার্ড ও কালো পতাকা হাতে নিয়ে ওয়েলে নেমে চলে বিক্ষোভ। এরপর, ওয়াক আউট করেন বাম ও কংগ্রেস বিধায়করা।

    শুধুমাত্র বিধানসভাতেই থেমে থাকেনি বাম-কংগ্রেস বিধায়কদের বিক্ষোভ। রাজ্যপালের কাছেও নালিশ জানান তাঁরা।  বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, ‘নবান্ন অভিযানে হাজার-হাজার মানুষ আহত ৷ রাজ্যকে কারাগারে পরিণত করা হচ্ছে ৷ সাংবাদিকদের মারধর করা হয়েছে ৷ আমরা রাজ্যপালের কাছে যাচ্ছি ৷’

    বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নানের মন্তব্য,  ‘জঘন্য অপরাধ করেছে সরকার ৷গতকালের আন্দোলনে পুলিশের অত্যাচার ৷ গণতান্ত্রিক আন্দোলনে লাঠি চালায় পুলিশ ৷ ছাড় পাচ্ছেন না সাংবাদিকরাও ৷ তাঁদেরও বেধড়ক মারধর করা হয়েছে ৷ ফ্যাসিস্ট কায়দায় হামলা পুলিশের ৷ রাজ্যপালকে সব জানিয়েছি ৷ এরাজ্যে গণতন্ত্র বিপন্ন ৷’

    বিধানসভায় বাম ও কংগ্রেসের বিক্ষোভে যোগ দেন বিজেপি বিধায়ক দিলীপ ঘোষও। নবান্ন অভিযানে পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগ নিয়ে নয়া তত্ত্ব খাড়া করেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি।  দিলীপ ঘোষের কটাক্ষ, ‘বিজেপি-র মোকাবিলায় মরিয়া সরকার ৷ লাঠিচার্জ করে বামেদের জমি ফেরানোর চেষ্টা ৷ বিরোধী আসনে বসানোর চেষ্টা মমতার ৷ বাম-তৃণমূল সমঝোতায় নবান্ন অভিযান ৷’

    বাম ও কংগ্রেসের বিধায়কদের বিরুদ্ধে নিন্দাপ্রস্তাব পাস করেছে সরকারপক্ষ।

    বিরোধীদের নিন্দায় সরকারবাম-কংগ্রেস বিধায়করা যে আচরণ করেছেন, বিধানসভার বিধি অনুযায়ী তা অসঙ্গত। এভাবে অধ্যক্ষের কাজে বাধা দেওয়া যায় না।

    বামেদের দীর্ঘদিন ধরে মরচে পড়ে থাকা সংগঠনে কিছুটা ঝাঁকুনি দিয়েছে নবান্ন অভিযান। সেই কর্মসূচির বাড়তি ফসল ঘরে তুলতেই ঝাঁপিয়ে পড়েছে তারা ৷

    First published:

    Tags: Abdul Mannan, Assembly Walkout, Congress, Left Front, Sujan Chakrabarty